• বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন |

চিফ হুইপের বক্তব্য গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত: টিআইবি

TIBসিসি ডেস্ক: শুক্রবার পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা সদরে এক গণসংবর্ধনায় জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজের দেয়া বক্তব্যকে গণতন্ত্র ও সুশাসনের জন্য অশনিসংকেত বলে চিহ্নিত করেছে দুর্নীতিবিরোধী আন্তর্জাতিক সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। অবিলম্বে চিফ হুইপকে তার ওই বক্তব্য প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।
একই সঙ্গে এমন লাগামহীন দুর্নীতি সহায়ক অবস্থান সংসদের চিফ হুইপ পদের মর্যাদার সঙ্গে কতটুকু সামঞ্জস্যপূর্ণ, তা বিবেচনার জন্য সংসদ নেতা ও স্পিকারের প্রতি আহ্বান জানায় টিআইবি।
রোববার এক বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এই আহ্বান জানান।
শুক্রবার পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা সদরে এক গণসংবর্ধনায় জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ বলেন, “নির্বাচন করতে অনেক লাগে। তাই ক্রেস্ট না, ক্যাশ চাই, ক্যাশ।” তার এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ওই বিবৃতি দেয় টিআইবি।
বিবৃতিতে ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “জাতীয় গণমাধ্যমে ও স্থানীয় কেবল চ্যানেলে প্রচারিত চিফ হুইপের বক্তব্য শুধু ন্যক্কারজনকই নয়, বরং তা দেশের গণতন্ত্র ও সুশাসনের জন্য এক অশনিসংকেতও বটে। সংবর্ধনার জন্য উপঢৌকন হিসেবে ক্রেস্টের পরিবর্তে নগদ অর্থ দেয়া জন্য জাতীয় সংসদের একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তির প্রকাশ্য জনসভায় এ ধরনের বক্তব্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দুর্নীতি নির্মূলের অবস্থানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।”
টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, “প্রকাশ্যে টাকা চাওয়া দুর্নীতিরই নামান্তর, যা অন্য দুর্নীতিবাজদের উৎসাহিত করবে। এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার এবং জাতীয় সংসদ কি পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন, তা দেশবাসীকে জানানোর জন্য আহ্বান করছি।”
সংবিধানের ২০(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অনুপার্জিত আয়কে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, জাতীয় সংসদের সদস্য, এমনকি চিফ হুইপ পদে আসীন ব্যক্তির পক্ষে প্রকাশ্যে অবৈধভাবে অর্থ উপার্জনের ঘোষণা দিয়ে শুধু দুর্নীতি সহায়ক অবস্থানই নেয়া হয়নি, বরং সংবিধান লঙ্ঘন করা হয়েছে।
ড. ইফতেখার বলেন, “আমরা আরো উদ্বিগ্ন যে, ইতিপূর্বে যারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন, তাদের কাছে দশ লাখ টাকা করে চাঁদা চাওয়া হয়েছিল। সরকারের এমন অবস্থান রাজনীতি ও সরকার পরিচালনায় নৈতিকতা বিবর্জিত অন্ধকার জগতে নিমজ্জিত করবে।”
‘নির্বাচন করতে অনেক (টাকা) লাগে’- চিফ হুইপের বক্তব্যকে ঠাট্টা-তামাশা নয়, বরং অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ আখ্যায়িত করে নির্বাচনে কালো টাকা এবং রাজনীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের যে ধারা সাম্প্রতিককালে হলফনামাসহ বিভিন্নভাবে প্রকাশিত হচ্ছে, তারই এক লাগামহীন প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের ইঙ্গিত বলে উল্লেখ করেন ড. জামান।
নিজের বক্তব্যের সপক্ষে চিফ হুইপ গণমাধ্যমকে যে সাফাই যুক্তি দেখিয়েছেন, তাও পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক। তিনি অবিলম্বে চিফ হুইপের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে সংসদ নেতার অবস্থান পরিষ্কার করার আহ্বান জানান এবং নবম সংসদে উত্থাপিত সংসদ সদস্যদের আচরণবিধি খসড়া আইনটি প্রণয়নের দাবি জানান।
উৎসঃ   নতুনবার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!