• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন |

হিযবুত তাহ্‌রীরের মোহময় হাতছানি

Hisbotসিসি ডেস্ক: ইরাক ও আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের পৌরোহিত্যে ইউরোপীয় দেশগুলোর (মূলত পশ্চিম ইউরোপ) সামরিক জোট ন্যাটোর আগ্রাসন চলছে। আবার তারাই লিবিয়া ও সিরিয়ায় তথাকথিত বিদ্রোহী বাহিনীগুলোকে অস্ত্র ও অর্থের জোগান দিয়ে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করে রেখেছে। ইরানও তাদের হামলার লক্ষ্যবস্তু। ন্যাটোওয়ালাদের যুক্তি_এসব দেশে গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা নেই। দেশগুলোর ‘অগণতান্ত্রিক’ শাসকরা মারণাস্ত্র তৈরি করে বিশ্বের শান্তি নষ্ট করছে, বিশ্বকে হুমকির মধ্যে ফেলে দিয়েছে। তাই গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য, বিশ্বের শান্তি নিশ্চিত করার জন্য সেসব দেশে ‘গণতান্ত্রিক’ হামলা চালানো জরুরি। কিন্তু ‘ধনবাদী একক বিশ্বব্যবস্থা’র এই মোড়লদের এ বক্তব্যে বিশ্বের শান্তিকামী মানুষের সমর্থন নেই, বরং তারা এটি প্রত্যাখ্যান করেছে_আফগানিস্তান ও ইরাকে হামলার আগে-পরে বিশ্বব্যাপী বিক্ষোভ প্রতিবাদ তার প্রমাণ। আর অর্থনীতিবিদরা বলছেন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের নামে যে সামরিক তৎপরতা চলছে, তার উদ্দেশ্য ভেঙে পড়া পশ্চিমা অর্থনীতিতে গতিসঞ্চার। সামরিক হামলা বা অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করা হচ্ছে ওই সব দেশের তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ এবং সেখানকার বাজার দখলের জন্য। জাতীয় স্বার্থসচেতন, প্রগতিকামী মানুষের বিচার-বিশ্লেষণ এ রকম হলেও কিছু ইসলাম-পছন্দ ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর মূল্যায়ন এবং কর্মকাণ্ড এর উল্টো। তারা পশ্চিমাদের এ আগ্রাসনের আর্থ-রাজনৈতিক কারণ অনুসন্ধান না করে এটিকে কেবলই ইসলাম ও মুসলমানের ওপর আক্রমণ হিসেবে দেখে। হিযুবত তাহ্রীর নামের উগ্র, জঙ্গিবাদী সংগঠনটির নেতারাও এ আগ্রাসনকে ইসলাম ধর্মের ওপর আক্রমণ হিসেবেই প্রচার করে থাকেন। তাঁদের প্রচারে কিছু তরুণ-তরুণী বিভ্রান্তও হয়, কেউ কেউ সংগঠনটিতে যোগও দেয়।
হিযবুত তাহ্রীর পশ্চিমা আগ্রাসন প্রতিরোধের কথা বলে ‘ইসলামী রাষ্ট্র’ কায়েমের আহ্বান জানায়। কিন্তু কার্যত তারা পশ্চিমাদের ‘সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের’ রসদ জোগায়। দলটির বিরুদ্ধে দেশে দেশে জনস্বার্থবিরোধী জঙ্গিবাদ তৈরির অভিযোগ রয়েছে। বিভিন্ন জঙ্গিবাদী কর্মকাণ্ডে তাদের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণও পাওয়া গেছে। এই জঙ্গিবাদ দমনের নামেই ইরাক, আফগানিস্তানে এবং আরো কিছু দেশে পশ্চিমারা আক্রমণ চালায়। বিশেষজ্ঞরা বলে থাকেন, হিযবুত তাহ্রীর মূলত পশ্চিমাদের হামলার লক্ষ্যবস্তু হিসেবে মুসলিম দেশগুলোতে ক্ষেত্র তৈরি করে, যা আসলে পশ্চিমাদেরই নীলনকশার অংশ।
হিযবুত তাহ্রীরের তথাকথিত আগ্রাসনবিরোধী প্রচার-প্রচারণায় বিভ্রান্ত হচ্ছে মূলত দেশের উচ্চ মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত পরিবারের বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া সদস্যরা। তাদের অনেকে জেহাদি জোশে দলটিতে যোগও দেয়। নিষিদ্ধ এ দল তাদের টার্গেট করেই এগোয়। তাদের পাতা ফাঁদে পা দিয়ে তরুণ-তরুণীরা হারিয়ে যাচ্ছে সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদ নামের গহ্বরের অতলে।
বাংলাদেশে হিযবুত তাহ্রীর : বাংলাদেশে সংগঠনটির অন্যতম সংগঠক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক গোলাম মওলা। নব্বই-পরবর্তী সময়ে তিনি যুক্তরাজ্যে যান কমনওয়লেথ বৃত্তি নিয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য। সেখানে তাঁর পরিচয় হয় হিযবুত তাহ্রীর নেতাদের সঙ্গে। ‘মুসলিম গেরিলা’দের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে সন্দেহে ব্রিটিশ পুলিশ সে সময় তাঁকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। দেশে ফিরে তিনি হিযবুত তাহ্রীরের এ দেশীয় শাখার যাত্রা শুরু করেন। অভিযোগ রয়েছে, দলটির জন্য যুক্তরাজ্য থেকে অর্থের জোগান আসতে থাকে। দলটি প্রথম দৃশ্যমান মাত্রায় মাঠে নামে ২০০৩ সালে ইরাকে যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর হামলার সময়।
জানা গেছে, হিযবুত তাহ্রীরের প্রথম অফিস ছিল রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডে কাঁটাবন মসজিদের উল্টো দিকে। এরপর পল্টনে আরেকটি অফিস নেয় দলটি। সে সময় গোলাম মওলা অনেকটাই আড়ালে চলে যান। সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী ও মুখপাত্র হিসেবে সামনে আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (আইবিএ) সহযোগী অধ্যাপক মহিউদ্দীন আহমেদ। কাজী মোরশেদুল হক ও অধ্যাপক শেখ তৌফিকও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পান।
সাম্যবাদী বিপ্লব থেকে হিযবুত তাহ্রীর : হিযবুত তাহ্রীর পশ্চিমাদের ইরাক আক্রমণের সূত্র ধরে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালায়। সে সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত ১৫ জন বামপন্থী তরুণ-তরুণী দলটিতে যোগ দেয়। ২০০৪ সালের মাঝামাঝি সময়ের ঘটনা এটি। তারা হিযবুত তাহ্রীরে যোগ দেওয়ায় দেশের সবচেয়ে প্রভাবশালী পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে হিযবুত তাহ্রীর একটা ভিত্তি পায়।
জানা গেছে, পরিসংখ্যান বিভাগের মনিরুল ইসলাম, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের মাহফুজুর রহমান এবং ইংরেজি ও ইতিহাস বিভাগের দুজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সংগঠন গড়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। এর আগে মনিরুল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সক্রিয় বামপন্থী বিপ্লবী সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন প্রগতির পরিব্রাজক দলের (প্রপদ) কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন। প্রপদ থেকে ইস্তফা দিয়ে তারা হিযবুত তাহ্রীরে যোগ দেন। তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশে হল ও বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলে সংগঠন গড়ে তোলেন। এর পর থেকে বাড়তে থাকে হিযবুত তাহ্রীরের প্রভাব।
অভিযোগ রয়েছে, হিযবুত তাহ্রীরের পক্ষে ব্রেনওয়াশ করার জন্য দলচ্যুত এক কমিউনিস্ট তাত্তি্বক নেতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তিনি হিযবুত তাহ্রীরের বিভিন্ন পাঠচক্রে বক্তৃতা দিয়ে থাকেন। এনজিওর সঙ্গে যুক্ত এই সাবেক বাম নেতা পশ্চিমা আগ্রাসন ও ইসলাম বিষয়ে সংগঠনের কর্মীদের ব্যাখ্যা দেন। বামপন্থীদের আনুকূল্য পায়নি দলটি : দেশের প্রায় সব বামপন্থী দলের কাছে গিয়ে দলটি ধরনা দিয়েছিল ‘মার্কিন সাম্রাজ্যবাদবিরোধী আন্দোলনে’ তাদের সঙ্গে নিতে। তবে কোনো বামপন্থী দলই রাজি হয়নি তাদের প্রস্তাবে। এ প্রসঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ার আগে এক দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে দলটির তৎকালীন সমন্বয়ক ও মুখপাত্র ড. গোলাম মহিউদ্দিন এ প্রতিবেদককে জানিয়েছিলেন, ‘দেশের সব বামপন্থী দলের কাছে আমরা গিয়েছি একসঙ্গে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদবিরোধী আন্দোলন করার জন্য। তবে কেউ আমাদের সঙ্গে যেতে রাজি হয়নি।’
লক্ষ্য মানসিকভাবে বিপর্যস্ত তরুণ-তরুণী : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ২০০০-০১ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে একই বর্ষের এক তরুণের প্রেম হয়। তাঁরা দুজনই বামপন্থী প্রগতিশীল চিন্তাভাবনা পোষণ করতেন। ছেলেটি একটি বামপন্থী সংগঠনের কর্মীও ছিলেন। ২০০৪ সালের শেষের দিকে তাঁদের সম্পর্ক ভেঙে যায়। ফলে উভয়েই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। ওই সময় মেয়েটিকে টার্গেট করে হিযবুত তাহ্রীর। হুট করেই তাঁর মধ্যে পরিবর্তন দেখা যায়। পরিচিত ছেলে সহপাঠীদের এড়িয়ে চলতে শুরু করেন তিনি। এমনকি ভিন্নমতের বা অন্য ধর্মের দীর্ঘদিনের নারী সহপাঠীর সঙ্গেও সম্পর্ক ছিন্ন করেন। একসময় জানা যায়, মেয়েটি হিযবুত তাহ্রীরের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। বিয়ে করেছেন হিযবুত তাহ্রীরের এক কর্মীকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী এই ছাত্রী পড়ালেখা শেষে চাকরিতে থিতু হতে পারেননি পুলিশের কারণে। এখন তিনি ফেরারি জীবন যাপন করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ ডিগ্রি দেশের কোনো কাজে আসেনি। এখন তিনি সংগঠন গোছাতে ব্যস্ত।
একই ধরনের কাহিনী যশোর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে আসা আরেক তরুণীর। ছাত্রলীগের এক নেতার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয় তাঁর। তাঁদের বিয়ের কথাবার্তাও চলে। দুই পরিবার বিয়েতে সম্মতিও দেয়। কিন্তু মেয়েটির সঙ্গে ছেলেটির নানা কারণে বিবাদ শুরু হয়। ওই সময় তাঁকে টার্গেট করে হিযবুত তাহ্রীর; দলে ভেড়ায়। এরপর মেয়েটি ছেলেটিকে শর্ত দেন ছাত্রলীগের রাজনীতি ছেড়ে হিযবুত তাহ্রীর করার। ছেলেটি রাজি না হওয়ায় তাঁদের দীর্ঘ প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে যায়। সেই মেয়েটিও এখন ফেরারি।
জানা গেছে, ব্যক্তিগত, পারিবারিক অথবা সামাজিকভাবে নিপীড়িত মেয়েদের খুব সহজে দলে টেনে নেয় হিযবুত তাহ্রীর। মধ্যবিত্ত বা নিম্নমধ্যবিত্ত ঘরের মেয়েরাও হিযবুত তাহ্রীরের রাজনৈতিক কর্মে নিজেকে যুক্ত করছে_লেখাপড়া শেষে একটা চাকরির আশায়।
একই অবস্থা হিযবুত তাহ্রীর করতে আসা ছেলেদের। প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হয়ে যেসব ছেলে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে তাদেরই টার্গেট করে হিযবুত তাহ্রীর। এদের অনেককেই আবার সংগঠনের মেয়েদের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়। সংগঠনের ভিত্তি মজবুত করার জন্যই সংগঠনের নারী ও পুরুষ সদস্যদের মধ্যে বিয়ের সম্পর্ক গড়ে দেওয়া হয়।
টুইন টাওয়ারে আত্মঘাতী হামলায় সংশ্লিষ্টতা : জেরুজালেমের বিচারক তাকিউদ্দিন আল-নাবানি ১৯৫৩ সালে হিযবুত তাহ্রীর গড়ে তোলেন। হিযবুত তাহ্রীর আরবি শব্দ, যার অর্থ মুক্তির দল। বর্তমানে ৪০টি দেশে এ সংগঠনের তৎপরতা রয়েছে। মুখে শান্তির বাণী প্রচার করলেও ভেতরে ভেতরে দলটি ভয়ানক সন্ত্রাসমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য তৈরি করে নেতা-কর্মীদের। যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে যে হামলা হয়েছিল, সেই হামলার আত্মঘাতী সদস্যদের প্রধানসহ তিনজন ছিলেন হিযবুত তাহ্রীরের কর্মী।
টুইন টাওয়ারে আল-কায়েদা যে আক্রমণ চালিয়েছিল তার মধ্যে হিযবুত তাহ্রীরের সদস্য ছিলেন তিনজন। তাঁদের মধ্যে জায়াদ জারাহ, মারোয়ান আল শেহি ও মোহাম্মদ আতা জার্মানিতে হিযবুত তাহ্রীরের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। জারাহ জার্মানির হামবুর্গের ইউনিভার্সিটি অব অ্যাপ্লায়েড সায়েন্সে বিমান প্রকৌশল বিষয়ে পড়াশোনা করতেন। আতা হামবুর্গের কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তেন এবং আল শেহি পড়তেন বন বিশ্ববিদ্যালয়ে। আতার হাইজ্যাক করা বিমানটিই টুইন টাওয়ারে সর্বপ্রথম আঘাত হানে। জারাহর হাইজ্যাক করা বিমানটি পেনসিলভানিয়ায় আর আল শেহির বিমানটি আঘাত হানে টুইন টাওয়ারের দক্ষিণের ভবনটিতে। যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন বা এফবিআইয়ের তদন্তে এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। যুক্তরাজ্যের গার্ডিয়ান পত্রিকা এসব তথ্য প্রতিবেদন আকারে প্রকাশ করে।
২০০৮ সালে ব্রিটেনের গ্লাসগো বিমানবন্দরে বোমা হামলা, ২০০৩ সালের এপ্রিলে তেল আবিবের এক মদের দোকানে আত্মঘাতী হামলা, ২০০৪ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর উজবেকিস্তানে মার্কিন ও ইসরায়েলি দূতাবাসে আত্মঘাতী বোমা হামলায় হিযবুত তাহ্রীরের কর্মীরা অংশ নিয়েছিল বলেও গার্ডিয়ানের বিভিন্ন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
ওপরে হিযবুত, আড়ালে আল-কায়েদা : মার্কিন তাত্তি্বক শিভ মালিক ও মার্কিন সংস্থা নিঙ্ন সেন্টারের পরিচালক জিনো বারোনের মতে, হিযবুত তাহ্রীর একটি ছদ্মবেশী সংগঠন (কভারড অর্গানাইজেশন)। জিনোর মতে, হিযবুত তাহ্রীর মানুষকে সুবিধাজনক শিক্ষায় শিক্ষিত করছে। পরে তারা আল-কায়েদার মতো দলের সদস্য হচ্ছে। এমনকি তারা বিভিন্ন সন্ত্রাসী সংগঠনে জঙ্গি সরবরাহের কাজ করছে।

উৎসঃ   কালের কন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ