• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১৯ অপরাহ্ন |

গুপ্তধনের পিছনে ছিল রাজনীতি!

sonaআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের উত্তর প্রদেশের উন্নাওয়ে গুপ্তধনের খোঁজের পিছনে ছিল রাজনীতি। সাধু শোভন সরকার নন, দেশকে সোনা উদ্ধারের ‘স্বপ্ন’ দেখিয়েছিলেন এক মন্ত্রী।

উত্তর প্রদেশের ১৯ শতকের কেল্লায় হাজার টন সোনার খোঁজে তল্লাশি চালানোর চার মাস অতিক্রান্ত হওয়ার পর এমনই তথ্য পাওয়া যাচ্ছে ভারতের গণমাধ্যমে।

একটি সংবাদসংস্থার দাবি, কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী চরণ দাস মহন্তই প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কেন্দ্রীয় সরকার এবং কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বকে সোনার উদ্ধারের জন্য খনন কাজ শুরু করতে রাজি করান। কুসংস্কারগ্রস্ত চরণ দাসই যে সরকারকে গুপ্তধনের খোঁজে নামতে মদত জোগায়, সে কথা আরটিআই মারফত জানা গিয়েছে।

চরণ দাস ২০১৩ সালের ৮ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীকে একটি চিঠি লেখেন। এতে মনমোহন সিংয়ের ‘জরুরি হস্তক্ষেপের’ আবেদন জানিয়ে তিনি বলেছিলেন, উন্নাওয়ে ‘সোনা উদ্ধার হলে ভারতীয় অর্থনীতির চিত্রটাই পাল্টে’ যাবে। প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখার আগে কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী, অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম এবং রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর রঘুরাম রাজনকেও চিঠি লিখেছিলেন তিনি।

কেন্দ্রীয় কৃষি প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য ছিল, যদি উন্নাওয়ে সোনার খোঁজ মেলে তবে এক ঢিলে বহু পাখি মারা যাবে। নরেন্দ্র মোদীর মুখের ভাত কেড়ে নেওয়া যাবে, মুদ্রাস্ফীতির হার কমবে, সরকারি কোষাগার মজবুত হবে। তাঁর এমন শক্তিশালী আবেদনে না বলতে পারেননি মনমোহন। চিঠিটি পাঠিয়ে দেন কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রকের কাছে।

খনন কাজ শুরুর জন্য চরণ দাস মহন্তের ভূমিকা সবসময় পর্দার আড়ালে ছিল। এবার তাঁর ভূমিকার কথা জানা গেল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ