• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০২:০৬ পূর্বাহ্ন |

কার কাছে যাবো

রেজোয়ান সিদ্দিকী:

Rezwবাংলাদেশের মানুষের দাঁড়ানোর জায়গাগুলো ক্রমেই সঙ্কুচিত হয়ে আসছে। সরকার যদি স্বৈরাচারী ও ফ্যাসিবাদী হয়ে ওঠে, তাহলে জনগণের কোথায়ও দাঁড়ানোর জায়গা দরকার। চিরাচরিতভাবে আমরা চিন্তা করে আসছি যে, সেই দাঁড়ানোর জায়গা হলো বিচার বিভাগ। কিন্তু বিভিন্ন বিচারিক রায় ও সরকারি মনোভাবের কারণে ক্রমেই মনে হচ্ছে, বিচার বিভাগ এখন আর স্বাধীন নেই। নিম্ন আদালত তো স্বাধীন নয়ই। নিম্নআদালত সম্ভবত কখনোই ছিল না। কারণ নিম্নআদালতের রায়ের বিরুদ্ধে মানুষ আপিল বিভাগ বা সুপ্রিম কোর্টের কাছে যায়। দেখা গেছে, নিম্নআদালতে যদি কারো মৃত্যুদণ্ড ও হয়, আপিল বিভাগ বা সুপ্রিম কোর্টে গেলে তারা অনেকেই এ দণ্ড থেকে রেহাই পেয়েছেন। উচ্চ আদালত কখনোই নিম্নআদালতের রায়ের চেয়ে অধিকতর শাস্তির ব্যবস্থা করত না। হয় নিম্ন আদালতের রায় বহাল রাখত অথবা শুনানি শেষে সেই দণ্ড অনেকখানি কমিয়ে দিত। কোনো কোনো ক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামিরা বেকসুর খালাসও পেত।
এখন আর সেদিন নেই। এখন দেখা যাচ্ছে যে, নিম্ন আদালত যদি যাবজ্জীবন দেন, তাহলে উচ্চ আদালত তার সে রায় পরিবর্তন করে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। আর সে আদেশ কার্যকরও হয়। ফলে নিম্নআদালত তো বটেই, উচ্চ আদালতের ব্যাপারেও জনমনে এক ধরনের ভীতির সঞ্চার হয়েছে। এ রকম ভাবনার উদ্রেক হয়েছে যে, নিম্নআদালত হয়তো ১০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন। কিন্তু উচ্চ আদালতে গেলে মৃত্যুদ ও হতে পারে। তা হলে যাওয়ার বা দাঁড়ানোর জায়গা কোথায়? আদালত বলি, দুর্নীতি দমন কমিশন বলি, নির্বাচন কমিশন বলিÑ এসব সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান এখন কোনোভাবেই যেন আর স্বাধীন নেই। স্বাধীন যে থাকতে পারবে না, সেটাও সরকারের কর্মকাণ্ডে সুস্পষ্টভাবে প্রতীয়মান ও প্রমাণিত হয়েছে। এই সরকারের আমলে যারা প্রধান বিচারপতির দরজায় লাথি মেরেছেন, আদালত ভাঙচুর করেছেন, তারা হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি নিয়োজিত হয়েছেন। স্কাইপ কেলেঙ্কারির কারণে ট্রাইব্যুনালের যে বিচারক নিজে থেকেই পদত্যাগ করেছিলেন, সরকার তাকে অপসারণ তো করেইনি, বরং উচ্চ আদালতে তাকে বিচারিক দায়িত্ব দিয়েছে। সর্বত্র কেমন যেন ভয় ভয় লাগে। কেন যেন আতঙ্কের সৃষ্টি হয়।
ইতোমধ্যে এমন অনেক ঘটনাই আমরা প্রত্যক্ষ করেছি। শাহবাগে একদল লাফাঙ্গা আধিপত্যবাদীর শক্তির চক্রান্তে তুমুল নর্তন-কুর্দন করল। তাদের দাবি ছিল, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে সবাইকে মৃত্যুদণ্ড দিতে হবে। সেখানে তুমুল হইচই আর বেলাল্লাপনা হলো। দিনরাতে যা ঘটল, তা বাংলাদেশের সভ্যতা, ভব্যতা, মূল্যবোধ ও সংস্কৃতিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করল। সেসব ইতরতার চিত্র আমরা ফেসবুকে দেখেছি। গা রি রি করে উঠেছে। আমরা আমাদের সন্তানদের জন্য, ভবিষ্যতের জন্য চিন্তিত হয়েছি। হতে পারে আমরা পুরনো মূল্যবোধের মানুষ। কিন্তু হাজার বছর ধরে অবিরাম মূল্যবোধ ও সংস্কৃতি চর্চার ফলে আমাদের একটা নিজস্ব স্বীকৃত জীবনবোধ গড়ে উঠেছে। সেটি ফেলনা নয়। ইউরোপীয় সমাজে যৌনতা ও মূল্যবোধের যে চর্চা, তা আমাদের দেশে নেই। সেখানে রাস্তাঘাটে, পার্কে বা পাবলিক প্লেসে যেসব দৃশ্য দেখা যায়, তার কোনো কিছু বাংলাদেশ বা এশীয় দেশগুলোতে কল্পনাও করা যায় না। এশিয়া অঞ্চলে মানুষের জীবনবোধ সম্পূর্ণ আলাদা। ইউরোপে যা দেখেছি, প্রথম প্রথম তাতে লজ্জা পেয়ে দৌড়ে দৃশ্যান্তরে চলে গেছি। তারপরে আর কিছু মনে হয়নি। মনে হয়েছে, এদের জনজীবন ও সংস্কৃতি এদের মতোই। আমাকে চলতে হবে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর রীতি অনুযায়ী। কিন্তু এশিয়ার কোথায়ও আমি ইউরোপের মতো দৃশ্য দেখিনি। হয়তো মুক্ত যৌনাচার আছে। হয়তো সমাজের ভেতরে তার অনুমোদনও আছে, কিন্তু সেটি এক বড় ধরনের নিভৃতি। প্রকাশ্যে কিছুই নেই। মুক্ত যৌনাচারীরা যখন এশিয়ায় আসেন, তখন তারা এশীয়দের মতো জীবনাচরণে অভ্যস্ত হন। ঢাকায় দেখি বিদেশীরা সালোয়ার কামিজের সাথে ওড়নাও পরেন।
কিন্তু শাহবাগে কথিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য যে লীলা হলো, তাতে সমর্থন দিতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী থেকে শুরু করে সেখানকার নাচিয়ে-গাইয়েরা এসে সংহতি প্রকাশ করতে থাকলেন। বাংলাদেশে কার কী বিচার হবে, তার সাথে ভারতীয় নাচিয়ে-গাইয়েদের এত কী মতলব! কেউ কোনো প্রশ্ন করল না। অথচ এই ভারতই সিমলা চুক্তির মাধ্যমে শেখ মুজিবুর রহমানের আমলে ১৯৫ জন যুদ্ধাপরাধীকে স্বদেশে পাঠিয়ে দিয়েছিল। শাহবাগীদের জন্য সে ভারতীয়রা কেন এত ফাল্ পারল, তা নিয়ে কেউ প্রশ্ন করল না। এই ফালাফালির সাথে সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা একেবারে বগল বাজিয়ে যোগ দিলো। কেউ জানতে চাইল না, যে ভারত প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের নিজ দেশ থেকে মুক্তি দিয়ে দিলো, সেই ভারতই যুদ্ধাপরাধে সহযোগিতার নামে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে সরকার যে ঘায়েল করল, তার প্রতি সহানুভূতি জানাল। যেকোনো সুস্থ বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ প্রশ্ন করতে পারতেন, কেন নিজ ভূমি থেকে ভারত ১৯৫ জন চিহ্নিত প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীকে ছেড়ে দিলো। আর যুদ্ধাপরাধীদের নামে যাদের বিচার চলছে, শেখ মুজিবুর রহমান তাদের জন্য কেন সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছিলেন। সেই ঘোষণার ৪০ বছর পরে এসে শুধু বেছে বেছে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে কেন দণ্ড-মৃত্যুদণ্ড দেয়া হবে? শাহবাগের ভিখারিরা যখন রাত-দিন ভিক্ষার বিরানি-কাচ্চি খাচ্ছিলেন, মতলবের পয়সা খাচ্ছিলেন, তখন তারা বুঝতে চাননি, কেন কী মতলবে তাদের ব্যবহার করা হচ্ছে। এখনো তারা সেটি উপলব্ধি করেন না।
ফেব্রুয়ারিতেও দেখি শাহবাগে এক নারীকণ্ঠ চেঁচামেচি করছে ‘শাহবাগ তুমি কি জেগে আছো? ঘুমিও না। রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ গঠনে তুমি জেগে থাকো।’ এটি বিস্ময়ের উদ্রেগ করে। কিন্তু আমরা কি এতটাই নিরুপায়? এতটাই অসহায়? শাহবাগে ধর্মীয় মূল্যবোধের ওপর যে নিষ্ঠুর আঘাত হানা হয়েছে, ইসলামকে, আল্লাহর রাসূল সা:কে যেভাবে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে, সেটা সম্ভবত ইসরাইলেও সম্ভব নয়। ভারত মদদ দিয়েছে, ডুগডুগি বাজিয়েছে। আর এই লাফাঙ্গারা লাফিয়েছে। লাফাচ্ছে। শাহবাগের এই অকর্মণ্য মতলবিরা যখন তথাকথিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় প্রত্যাখ্যান করে মৃত্যুদণ্ড দাবি করল, তখন প্রধানমন্ত্রীও বলে বসলেন, বিচার হতে হবে জন-আকাক্সক্ষা অনুযায়ী। আর কী আশ্চর্য! উচ্চ আদালতে একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করে তা কার্যকরও করে ফেলল। এ ছিল আমাদের মূল্যবোধ অনুযায়ী অকল্পনীয় ব্যাপার। তারপর বোধ করি বিচারকদের আর কিছু করারও ছিল না। ঝটপট একের পর এক তারা মৃত্যুদণ্ডের রায় দিয়ে গেলেন। অথচ ১৯৫ জন যুদ্ধাপরাধীর ব্যাপারে কেউ খোঁজও করল না। এও কম বিস্ময়ের ব্যাপার নয়!
ঘটনা আরো অনেক ঘটেছে। নিম্নআদালত থেকে উচ্চ আদালত পর্যন্ত বিচার-আচার শেষে যেসব খুনিদের মৃত্যুদণ্ড বহাল ছিল, এই জালিম সরকার তাদের শাস্তি মওকুফ করে রাষ্ট্রপতির ক্ষমায় মুক্ত করে দিলো। শুধু তা-ই নয়, এই মুক্তির পর সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা ওই খুনিদের সার্কিট হাউজে ডেকে ফুলমাল্য দিয়ে বরণ করে সংবর্ধনা দিলো। আসলে এখন বাংলাদেশের সরকার খুনিবান্ধব সরকার। সরকারের এক আমলা ফেসবুকে লিখেছেন যে, ছাত্রলীগের সোনার ছেলেরা আপনাদের জামায়াত-শিবির-রাজাকার-আলবদরের হাত থেকে রক্ষা করছে। তাদের কাছে অস্ত্র পাওয়া গেলেই সেটা খবরের কাগজের প্রথম পাতায় ছেপে দিচ্ছেন, এটা কেমন বিচার? এ আমলা আমার চেনা। লজ্জায় অধঃবদন হলাম। পাঁড় আওয়ামী লীগ হলেও তার ভদ্রতায় আমি কিছুটা মুগ্ধই ছিলাম। কিন্তু তার এই স্ট্যাটাসের পরে কেমন যেন শিউরে উঠলাম।
এর পরের ঘটনা, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের অর্থপাচার মামলার রায়। নিম্নআদালতের ওই মামলায় সরকারি আইনজীবীরা যখন এই খালাসের বিরোধিতা করছিলেন, তখন বিচারক মোতাহার হোসেন বারবার তাদের জিজ্ঞেস করেছিলেন, কোন্ বিচার বলে তারেক রহমানকে অধিক দণ্ড দেয়া হবে? তার কোনো সদুত্তর সরকারি আইনজীবীরা দিতে পারেননি। তাদের দাবি ছিল তারেক রহমানকে যাবজ্জীবন বা মৃত্যুদণ্ড দেয়া হোক। বিচারক যুক্তি দাবি করছিলেন। সরকারি আইনজীবীরা কোন যুক্তি দেখাতে পারছিলেন না। কেন যে তাদের কঠোর শাস্তি চান, সে যুক্তিও তাদের কাছে ছিল না। তারেক বিদেশে টাকা পাচার করেছেন, এমন কোনো প্রমাণও তাদের ছিল না। তিনি অন্যের অ্যাকাউন্ট থেকে চিকিৎসা ও ভ্রমণ বাবদ কিছু টাকা খরচ করেছিলেন। সরকারি উকিলরা বলছিলেন, এটাই অর্থপাচার। হাসিরও একটা মাত্রা থাকে। এ ক্ষেত্রে সে মাত্রাও ছাড়িয়ে গেছে। আর ভয়াবহ অবস্থা হলো এই যে, ওই বিচারক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার স্বার্থে সংশ্লিষ্ট মামলা থেকে তারেক রহমানকে বেকসুর খালাস দেন। তবে যার অ্যাকাউন্ট থেকে তিনি টাকাটা নিয়েছিলেন, তাকে অর্থপাচার মামলায় শাস্তি দেন।
তারপর পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিলো। এর অল্প কিছু সময়ের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট বিচারক অবসরে যান। তারপর শুরু হয় আসল ড্রামা। ওই বিচারক কেন তারেক রহমানকে খালাস দিলেন, সেজন্য বিচারকের বিরুদ্ধে সরকার একেবারে ভয়ঙ্করভাবে ক্ষেপে গেল। তার সব কর্মচারীকে ডেকে দুদক জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করল। পরিস্থিতি এমন দাঁড়াল যে, সংশ্লিষ্ট বিচারক দেশ ছাড়তে বাধ্য হলেন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি সংবাদ সম্মেলন করে এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানায়। তারা বললেন যে, এরকম হয়রানি করা হলে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা বলতে কিছুই থাকবে না। সত্যিই থাকবে না। তা হলে মানুষ দাঁড়াবে কোথায়? আরেকটি ঘটনাও নিয়েও আলোচনা হয়েছে বিস্তর। হাইকোর্টের একটি বেঞ্চে একটি বেসরকারি ব্যাংকের জামানত রাখা সম্পত্তি বিক্রি নিয়ে চলছিল একটি মামলা। মামলার শুনানির মাঝখানে বেঞ্চের সিনিয়র বিচারপতিকে সে মামলার রায়ের ব্যাপারে তদবির করতে ফোন করেন একজন ক্যাবিনেট মন্ত্রী। ন্যায় বিচারের ব্যাপারে বিব্রত হয়ে সে বেঞ্চ বিচার না করে প্রধান বিচারপতির কাছে ফাইল ফেরত পাঠান পরবর্তী ব্যবস্থার জন্য। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি সে মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন। সমিতি একই সাথে আদালতের ওপর মন্ত্রীর এ ধরনের হস্তক্ষেপের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানান প্রধান বিচারপতির প্রতি। এ ক্ষেত্রে কোনো পদক্ষেপ দৃশ্যমান হয়নি।
এরপর আসি ১০ ট্রাক অস্ত্র পাচার মামলায়। এই মামলায় ১৪ জন আসামির সবাইকে আদালত মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন। তাদের দোষ অত্যন্ত ‘গুরুতর’। তারা দায়িত্বে অবহেলা করেছেন। দায়িত্ব পালনে অবহেলার কারণে কারো মৃত্যুদণ্ড হতে পারে, এটা কেউ কল্পনাও করেনি। ফলে অফিস-আদালত, রেস্টুরেন্ট, রাস্তা-ঘাট, চায়ের দোকানে সর্বত্র এই আলোচনা হয়েছে সরকার চেয়েছে বলেই রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দলনে এমন রায় দেয়া হয়েছে। সরল বিশ্বাসে, সদুদ্দেশ্যে আমি এই প্রশ্ন উত্থাপন করলাম, আদালতকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য নয়। বিচারক মোতাহার হোসেনের হয়রানির পর এ প্রশ্ন এখন সবার মুখে মুখে। কোথায়ও যেন নাগরিকদের জন্য দাঁড়ানোর জায়গা থাকছে না।
সাংবাদিক ও সাহিত্যিক
(নয়া দিগন্ত, ০৯/০২/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ