• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩৮ পূর্বাহ্ন |

গুদামেই শেষ সরকারের ২৫ কোটি টাকা!

oilনিউজ ডেস্ক: নষ্ট হয়ে যাচ্ছে সরকারের কেনা ২০ লাখ লিটারেরও বেশি সয়াবিন তেল। আপৎকালীন বাজারে সরবরাহের জন্য প্রায় ২৫ কোটি টাকায় এই তেল কিনেছিল টিসিবি। কিন্তু সয়াবিনের দর কমলেও টিসিবির তেলের দর সে তুলনায় কমানো হয়নি। তাই বছরখানেক ধরে টিসিবির গুদামে পড়ে থাকা এই বিপুল পরিমাণ তেল পচনের পথ ধরেছে।

দুই দফা দাম কমিয়ে আর বারবার সময় দিয়েও ডিলারদের গুদামে আনতে পারছে না টিসিবি। তাঁরা ১০০ টাকার কমে প্রতি লিটার তেল কিনতে চান। ডিলারদের দাবি মানলে সরকারের গচ্চা যাবে। আর না মানলে গুদামে পঁচে যাবে এই বিপুল পরিমাণ তেল।

এর মধ্যে চলতি মাসেই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে খাওয়ার অযোগ্য হতে যাচ্ছে দেড় লাখ লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল। পরের দুই মাসের মধ্যে মেয়াদ ফুরাবে আরো সোয়া লাখ লিটার তেলের। মজুদ বাকি প্রায় ১৭ লাখ ৬৩ হাজার লিটার সয়াবিন তেলের মেয়াদ শেষ হবে জুলাই মাসে।

জানা যায়, ১২২ টাকা দরে ওই সয়াবিন তেল কিনেছিল টিসিবি। প্রথম দিকে ১১৭ টাকা লিটার দরে তেল বিক্রির উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু ডিলাররা আগ্রহী হননি। গত ৮ জানুয়ারি দর কমিয়ে ১০৮ টাকা করা হয়। তাতেও সাড়া মেলেনি। এ অবস্থায় মেয়াদোত্তীর্ণ হতে যাওয়া তেলগুলো জরুরিভিত্তিতে বিক্রির জন্য দর আরো দুই টাকা কমাতে চায় টিসিবি। কিন্তু ডিলাররা বলছেন, টিসিবির তেলের লিটার ১০০ টাকার কমে নির্ধারণ না করা হলে তাঁরা কেউ নেবেন না। বিপুল পরিমাণ এই তেল নিয়ে তাই সংকটে পড়েছে টিসিবি।

টিসিবির মুখপাত্র হুমায়ুন কবির জানান, প্রায় এক বছর আগে এস আলম গ্রুপের কাছ থেকে ওই তেল কেনা হয়েছিল ১২২ টাকা দরে। তখন ১১৭ টাকা লিটার দরে তা বিক্রির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বাজারে তেলের দাম কমতে থাকায় ওই দরে টিসিবির ডিলাররা তা নেননি। পরে ১০৮ টাকা নির্ধারণ করে সরবরাহের উদ্যোগ নেওয়া হয়। ডিলাররা তাতেও সাড়া দিচ্ছেন না। ফলে মেয়াদোত্তীর্ণ হতে যাওয়া তেল দ্রুত বিক্রির জন্য লিটারে আরো দুই টাকা কমিয়ে দাম নির্ধারণের প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য গত সপ্তাহে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু মন্ত্রণালয় থেকে রোববার পর্যন্ত কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

টিসিবির ডিলার সমিতির সভাপতি জুয়েল আহমেদ জানান, বাজারে খোলা সয়াবিনের দর ৯৪-৯৫ টাকা। সেখানে টিসিবির তেল কেউই ১০৮ টাকায় কিনবে না। সে কারণেই সমিতির পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হলেও ডিলাররা টিসিবির তেল উত্তোলন করছেন না। তিনি বলেন, প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিনের দর ১০০ টাকার কম নির্ধারণ করা হলেই কেবল টিসিবির তেল বিক্রি করা সম্ভব। কারণ লিটারে ৮-১০ টাকা কম না পেলে মানুষ কেন টিসিবির ডিলার ও ট্রাক খুঁজে তেল কিনতে আসবে?

টিসিবি বলেছে, বিভিন্ন গুদামে এস আলম ব্র্যান্ডের পেট বোতলে তিন লাখ ৪৫ হাজার ১৯ লিটার সয়াবিন তেল মজুদ আছে। এর মধ্যে ফেব্রুয়ারি মাসে এক লাখ ৪৯ হাজার ৯৯২ লিটার, মার্চ মাসে ৯৭ হাজার ২৩০ লিটার ও এপ্রিলে ২৯ হাজার ১০০ লিটার সয়াবিন তেল মেয়াদোত্তীর্ণ হবে। এর আগেই ওই তেল বিক্রি করা না গেলে টিসিবির অনেক টাকার ক্ষতি হবে। তাই এপ্রিলের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ হতে যাওয়া দুই লাখ ৭৬ হাজার ৩২২ লিটার সয়াবিনের ভোক্তা মূল্য কমিয়ে বিক্রি করা জরুরি হয়ে পড়েছে। ভোক্তা মূল্য বর্তমানে প্রতি লিটার ১০৮ টাকা নির্ধারিত থাকলেও বাজারে তেলের দাম কম থাকায় ডিলাররা টিসিবির তেল উত্তোলনে আগ্রহী হচ্ছেন না। আর বিশেষ বরাদ্দে অন্যান্য পণ্যের সঙ্গে তেলের বরাদ্দ দেওয়ায় ডিলারদের তেমন সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না।

সূত্রমতে, সবমিলিয়ে সরকারের ২৪ কোটি ৮৭ লাখ সাড়ে ৪২ হাজার টাকা দামের ২০ লাখ ৩৮ হাজার ৮৭৪ টাকার সয়াবিন তেল মেয়াদোত্তীর্ণ হতে চলেছে। যার মধ্যে দুই লাখ ৭৬ হাজার ৩২২ লিটার সয়াবিন তেল জরুরি ভিত্তিতে বিক্রি করার জন্য দাম কমিয়ে শুধু তেলের একটি বিশেষ বরাদ্দ দেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে। এছাড়া, প্লাস্টিক ড্রামজাত অবস্থায় টিসিবির গুদামে থাকা ১৭ লাখ ৬২ হাজার ৫৫২ লিটার খোলা সয়াবিন তেলের মজুদ নিয়েও চিন্তিত সংস্থাটি। বিপুল পরিমাণ এই তেল মেয়াদোত্তীর্ণ হবে আগামী জুলাই মাসে। এসব খোলা সয়াবিনের লিটারের মূল্য ৯৭ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করে টিসিবি। এর সঙ্গে খালি প্লাস্টিক ড্রামের বিক্রয় মূল্য ধরা হয় চার টাকা ৫০ পয়সা। গত ১৯ ডিসেম্বর থেকে এ দরে তেল উত্তোলনের জন্য টিসিবির ডিলারদের বলা হলেও সংস্থাটির তিন হাজার দুইজন ডিলারের মধ্যে মাত্র ৪৮৬ জন অল্প পরিমাণ খোলা সয়াবিন উত্তোলন করেছে। এ অবস্থায় জুলাই মাসের মধ্যে বিক্রি শেষ করতে খোলা এসব সয়াবিন তেলের দরও কমানোর প্রস্তাব করেছে টিসিবি।

এ বিষয়ে টিসিবির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সারোয়ার জাহান তালুকদারের জানান, ‘চলতি ফেব্রুয়ারিতে প্রায় দেড় লাখ লিটার বোতলজাত সয়াবিন মেয়াদোত্তীর্ণ হবে। মার্চ ও এপ্রিল মাসে আরো সোয়া লাখ লিটারের মেয়াদ শেষ হবে। আমরা তার আগেই এসব তেল বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছি। এরই অংশ হিসেবে দাম কমানোর প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।’

বাণিজ্য সচিব মাহবুব আহমেদ বলেন, ‘টিসিবি এর আগে দর কমানোর প্রস্তাব করেছিল। আমি তখন তা অনুমোদন করেছি। আবার কবে দর কমানোর প্রস্তাব করেছে, তা আমার জানা নেই।’ তিনি বলেন, ফেব্রুয়ারিতে যে তেলের মেয়াদোত্তীর্ণ হবে, তা অন্তত ছয় মাস আগেই বিক্রির উদ্যোগ নেওয়া উচিত ছিল টিসিবির। আর মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার আগে কোনো পণ্য বিক্রি জরুরি হলে তার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নেওয়ার দরকার নেই টিসিবির। অনুমোদন চাওয়ার জন্য টিসিবি কেন শেষ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করছে তা বোধগম্য নয়।
সূত্র: লোকসমাজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ