• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১০ পূর্বাহ্ন |

নির্বাচনী বৃত্তে বিএনপি, এবার জেলা পরিষদ নির্বাচন

BNP Flagসিসি নিউজ: বিএনপিকে এখন ব্যস্ত রাখার কৌশল হাতে নিয়েছে শাসক দল আওয়ামী লীগ। আপাতত সরকারবিরোধী আন্দোলন যাতে দেশে গড়ে উঠতে না পারে সে জন্য সুকৌশলে বিএনপিকে স্থানীয় নির্বাচনের মধ্যেই আটকে রাখতে চাচ্ছে দলটি।
বিএনপিও রীতিমতো সরকারের দেখানো পথেই হাটছে বলে দৃশ্যত মনে করা হচ্ছে। বিএনপি-জামায়াতের তৃণমূলের দিকে বেশি মনোযোগ দেয়ার পরিকল্পনা করেছে সরকার। সরকারের লক্ষ্য একটাই আর তা হচ্ছে বিরোধীরা যাতে সরকারের বিরুদ্ধে সহজেই রাজপথে না নামতে পারে।
সরকার মনে করছে, রাজপথে বিএনপির আন্দোলন থামিয়ে রাখতে হলে বিএনপিকে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ব্যস্ত রাখতে হবে। তাই গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পরপরই শুরু হয় উপজেলা নির্বাচনের ডামাডোল । ধাপে ধাপে ৮৭ উপজেলায়ই নির্বাচন দিতে শুরু করেছে সরকার। যার তারিখ ইতোমধ্যেই ঘোষণা করা হয়েছে। পাঁচ দফায় এ নির্বাচন হতে যাচ্ছে।
উপজেলা নির্বাচনের এ উৎসব আগামী এপ্রিল/মে মাসের আগে শেষ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এর পর শুরু হবে বর্াকাল ।এই সময়টাতে সাধারণত কোনো আন্দোলন জমে না বাংলাদেশে।
এই কৌশলের অংশ হিসেবেই আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকেরা উপজেলা নির্বাচনের আদলে আগামীতে ৬৪টি জেলা পরিষদেও নির্বাচন দেয়ার চিন্তা করছে। তবে কবে ঠিক জেলা পরিষদ নির্বাচন হবে তা জানা যায়নি।এ ব্যাপারে প্রস্তুতি নেয়ার জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে নির্বাচন কমিশনকে বলাও হয়েছে।
তবে নির্বাচন কমিশনের উপ সচিব মীর সারোয়ার মোরশেদ বলেছেন, জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে এখনই আলাপ আলোচনা কমিশনে হচ্ছে না। এ ধরণের কোনো চিঠি মন্ত্রণালয় থেকে আসলে তা নিয়ে আলোচনা হবে।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, মেয়াদ শেষ হওয়া স্থানীয় সরকারের সদস্যরা নির্বাচন সঞ্চালনা করবে। সেখানে কাজ করবে নির্বাচন কমিশনের সদস্যরাও।
আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট বুঝতে পেরেছে সংঘাতপূর্ণ রাজনীতি দিয়ে আর কিছু হবে না। কিছু করতে হলে নির্বাচনের মাধ্যমেই তা করতে হবে। সবকিছু বুঝতে পেরেই তারা এখন সংঘাত-সহিংসতা বাদ দিয়ে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।
তিনি বলেন, বিএনপি নির্বাচন বর্জন করার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসছে। তৃণমূল নেতাকর্মীদের হতাশা থেকে উদ্ধার করতেই তারা এটা করছে।
দলটির আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ বলেন, আমাদের প্রধান চ্যালেঞ্জ ছিল জাতীয় নির্বাচন করার। তাতে আমরা সফল হয়েছি। নির্বাচনে অংশ নেয়া ছাড়া বিএনপির কোনো উপায় নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএনপি উপজেলা নির্বাচনে আসছে, ভবিষ্যতেও অন্য যেকোনো নির্বাচনেও অংশ নেবে।
উল্লেখ্য, প্রথম দফার উপজেলা নির্বাচন হবে ১৯ ফেব্রুয়ারি। এ দফায় ৯৮ উপজেলায় ভোট হবে। ২৭ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় দফার নির্বাচন। এ দফায় ভোট হবে ১১৭ উপজেলায়। তৃতীয় দফায় ৮৩ উপজেলায় ১৫ মার্চ ভোট হবে।
উৎসঃ   ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ