• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন |

মুখ খুললেন সেই দুই সার্জেন্ট

TenTruckArms-1সিসি ডেস্ক: হেলালউদ্দীন ভূঁইয়া ও  আলাউদ্দিন। সাহসী দুই পুলিশ কর্মকর্তা। তাঁদের সাহসিকতার ঘটনা স্থান পেয়েছে নতুন সার্জেন্টদের পাঠ্যসূচিতে। কিন্তু তাঁরা এখন আর সেই ১০ ট্রাক অস্ত্রের চালান আটকের ঘটনা মনে করতে চান না। পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জীবন তছনছ হয়েছে তাঁদের।

এই দুই সার্জেন্টই জীবনবাজি রেখে ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল রাতে চট্টগ্রামে আটকে দিয়েছিলেন দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অস্ত্রের চোরাচালান। পেশাগত দায়িত্ব পালনে সাহস ও সততার জন্য তাঁদের পুরস্কৃত না করে উল্টো সাহসী এই দুই পুলিশ কর্মকর্তার উপর চালানো হয় নির্মম নির্যাতন।

চাকরি হারাতে হয়েছে। মিথ্যা অস্ত্র মামলার আসামি হয়ে কারাগারের কাটাতে হয়েছে দীর্ঘ ২৭ মাস। এর আগে এক বছর পালিয়ে বেড়িয়েছেন ফেরার হয়ে। মামলা চালাতে গিয়ে ভিটেবাড়ি বিক্রি করতে হয়েছে। মা-বাবা, স্ত্রী-সন্তানসহ পরিবারের সদস্যদের কাটাতে হয়েছে মানবেতর জীবন।

দীর্ঘ ছয় বছর পর আদালতের নির্দেশে চাকরি ফেরত পেয়েছেন সেই দুই সার্জেন্ট হেলাল এবং আলাউদ্দিন। আলাউদ্দিন নিয়মিত পদন্নোতি পেয়ে পরিদর্শক হয়েছেন। বর্তমানে তিনি এসপিবিএন-এ রয়েছেন। আর সার্জেন্ট হেলালের পদন্নোতি পর্যন্ত হয়নি। বর্তমান কর্মস্থল চট্টগ্রাম সদরঘাট ডাম্পিং স্টেশন ও ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম। নির্যাতন চালিয়ে তাঁর পা ভেঙে দেয়া হয়েছিল। টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে না পারায় ভাঙা পা জোড়া লাগেনি। হেলাল এখন আর সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারেন না। ব্যথায় কুঁকড়ে যান, কখনো চিৎকার করে কান্না করেন।

হেলাল ও আলাউদ্দীন সেই দুঃসহ নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে।  জানালেন, জীবনবাজি রেখে ১০ ট্রাক অস্ত্রের চালান মাত্র দুজনেই আটকে দিয়ে সাহসিকতার পরিচয় দিলেও তাঁরা আর তা মনে করতে চান না। দুঃখ আর কষ্ট নিয়ে এই দুই সার্জেন্ট তাদের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার হেলালউদ্দীন ও আলাউদ্দিনকে নিয়ে প্রতিবেদন ছেপেছে  বাংলাদেশ প্রতিদিন। পত্রিকাটির অনুসন্ধানে উঠে এসেছে দুই সার্জেন্টের দুঃসহ সেই স্মৃতির কথা।

যেভাবে নেমে আসে নির্যাতনের খড়গ:
অস্ত্র আটকের প্রায় এক বছর পর এই দুই সার্জেন্টকে ঢাকায় পোস্টিং দেওয়া হয়। ২০০৫ সালের ১৯ আগস্ট তাঁদের ডেকে পাঠানো হয় ডিবি ও ট্রাফিক অফিসে। হেলালউদ্দীন তখন ঢাকার বাংলামোটরে ডিউটিতে ছিলেন আর মহাখালীতে ছিলেন আলাউদ্দিন। ডেকে তাঁদের  ঢাকা র্যাব অফিসে নেওয়ার পর সেখানে একজন র্যাব কর্মকর্তা নিজেকে কর্নেল গুলজার পরিচয় দেন। তাঁর টেবিলে থাকা দুটি একে-৪৭ রাইফেল দেখিয়ে বললেন, ‘এ অস্ত্র দশ ট্রাক অস্ত্রের চালান থেকে খোয়া যাওয়া অস্ত্রের দুটি।’ এ অস্ত্র সম্পর্কে আপনাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। হেলালকে নেওয়ার আগে সার্জেন্ট আলাউদ্দিনকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পরদিন (২০ আগস্ট) তাদের দুজনকে চট্টগ্রাম র্যাব-৭ এর কার্যালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ভোর আনুমানিক ৬টায় র্যাব কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার পর তৎকালীন র্যাবের এক কর্মকর্তা জিজ্ঞেস করেন হেলাল কার নাম। নাম বলতেই তাকে ধরে বেধড়ক পেটানো শুরু হয়। একপর্যায়ে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে তাঁর বাম পা ভেঙে দেওয়া হয়। পা ভাঙার পর হেলাল তাঁকে কেন মারা হচ্ছে জানতে চাইলে র্যাব কর্মকর্তা বলেন, ‘তোর কারণে দেশে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।’

আগের দিন ১৯ আগস্ট সকাল ৭টায় উদ্ধার করা নোয়াখালীর সুধারাম থানার অস্ত্র মামলার আসামি হিসেবে তাঁদের দুজনকে নোয়াখালী কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। অথচ তাঁদের চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত হয় ওই দিন বিকালে। দীর্ঘ দেড় মাস বিনা চিকিৎসায় নোয়াখালী কারাগারে ভাঙা পা নিয়ে দিন কাটান সার্জেন্ট হেলালউদ্দীন। এর মধ্যে তাঁদের খুনের দুর্ধর্ষ আসামির মতো ডাণ্ডাবেড়ি পরিয়ে চট্টগ্রাম আদালতে সাক্ষী দিতে নেওয়া হয়। চট্টগ্রাম কারাগারে বিদেশি বন্দীদের সঙ্গে ২৫ নং ওয়ার্ডে রাখা হয়। যেখানে বেশ কয়েকজন ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী গ্রুপ উলফার সদস্য বন্দী ছিল। যারা তাদের পাশেই থাকত।

আদালতে সাক্ষী দিতে আনার পর একটি কাগজ দেওয়া হয় হেলালউদ্দীনকে। সেখানে যা লেখা ছিল আদালতে তা বলার জন্য বলা হয়। পরে ২০০৭ সালের ৫ নভেম্বর উচ্চ আদালত থেকে জামিনের আদেশ দিলে ১৩ নভেম্বর নোয়াখালী কারাগার থেকে জামিনে বের হন তারা। তারা নিয়মিত অস্ত্র মামলায় হাজিরা দিচ্ছিলেন। এর মধ্যে ২০০৯ সালের ২৪ জুন হেলালকে ডাকা হয় চট্টগ্রাম কারাগারে। কারাগারে টিআই প্যারেডের (শনাক্তকরণ মহড়া) মাধ্যমে মেজর লিয়াকতকে চিহ্নিত করেন হেলাল। তিনিই ঘটনার রাতে সিইউএফএল ঘাটে নিজেকে উলফা সদস্য আবুল হোসেন বলে পরিচয় দিয়েছিলেন। এতে ঘটল আরেক বিপত্তি। শনাক্তকরণ মহড়ার পরপরই হেলালের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়। আবারও কারাগারে যাওয়ার ভয়ে তিনি পালিয়ে যান। ফেরারি আসামির মতো এক বছর পরিবার-পরিজন ছেড়ে তাকে পালিয়ে থাকতে হয়।

মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা পুনরায় তদন্ত শুরু হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মনিরুজ্জামান চৌধুরী তার তদন্ত রিপোর্টে উল্লেখ করেন, ১০ ট্রাক অস্ত্রের মধ্যে কোনো একে-৪৭ রাইফেল ছিল না। সার্জেন্ট হেলাল ও সার্জেন্ট আলাউদ্দিনকে একে-৪৭ রাইফেল রাখার দায়ে অস্ত্র মামলায় কারাগারে পাঠানো হয়েছে। সিআইডির এ রিপোর্টের পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ২৩তম সভায় দুই সার্জেন্টের নাম অস্ত্র মামলা থেকে প্রত্যাহার করা হয়। ২০১১ সালের আগস্টে দুজনই আবার চাকরিতে যোগদান করেন।

২০০৫ সালের ১৯ আগস্ট থেকে ২০১১ সালের ৮ আগস্ট পর্যন্ত এই দুই সার্জেন্টের জীবনে ছিল চরম ক্রান্তিকাল। কঠিন এক দুঃসময়ের মধ্যে তাদের পরিবারের সদস্যরা কালযাপন করেছেন এ ছয়টি বছর। একে-৪৭ রাইফেল হাতে দেওয়া তাদের ছবি যখন পত্রিকায় প্রকাশ পায়, তখন তাদের সন্তানরা স্কুলে যেতে পারতেন না। কোনো অপরাধ না করেও সামাজিকভাবে হতে হয়েছে হেয়প্রতিপন্ন।

চাকরি ফিরে পেলেও কে ফিরিয়ে দেবে তাদের হারানো সময়? এমন প্রশ্ন হেলালউদ্দীন ও আলাউদ্দিনের।

ইন্সপেক্টর আলাউদ্দিন বলেন, সব মানুষের কাজের একটি পিক টাইম থাকে। আমি তো জীবনের সেই সময় হারিয়ে ফেলেছি। এখন আমি বৃদ্ধ। ছয় বছর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার শেষে নতুন জীবন পেয়েছি বটে, তবে সে জীবনের কোনো স্বাদ নেই। আমার পুরো জীবন এলোমেলো হয়ে গেছে। সামাজিক জীবনে আমি আর আমার পরিবার ঘৃণা ছাড়া আর কিছুই পাইনি। পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জীবন হয়েছে তছনছ।

সার্জেন্ট হেলাল বলেন, জীবনের মায়া ত্যাগ করে সেদিন অস্ত্র আটক করেছিলাম। আমাদের হুমকি-ধমকি দেওয়া হয়। আমরা কিছুটা আঁচ করতে পেরেছিলাম যে, এতে বড় ধরনের কেউ জড়িত রয়েছে। এর পরেও আমরা পিছপা হইনি। আমাদের সেই কাজ আর মনে করতে ইচ্ছা হয় না। এ অস্ত্র উদ্ধার করেই জীবনটা ওলট-পালট হয়ে যায়। আমাদের কাল হয়ে দাঁড়ায়।

আইপোর্ট নিউজ থেকে নেয়া


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ