• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন |

উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর কাছে অসহায় ইউএনও-ওসি

Kurigram-2নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর কাছে অসহায় ইউএনও এবং ওসি বিদায় চাইলেন উপস্থিত জনতার কাছে। বুধবার রাত ১১টায় ভুরুঙ্গামারী থানায় ইউপি চেয়ারম্যান ও মটর শ্রমিকদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনায় উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে তারা এ আহ্বান জানান।
জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যা ৭ টার দিকে ওই চেয়ারম্যান তার প্রাইভেট কার নিয়ে বলদিয়া যাবার পথে থানার সামনে পৌছলে একটি মাইক্রো সাইড না দেয়ায় চেয়ারম্যান মাহমুদুর রহমান রোজেন মাইক্রো ড্রাইভার আব্দুর রাজ্জাককে থাপ্পড় মারে। এখবর শ্রমিকদের মধ্যে পৌছলে সম্পাদক মিজানের নেতৃত্বে শ্রমিকরা তাকে আটকিয়ে লাঞ্চিত করার চেষ্টা চালায় এসময় এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ জনরোষ থেকে চেয়ারম্যানকে রক্ষা করতে থানার ভিতরে নিয়ে প্রধান ফটক আটকিয়ে দেয়। পরে উত্তেজিত জনতা ভিতরে প্রবেশ করার চেষ্টা চালালে ১ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করা হয়। এসময় শ্রমিকরা বাস ষ্ট্যান্ডে যেয়ে রাস্তায় বেরিকেড দিয়ে চেয়ারম্যানের বিচার দাবী করে। রাত ১০টায় কুড়িগ্রামের মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মজিদুল ইসলাম সর্দার এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আলম হোসেন ভুরুঙ্গামারী পৌছলে উত্তেজিত শ্রমিকরা মিছিল নিয়ে থানায় এসে অবস্থান নেয়। এসময় চেয়ারম্যান মাহমুদুর রহমান এ এস আই আনিসকে ব্যাপক গালাগালি এবং ওসি মাহফুজুর রহমানের সাথে অশালীন আচরন করে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ ওসির কক্ষে বসে ঘটনাটি নিস্পত্তির চেষ্টা চালালে চেয়ারম্যানের আচরনে ক্ষিপ্ত শ্রমিকরা তাকে চেয়ার ছুড়ে মারে। শেষ পর্যন্ত কারো তোয়াক্কা না করে চেয়াম্যান সমঝোতা বৈঠকে উপস্থিত থাকতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে তার বড় ভাই শ্রমিক নেতৃবৃন্দের কাছে ক্ষমা চাইলে ঘটনার নিস্পত্তি ঘটে। এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এজেএম এরশাদ আহসান হাবিব ও ওসি মাহফুজুর রহমান চেয়ারম্যানের বড় ভাই ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রেদওয়ানুর রহমান রানাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি, জনগণের নিরাপত্তা দিতে পারছিনা । দয়া করে আমাদের বিদায়ের ব্যবস্থা করবেন। উল্লেখ্য, গত দুর্গা পূজায় হিন্দু ধর্মালম্বীদের হুমকী প্রদর্শন করায় তারা পূজা বন্ধ করে চেয়ারম্যানের বিচার দাবী করে। পরে এ আসনের জাতীয় সংসদের সংসদস্যের হস্তক্ষেপে বিষয়টি মীমাংসা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের প্রেক্ষিতে সদর ইউনিয়নের ১০ জন ইউপি সদস্য ঐ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করে। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার তদন্তে গেলে চেয়ারম্যান তার অনুগত লোক জন দিয়ে ইউএনও কে আটকিয়ে ও গালাগালি করে লাঞ্চিত করে। শুধু তাই নয়, মেম্বারদেরকে জিম্মি করে তাদের অভিযোগ  ভুয়া বলে লিখিত স্বাক্ষর নেয়। এর পর থেকে ইউপি মেম্বাররা চেয়ারম্যানের বিচার দাবী করে লিখিত অভিযোগ করলেও এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। বিচার না করায় মেম্বাররা ইউনিয়ন পরিষদে না যাওয়ায় এবং চেয়ারম্যান সাহেব ইউনিয়ন পরিষদ না যাওয়ায় বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। শুধু তাই নয় , ৪০ দিনের কর্মসুচি, এলজিএসপির কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তবে ইউএনও জানিয়েছে টাকা তুলে রাখা হয়েছে ল্যাপস হবেনা। সাম্প্রতিক সময়ে প্রকাশ্যে হুমকী ধামকী ও ভয়ভীতির অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ২টি মামলা এবং ৩টি জিডি রয়েছে। যা ডিবি তদন্ত করছে।
উপজেলা চেয়ারপদে নির্বাচন করলেও তিনি গত সোমবার আচরন বিধি লংঘন করে ইউনিয়ন পরিষদে সচিবের খতম পড়ানো অজুহাত দিয়ে ইউনিয়নের বিধবা , কার্ডধারীদের খাবার আয়োজন করেন । সেখানে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকেও উপস্থিত থাকতে বাধ্য করা হয়। গত মঙ্গলবার জোড় পূর্বক ভুরুঙ্গামারী হাটের সকল দোকানপাট জোড় পূর্বক বন্ধ করে তার চাতালে আয়োজিত নির্বাচনী জনসভায় দোকান মালিকদের উপস্থিত থাকতে বাধ্য করেন। গতকাল বুধবার  নির্বাচনী আচরন বিধি লংঘন করে ২টি বাস যোগে বলদিয়া ইউনিয়নে লোক নিয়ে জনসভা করতে যাবার সময় এ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। প্রশাসন সব জেনে দেখেও অসহায় ভুমিকা পালন করছে ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ