• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:৫৩ অপরাহ্ন |

জলঢাকায় দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

Nilphamari Press Confarence. Photo
সিসি নিউজ: নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী সহীদ হোসেন রুবেলের বিরুদ্ধে ভয়ভীতি প্রদর্শন, ব্যানার-পোস্টার অগ্নিসংযোগ ও হত্যার হুমকির অভিযোগ করেছেন জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আলহাজ্ব সৈয়দ আলী। রোববার দুপুরে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান দুপুরে সৈয়দ আলীর বড়ঘাট এলাকার নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলণে এসব অভিযোগ তোলেন। তবে সৈয়দ আলীর এই অভিযোগ অস্বীকার করে তার বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ সমর্র্থিত প্রার্থী শহিদ হোসেন রুবেল।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী জামায়াত নেতা সৈয়দ আলী বলেন, “গত ৪ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার রাতে আমার কর্মীরা জলঢাকা জিরো পয়েন্টে নির্বাচনী ব্যানার লাগাতে গেলে সহীদ হোসেনের রুবেলের ছোট ভাই সাদ্দাম হোসেন পাভেল আমার কর্মীকে মারধর করে ব্যানার কেড়ে নেয়। এসময় পুলিশকে খবর দেয়া হলে পুলিশের সামনে তারা আমার কর্মীকে মারধর করে। এর আগে একই দিন আওয়ামী লীগ প্রার্থী রুবেল ও তার ছোট ভাই পাভেল নির্বাচনী পথসভায় নির্বাচন আচরণবিধি লংঘন করে আমার বিরুদ্ধে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। আমি ও আমার ছেলে শরিফুল ইসলাম বাবুকে প্রকাশ্যে মাইকে হত্যার হুমকি দেন”।
এছাড়াও উপজেলা নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠ না হবার আশঙ্কা করে তিনি আরো বলেন,“ সরকারদলীয় প্রার্থী প্রভাব খাটিয়ে এ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করতে পারে। তাই এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান তিনি।
তবে অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সহীদ হোসেন রুবেল জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী আলহাজ্ব সৈয়দ আলীর বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেন, “ আমার কোন কর্মী অন্য কোন প্রার্থীর কর্মীকে মারধর বা লাঞ্চিত করেনি। বরং জামায়াত-শিবির সারা দেশে জঙ্গি তৎপরতা চালিয়ে আসছে। এসব ঘটনার ধারাবাহিকতায় জলঢাকায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নাশকতা করে নির্বাচন ভন্ডুল করতে পারে। তাই আমি প্রয়োজনী পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি আপনাদের মাধমে।”
এদিকে উপরোক্ত ঘটনাগুলো তাৎক্ষণিক রিটার্নিং অফিসার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, নির্বাচন অফিসার ও ভারপ্রাপ্ত থানার কর্মকর্তা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে জানানো হয়েছে বলে দাবি করেন এই দুই প্রার্থী।
এ বিষয়ে জলঢাকা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান মনির বলেন, “ জলঢাকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো রয়েছে। নির্বাচনী পরিবেশ যাতে সুষ্ঠ থাকে সে ব্যাপারে পুলিশ সতর্ক রয়েছে।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং অফিসার এসএএম রফিকুন্নবী জানান, এ বিষয়ে তার কাছে কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথম দফায় ১৯ ফেব্রুয়ারী জেলার ছয় উপজেলার মধ্যে জলঢাকা, ডিমলা ও সৈয়দপুর উপজেলায় ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। জলঢাকা উপজেলায় সহীদ হোসেন রুবেল (আ.লীগ), আলহাজ্ব সৈয়দ আলী (জামায়াত) ও গোলাম আজম এলিচ, ভাইস-চেয়ারম্যান পদে আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর (আ.লীগ) ও মুরাদ হোসেন (জামায়াত) এবং মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে কল্পনা রানী (আ.লীগ), রিভা আক্তার (জামায়াত) ও মাহফুজা সুলতানা (স্বতন্ত্র) প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ