• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৪২ পূর্বাহ্ন |

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার দুই বছর

Sagar-runiসিসি ডেস্ক: বহুল আলোচিত সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যাকাণ্ডের দুই বছর পূর্তি আজ। কিন্তু এই দুই বছরেও হত্যারহস্যের কোন কুলকিনারা করতে পারেনি তদন্তকারীরা। তদন্তে কোনো সুরাহা না হওয়ায় প্রকৃত অপরাধীরাও ধরা পড়েনি। ক্ষুব্ধ হতাশ নিহত দম্পতির পরিবার এবং সাগর-রুনির সহকর্মীরা, গণমাধ্যমের কর্মীরা।

প্রথমে এ মামলা তদন্ত করেছিল পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)। তারা ব্যর্থতার দায় স্বীকার করে হাইকোর্টে গিয়ে তদন্ত থেকে অব্যাহতি চায়। এরপর আদালতের নির্দেশে তদন্তের দায়িত্ব নেয় র‌্যাব। র‌্যাব আনুষ্ঠানিকভাবে ব্যর্থতা স্বীকার না করলেও তদন্ত কার্যত থেমে আছে।

এ মামলার তদন্ত শুরু করেছিল ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ৬২ দিনের মাথায় (২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল) হাইকোর্টে ব্যর্থতা স্বীকার করে ডিবি। এরপর আদালতের নির্দেশে তদন্তভার নেয় র‌্যাব। তারা ভিসেরা পরীক্ষার জন্য সাগর-রুনির লাশ কবর থেকে তোলে। ঘটনার একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী নিহত দম্পতির শিশুপুত্র মাহীর সরওয়ারকে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করে। সাগরের কর্মস্থল মাছরাঙা টেলিভিশন আর রুনির কর্মস্থল এটিএন বাংলার কার্যালয়ে গিয়েও খোঁজাখুঁজি হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে শতাধিক ব্যক্তিকে।

২০১২ সালের মাঝামাঝি থেকে র‌্যাব বলা শুরু করে, নিরাপত্তাকর্মী এনামুল গ্রেপ্তার হলেই সব রহস্য উদ্ঘাটন করা সম্ভব হবে। এনামুলকে ধরতে ১০ লাখ টাকার পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। গত বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি এনামুল গ্রেপ্তার হলেও তাঁর কাছ থেকে কোনো তথ্যই মেলেনি বলে র‌্যাবের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। বস্তুত, এর পর থেকেই র‌্যাবের আর কোনো দৃশ্যমান তৎপরতা নেই।

এ মামলায় এখন পর্যন্ত মোট আটজন সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁরা হলেন: রফিকুল ইসলাম, বকুল মিয়া, মো. সাইদ, মিন্টু, কামরুল হাসান ওরফে অরুণ, সাগর-রুনির ভাড়া বাসার নিরাপত্তা প্রহরী এনামুল, পলাশ রুদ্র পাল এবং নিহত দম্পতির বন্ধু তানভীর রহমান। এঁদের মধ্যে প্রথম পাঁচজনই গত বছরের আগস্টে মহাখালীর বক্ষব্যাধি হাসপাতালের চিকিৎসক নারায়ণ চন্দ্র হত্যার ঘটনায় র‌্যাব ও গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হাতে গ্রেপ্তার হন।

কর্মকর্তারা জানান, এই আটজনের কারও বিরুদ্ধে সাগর-রুনি হত্যায় জড়িত থাকার ন্যূনতম প্রমাণও মেলেনি। কেউ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেননি। এঁদের পাঁচজন নিতাই হত্যা মামলার আসামি হলেও পলাশ ও তানভীর ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর থেকে কারাভোগ করছেন সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ ছাড়াই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ