• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন |

আগামীতে দলগতভাবে হবে উপজেলা নির্বাচন

Hasina-Asrafনিউজ ডেস্ক: আগামীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনও দলগতভাবে হবে। জাতীয় নির্বাচনের মত এই নির্বাচনেও রাজনৈতিক দলগুলো সরাসরি প্রার্থী দেওয়ার সুযোগ পাবে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কার্যকর পদক্ষেপ নিতে এলজিআরডি মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে নির্দেশ দিয়েছেন।

বুধবার রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এমন নির্দেশ দেন। এ সময় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে আবারও দল সমর্থিত একক প্রার্থী নির্ধারণের ওপর গুরুত্ব দেওয়ার পাশাপাশি দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থীদের বুঝিয়ে শুনিয়ে বসিয়ে দেওয়ার কার্যকর পদক্ষেপ নিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদকদের নির্দেশ দেন। দলাদলি ভুলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে দলসমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করার নির্দেশও দেন তিনি।

এর আগে উপজেলা নির্বাচন ও দলের চলমান সাংগঠনিক সফর বিষয়ে সাত বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদকরা স্ব স্ব বিভাগের রিপোর্ট তুলে ধরেন। সবগুলো বিভাগের অনেক উপজেলায়ই দল থেকে একাধিক প্রার্থী তথা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন বলে এসব রিপোর্টে উঠে এসেছে। সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক অভিযোগ করেন, প্রার্থী নির্ধারণের বেলায় দলীয় সভাপতির নির্দেশ উপেক্ষা করেই এমপিদের প্রভাব ও হস্তক্ষেপের ঘটনা ঘটছে। তাঁরা তৃণমূলের সিদ্ধান্তের ওপরও হস্তক্ষেপ করছেন। এতে একক প্রার্থী নির্ধারণে সমস্যাসহ বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে।

বৈঠকে র‌্যাবের কর্মকাণ্ড বিষয়ে বিদেশিদের সমালোচনা ও এই এলিটফোর্সকে প্রশিক্ষণ না দেওয়ার আমেরিকার সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বিএনপির সময়ই র‌্যাবের সৃষ্টি। ওই সময় তিনি (শেখ হাসিনা) র‌্যাবকে দিয়ে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড না চালানোর আহ্বান জানানোয় বিদেশিরা ক্ষুব্ধ হন ও র‌্যাবের প্রশংসাও করেন। আজ তারাই আবার এই বাহিনীর বিরোধিতা করছেন কেন?

এ প্রসঙ্গে কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরের পর আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশের প্রতিক্রিয়ার সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা ঈদের আগের রাতে সাদ্দামকে ফাঁসিতে ঝোলায় এবং বিনাবিচারে লাদেনকে হত্যা করে সাগরে ডুবিয়ে দেয়- তারা কীভাবে মানবাধিকারের কথা বলেন।

বৈঠকে আগামী ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠেয় জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার অনুষ্ঠানে কমপক্ষে তিন লাখ লোক উপস্থিতি নিশ্চিত করার মাধ্যমে এক্ষেত্রে ভারতের হাতে থাকা রেকর্ড ভাঙা ও গিনেজ বুকে নাম উঠাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে দলীয় নেতাদের নির্দেশ দেন। সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরকেও পদক্ষেপ নিতে বলেন তিনি। এছাড়া বৈঠকে দলের মহানগর কমিটিকে দুই ভাগে বিভক্ত করাসহ নগরের থানা ও ওয়ার্ড সম্মেলনগুলোতে কেন্দ্রীয় নেতাদের সম্পৃক্ত হওয়ার নির্দেশও দেন দলীয় প্রধান।

বৈঠকে শেখ হাসিনা ৭ মার্চ ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দলীয় জনসভা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত জানিয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবসের প্রভাত ফেরিতে সব কেন্দ্রীয় নেতাকে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেন। দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক নিয়মিতকরণে এখন থেকে প্রতিমাসে একবার করে অনুষ্ঠিত হবে বলে বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠকে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা যোগ দিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ