• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:১৪ অপরাহ্ন |

গোপন ভিডিও’র ব্ল্যাকমেইল করাতেই খুন

65841_1ঢাকা: রং নাম্বারে পরিচয়ের সূত্র ধরে গড়ে উঠে বন্ধুত্ব। পরে তা শারীরিক সম্পর্কে গড়ায়। কিন্তু সেই সম্পর্কে আসে তিক্ততা। গোপন ভিডিও ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল শুরু করেন সিকিউরেক্সের জেনারেল ম্যানেজার সরদার রফিকুজ্জামান ওরফে বাচ্চু। অতিষ্ঠ হয়ে তাঁকে খুন করেন মিষ্টি।

রোববার রাতে গ্রেপ্তারের পর গোয়েন্দাদের কাছে এভাবেই হত্যার দায় স্বীকার করেছেন ফারহানা ওরফে মিষ্টি। সোমবার ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হয়।

বেসরকারি সিকিউরিটি কোম্পানির কর্মকর্তা সরদার রফিকুজ্জামানের  হাত-পা বাধা ও জবাই করা লাশ গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর দক্ষিণ কাফরুলের ৪৫৯/১ নম্বর বাসার ৫ তলার একটি কক্ষে পাওয়া যায়। হত্যাকাণ্ডের ৪০ দিন পর রাজধানীর খিলগাঁওয়ের একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার হন ফাহারিনা ওরফে মিষ্টি। রোববার রাতে এডিসি মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম ও সিনিয়র এসি মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে মাটির মসজিদ এলাকার অভিযান চালায় গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল।

ডিএমপির সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গ্রেপ্তারের সময় মিষ্টির কাছ থেকে হত্যাকান্ডের সময় খোয়া যাওয়া দৈহিক মিলনের দৃশ্য সম্বলিত ল্যাপটপ, হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি ওড়না এবং একটি মোবাইল সেট পাওয়া গেছে।

ডিএমপির মুখপাত্র যুগ্ম কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, মিষ্টি এবং রফিকুজ্জামান বাচ্চু উভয়েই বিবাহিত। তাদের প্রত্যেকের একটি করে সন্তানও রয়েছে। বাচ্চুর সঙ্গে ৪/৫ বছর আগে রং নাম্বারে মিষ্টির পরিচয় হয়। পরে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে উঠে এবং এক পর্যায়ে শারিরীক সম্পর্কে গড়ায়। গত ৪/৫ বৎসর ধরে স্ত্রীর অনুপস্থিতিতে বাচ্চুর বাসায় প্রায়ই তারা শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। এক পর্যায়ে বাচ্চু তাঁর বন্ধুদের সাথেও দৈহিক মিলনে মিষ্টিকে বাধ্য করে। দৈহিক মিলনের এসব দৃশ্য বাচ্চু গোপনে ভিডিও ক্যামেরায় ধারণ করে।

পরে এসব ফুটেজ ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে মিষ্টিকে ব্ল্যাক মেইল করতো বাচ্চু। এছাড়াও বিভিন্ন সময় মিষ্টির পার্স থেকে টাকা-পয়সা ও স্বর্ণালঙ্কার ছিনিয়ে নিতো বাচ্চু। একদিন মিষ্টির হাতে পরা দেড় ভরি ওজনের স্বর্ণের ১ জোড়া বালাও নিয়ে নেয় সে। বিভিন্ন সময়ে রফিক মিষ্টির কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকাও ধার নেয়। এ ভাবে ব্ল্যাক মেইল করার ফলে অতিষ্ট হয়ে বাচ্চুকে খুন করার পরিকল্পনা করে মিষ্টি ।

গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে মিষ্টি এসব কথা জানিয়েছে। ডিএমপির মুখপাত্র আরো জানান, পরিকল্পনা করার পর মিষ্টি বাচ্চুকে ফোন করে। তাঁকে বনানী থেকে নিয়ে বাচ্চুর কাফরুলের বাসায় নিয়ে যায়। বাসায় যাওয়ার পর মিষ্টি বাচ্চুকে ভিন্ন উপায়ে দৈহিক মিলনের প্রস্তাব দেয়।

এ সময় মিষ্টি তাকে বলে, বাচ্চুর হাত-পা চেয়ারের সাথে বাধা থাকবে এবং এই হাত-পা বাধা অবস্থায় তারা মিলিত হবে। বাচ্চু রাজি হলে তার দুই হাত মিষ্টির ওড়না দিয়ে ও দুই পা গামছা দিয়ে চেয়ারের সাথে বেধে ফেলে। এরপর মিষ্টি বাচ্চুকে চোখ বন্ধ করতে বলে। বাচ্চু চোখ বন্ধ করলে মিষ্টি তার পার্সে রাখা একটি স্টিলের ছুরি দিয়ে বাচ্চুর ঘাড়ে ও বুকে এলোপাতারি কোপাতে থাকে।

এক সময় বাচ্চু মিষ্টির হাত ধরে ফেললে মিষ্টি তার হাতে কামড় দিয়ে হাত ছাড়িয়ে নেয়। পরে আবারও বাচ্চুকে এলোপাতারি কোপায়। বাচ্চু দ্রুত দুর্বল হয়ে গেলে তাকে জবাই করে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে মিষ্টি। পরে বাথরুমে হাত-পা ধুয়ে পরিস্কার হয়ে বাচ্চুর লাশটি ভেতরে রেখে বাসায় তালা মেরে বেরিয়ে যায় মিষ্টি। যাওয়ার সময় বাচ্চুর মোবাইল ফোন ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি রাস্তায় ফেলে দিয়ে শুধু ল্যাপটপটি নিয়ে খিলক্ষেতের বাসায় যায় এবং ল্যাপটপে থাকা গোপনে ধারণকৃত তার শারিরীক সম্পর্ক স্থাপনের দৃশ্য সম্বলিত ভিডিও ফুটেজ মুছে (ডিলিট) করে দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন  উপ-পুলিশ কমিশনার (পূর্ব) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন মাতুব্বর, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. নাজমুল আলম ও উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স) মো. মাসুদুর রহমান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ