• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৬:১১ অপরাহ্ন |

ডোমারে বিএনপি’র দলীয় প্রার্থী ঘোষনা নিয়ে উত্তেজনা

ECনীলফামারী প্রতিনিধি: উপজেলা নির্বাচনী তফসীল ঘোষনার আগেই জরুরীসভা ডেকে নিজের ছোট ভাইকে চেয়ারম্যান প্রার্থী ঘোষনা করায় তৃণমুল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা দেখা দিয়েছে  নীলফামারীর ডোমার উপজেলা বিএনপিতে। এদিকে ওই প্রার্থীকে প্রত্যাখান করে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে প্রার্থী নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে দলের অপর সম্ভব্য প্রার্থীরা। রবিবার রাতে ডোমার উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র মনছুর ইসলাম দানু জরুরী বৈঠক ডেকে তার আপন ছোট ভাই মোসাব্বের হোসেন মানুকে উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি’র দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী ঘোষনা করেন।
নেতাকর্মীরা জানান, উপজেলা বিএনপির সভাপতি মনছুরুল ইসলাম দানুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ৬৫ জন তৃর্ণমূল পর্যায়ের নেতা উপস্থিত ছিলেন। এসময় উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মোসাব্বের হোসেন মানুকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ঘোষণা করা হয়। সভায় একই পদে প্রার্থীতা চেয়ছিলেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা ফিরোজ প্রধান ও জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য ও ডোমার বামুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোমিনুর রহমান।
ডোমার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের  সমর্থন  প্রত্যাশী  ও ডোমার উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা ফিরোজ প্রধান বলেন, ‘আসন্ন উপজেলা  পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী ঘোষণায় গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অবলম্বন  করা হয়নি।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘উপজেলা বিএনপির  সভাপতি ডোমার পৌরসভার মেয়র মনছুরুল ইসলাম দানু রবিবার সন্ধ্যায় দলীয়  কার্যালয়ে পৌরসভা এবং পৌরসভার নয় ওয়ার্ড, ১০ ইউনিয়ন এবং উপজেলা এবং পৌর বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের  সভাপতি-সম্পাদকদের ডেকে তার ছোট ভাই উপজেলা বিএনপির সাকে সভাপতি ও বর্তমানে সদস্য মোসাব্বের হোসেন  মানুর পক্ষে জোড়করে  কন্ঠ ভোটে সমর্থন আদায় করেন। আমরা গোপন ব্যালটের  মাধ্যমে  সমর্থনের দাবি জানালেও  তিনি তা  পাশ  কাটিয়ে জান। এটা গনতান্ত্রিক  প্রক্রিয়ায় না হওয়ায়  আমি তা প্রত্যাখান  করে পুনরায় গোপন ব্যালটের মাধ্যমে প্রার্থী ঘোষনার দাবি জানাচ্ছি।’
দলের অপর সমর্থন প্রত্যাশী ও জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য মমিনুর রহমান বলেন,‘আগে থেকে কোন কিছু না বলে রবিবার সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে আমাদেরকে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে উপজেলা বিএনপির সভাপতি মনছুরুল ইসলাম দানু তাঁর ছোটভাই মোসাব্বের হোসেন মানুর পক্ষে সমর্থন চান। আমরা দাবি করেছিলাম তৃর্ণমুল পর্যায়ে আলাপ আলোচনা করে গোপন ভোটের মাধ্যমে প্রার্থী নির্বাচনের দাবি জানায়। সেখানে আমাদের দাবি উপেক্ষিত হয়েছে।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘পৌরসভার চেয়ে ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা বেশী। সেখানে একটি পৌরসভা থেকে কাউন্সিলর নেয়া হয়েছে ২১ জন। অপরদিকে ১০ ইউনিয়ন থেকে কাউন্সিলর নেয়া হয়েছে মাত্র ২১ জন।’ পৌরসভার ন্যায় সকল ওয়ার্ড, ইউনিয়ন বিএনপিসহ অঙ্গসংগঠনের কাউন্সিলরদের গোপন ব্যালটের মাধ্যমে প্রার্থী চুড়ান্ত করণের দাবি জানান তিনি।
একইভাবে ওই সভার সিদ্ধান্ত প্রত্যাখান করে ডোমার পৌর যুবদের সভাপতি মিজানুর রহমান টুলু বলেন,‘আমরা গণতান্ত্রিক পক্রিয়ায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে একজন প্রার্থীকে চুড়ান্ত করতে চাই।’ এজন্য সকল ওর্য়াড, ইউনিয়ন, পৌরসভা থেকে বিএনপিসহ অঙ্গসংগঠনের কাউন্সিলরের অংশগ্রহণ দাবি করেন। কেতকী বাড়ি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি খতিবর রহমান অভিযোগ করে বলেন, ‘আমরা ১০ ইউনিয়নের সভাপতি সম্পাদক গোপন ব্যালটে ভোট দিতে চেয়েছিলাম কিন্তু আমাদের সে  সুযোগ দেওয়া হয় নাই।’
এ ব্যাপারে উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মনছুরুল ইসলাম দানু বলেন,‘আমি ইউনিয়ন এবং পৌরসভার নেতৃবৃন্দের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেটি যদি ঠিক না হয় তাহলে আপনারা লেখেন।’
এদিকে দলের মনোনীত প্রার্থী মোসাব্বের হোসেন মানু বলেন, ‘আমরা সকলে একত্রিত হয়ে ভোটের প্রচারনা চালাবো। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমি জয়যক্ত হয়ে এলাকার উন্নয়নে সকলকে নিয়ে কাজ করবো।’
উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রথম পর্যায়ে ডিমালা ও জলঢাকা এবং সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ, দ্বিতীয় পর্যায়ে কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ এবং তৃতীয় পর্যায়ে নীলফামারী সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের তফসীল ঘোষনা করা হলেও ডোমার উপজেলা পরিষদের নির্বাচন চতুর্থ পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ