• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:১৪ অপরাহ্ন |

কারাবিধি অনুযায়ী ইউসুফের ময়না তদন্ত

yousufসিসি ডেস্ক: রাজাকার বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতা ও জামায়াত নেতা এ কে এম ইউসুফের মরদেহ পোস্টমর্টেম ছাড়া দাফনের অনুমতি চেয়ে করা আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।

বিচারপতি মুজিবুর রহমান মিয়ার নেতৃত্বে ২ সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল-২ রোববার এ আদেশ দেন। আদেশে আদালত বলেন, ইউসুফের মৃত্যু কীভাবে হয়েছে তা ট্রাইবুনাল জানতে চায়। এজন্য সঠিকভাবে বিস্তারিত মৃত্যুর যথাযথ কারণ জানানোর জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আদেশ দেওয়া হয়েছে।

ময়নাতদন্ত করা ছাড়া তার লাশ স্বজনদের নিকট হস্তান্তরে আসামি পক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত এ আদেশ দেন। আবেদনে বলা হয় যে, তার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে তাই তার ময়নাতদন্ত না করা হোক।

আদালতের এ আদেশের ফলে ইউসুফের ময়নাতদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন, প্রসিকিউটির হায়দার আলী। আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন মরহুম ইউসুফের আইনজীবী অ্যাডভোকেট গাজী তমিম।

রোববার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে একেএম ইউসুফ (৮৯) মারা যান। রোববার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিত্সাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক আবদুল মজিদ ভুঁইয়া তার মারা যাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ কে এম ইউসুফকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে আসা হয়।

গুরুতর হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। তাঁর ‘ব্লাড প্রেসার ও পালস’ (রক্তচাপ ও স্পন্দন) পাওয়া যাচ্ছিল না। হাসপাতালের হূদরোগ বিভাগের সিসিইউতে নেওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। ইউসুফের আইনজীবী তাজুল ইসলাম ও মিজানুল ইসলাম বলেন, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ কে এম ইউসুফ মারা গেছেন। একাত্তরে রাজাকার বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে পরিচিত জামায়াত নেতা ইউসুফের বিরুদ্ধে গত বছরের ১ আগস্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২-এ গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের ১৩টি অভিযোগ গঠন করা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে মামলাটির কার্যক্রম শেষ পর্যায়ে চলে এসেছিল। ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন করার কথা ছিল।

ইউসুফের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আদেশে বলা হয়, ইউসুফ রাজাকার বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতা ও খুলনা শান্তি কমিটির প্রধান ছিলেন। তিনি একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালে বাগেরহাটের ভাষাবাজার, কচুয়া, শাঁখারীকাঠি বাজার, রায়েন্দাবাজার, তাপালবাড়ি বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে গণহত্যা, হত্যা, নির্যাতন-নিপীড়ন,  ধর্মান্তরকরণসহ নানা ধরনের অপরাধ করেছেন। রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ১ জুলাই ট্রাইব্যুনাল-১ ইউসুফের বিরুদ্ধে মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য ট্রাইব্যুনাল-২-এ স্থানান্তর করেন।

গত বছরের ১২ মে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ইউসুফকে গ্রেপ্তার করে। ট্রাইব্যুনাল তাঁর জামিনের আবেদন খারিজ করে তাঁকে কারাগারে পাঠান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ