• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৩৩ পূর্বাহ্ন |

বদরগঞ্জে ২৬ বছরের রেকর্ডপত্র সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ

Rangpur-1বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয়ের বিগত ২৬বছরের সংরক্ষিত থাকা বালাম বই, রেজিষ্ট্রারসহ প্রয়োজনীয় রেকর্ডপত্র রংপুর জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এগুলো সরিয়ে নেয়া হলে উপজেলায় জমি ক্রয় বিক্রয়ে সমস্যাসহ প্রয়োজনীয় রেকর্ডপত্রের অনুলিপি সংগ্রহে উপজেলার সাধারণ মানুষের ভোগান্তি ও হয়রানি বাড়বে। অপচয় হবে সময় ও অর্থের। এসব রেকর্ডপত্র সরিয়ে না নিতে কর্তৃপক্ষের নিকট দাবী জানান উপজেলার সাধারন মানুষ।
জানা গেছে, উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয়টি ১৯৩২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ওই কার্যালয়ের নিজস্ব এক একর ৮১শতক  জমি রয়েছে। বদরগঞ্জে প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয় ভবন নির্মাণকাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। গড়ে প্রতিমাসে ওই সাবরেজিষ্টার কার্যালয়টি থেকে ৯লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হয় বলে সাবরেজিষ্ট্রার জানিয়েছেন।
রবিবার উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার ফাতেমা খাতুনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গত জানুয়ারীতে একাধিকবার জেলা রেজিষ্ট্রার চিঠি দিয়ে ১৯৮৬-২০১২সাল পর্যন্ত উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে সংরক্ষিত থাকা প্রতিবছরের বালাম বই, রেজিষ্ট্রারসহ প্রয়োজনীয় রেকর্ডপত্র জেলায় পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। এগুলো বেঁধে রাখা হয়েছে। যে কোন মুহুর্তে পাঠিয়ে দেয়া হবে।
উল্লেখ্য উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয় থেকে ১৯৬৫-১৯৮৫ সালের ওই রেকর্ডপত্রগুলো গত বছর জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে সরিয়ে নেয়ার পর থেকে সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তির শিকার হয়।
বদরগঞ্জের কালুপাড়া এলাকার কৃষক নয়ামিয়া (৪২) অভিযোগ করে বলেন, ১৯৮২সালের রেকর্ডপত্র অনুযায়ী জমির মুল দলিলের অবিকল দলিল(নকল) নিতে উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে গেলে জানানো হয় ওই সালের রেকর্ড রেজিষ্ট্রার জেলা কার্যালয়ে জমা আছে। পরে জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে তিনদিন ঘুরে দেড় হাজার টাকার বিনিময়ে অফিসের এক দালালের মাধ্যমে দলিলের নকলটি তিনি হাতে পান। এটি নিতে সরকারি ফি সর্বোচ্চ ৩০০টাকা লাগার কথা বলে জানান তিনি।
বদরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র উত্তম কুমার সাহা বলেন, এক সময় উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয়টি ভাঙ্গা ছিল। এখন ভবন হচ্ছে। কাজেই কাগজপত্রের নিরাপত্তার অভাবের বিষয়টি অজুহাত মাত্র। এর পিছনে অন্যকোন উদ্দেশ্য থাকতে পারে। বদরগঞ্জ দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস বলেন, জমির ওই রেকর্ডপত্রগুলো সরিয়ে নেয়া হলে সাধারণ মানুষের চরম দুর্ভোগ হবে। উপজেলা সাবরেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে রেকর্ডপত্রের নিরাপত্তার কোন অভাব নেই।
রংপুর-২(বদরগঞ্জ-তারাগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ আহসানুল হক চৌধুরী বলেন, আমাদের রাজনীতি সাধারণ মানুষের কল্যাণে। জমির ওই রেকর্ডপত্রগুলো সরিয়ে নেয়া হলে সাধারণ মানুষের হয়রানি ও ভোগান্তি বাড়বে। এ ব্যাপারে জেলা রেজিষ্ট্রারের সাথে কথা বলেছি। এরপরেও সরিয়ে নেয়া হলে বিষয়টি কঠোরভাবে দেখা হবে।
রংপুর জেলা রেজিষ্ট্রার এমদাদুল হকের সাথে মোবাইল ফোনে রেকর্ডপত্রগুলো জেলায় সরিয়ে নেয়ার বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, আইনমন্ত্রনালয় থেকে চিঠি পেয়ে উপজেলার সাব রেজিস্ট্রারকে চিঠি দিয়েছি। এগুলো নিয়ে লেখালেখি করে লাভ হবে না। স্থানীয় এমপি সংসদে কথা বললে হয়তো কিছুটা লাভ হবে বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ