• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:১৩ পূর্বাহ্ন |

তারেকের ভাগ্য নিয়ে উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় বিএনপি

Tareqসিসি ডেস্ক: বহুল আলোচিত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ভাগ্যে কী ঘটছে? দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে এ নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার শেষ নেই। একই সঙ্গে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঠেকাতে না পারা, দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় বিএনপি-জামায়াত সরকারের মন্ত্রীদের ফাঁসি, চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে পুনরায় তদন্ত নিয়েও নেতা-কর্মীদের চেহারায় হতাশার ছাপ। শারীরিকভাবে অসুস্থতার কারণে সব ধরনের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড পরিচালনায় খালেদা জিয়া নন, শেষ ভরসা তারেক রহমানও দেশের বাইরে। এ অবস্থায় কে দলের হাল ধরবেন? কোথায় গিয়ে ঠেকবে বিএনপি? এ নিয়ে চিন্তারও যেন শেষ নেই বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীদের। সর্বশেষ বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে স্পর্শকাতর এ দুই মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা হয়। শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের বক্তব্যে দুশ্চিন্তার বিষয়টি লক্ষ্য করা যায়। বৈঠকে মামলা দুটি আইনিভাবেই মোকাবিলা করার সিদ্ধান্ত হয়।

অন্যদিকে, হাজার ত্রিশেক মামলার বেড়াজালে পড়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয়সহ সারা দেশের নেতা-কর্মীরা। চরম হতাশায় নিমজ্জিত নেতা-কর্মীদের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে স্থবিরতা চলে এসেছে। এ অবস্থায় দলটির ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক।
আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দশ ট্রাক অস্ত্র মামলার তদন্ত ও বিচারের রায়ে স্পষ্ট যে, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া পুরো ঘটনাই জানতেন। কিন্তু তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। সব দেশের অপরাধ আইনেই অপরাধের সাথীকে বিচারের সম্মুখীন করার বিধান রয়েছে। আবার ২১ আগস্ট হামলা মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যা ও আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতেই স্মরণকালের ভয়াবহ এই গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। বিচার প্রক্রিয়ায় বিভিন্ন আসামি ও সাক্ষীর সাক্ষ্যেও তারেক রহমান ও হাওয়া ভবনের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি স্পষ্ট হচ্ছে। তবে বিএনপির আইনজীবীরা মনে করেন, এ দুই মামলাই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। উচ্চ আদালতে দুই শীর্ষ নেতাসহ অন্য আসামিরা নির্দোষ প্রমাণিত হবেন।
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা : জানা গেছে, সরকারের নীতিনির্ধারকরা চাচ্ছেন মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তি করতে। তদন্তে তারেক রহমানের জড়িত থাকার বিষয়টি ওঠে এসেছে। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনার জনসভায় গ্রেনেড হামলায় ২৪ জন প্রাণ হারান। আহত হন পাঁচ শতাধিক। চিরদিনের জন্য পঙ্গুত্বের অভিশাপ বয়ে বেড়াচ্ছেন অনেকে। শেখ হাসিনা সেদিন অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেলেও একটি কানে শ্রবণশক্তি হারান। সরকারপক্ষের আইনজীবীদের মতে, মামলার অন্যতম আসামি তারেক রহমান, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ, সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু এবং হরকাতুল জিহাদের (হুজি) নেতা মুফতি হান্নান, আবু তাহের, তাজউদ্দিন, মাজেদ বাটসহ জঙ্গি নেতাদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য-প্রমাণ ওঠে এসেছে। আইনজীবী মোশারফ হোসেন কাজল বলেন, ‘আমি নিজেও নারকীয় এই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আল্লাহর অশেষ কৃপায় বেঁচে গেছেন। ওই ঘটনার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ নায়কদের আমি সর্বোচ্চ শাস্তির প্রত্যাশা করছি।’ ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিশেষ এজলাসে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার বিচার চলছে। ২০১২ সালের ১৯ মার্চ তারেক রহমান, হারিছ, মুজাহিদসহ চারদলীয় জোট সরকারের কয়েকজন মন্ত্রী, নেতা এবং বেশ কয়েকজন জঙ্গি নেতা-কর্মীসহ ৩০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়। বিচার শুরুর পর গত ২১ মাসে বাদীসহ ৭৩ সাক্ষীর সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা বলছেন, শীঘ্রই মামলাটির বিচার প্রক্রিয়া শেষ হবে। ৫২ আসামির মধ্যে মুজাহিদ, বাবর, পিন্টু, মুফতি হান্নানসহ ২৫ জন কারাগারে। মামলায় তারেক রহমান ছাড়াও খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, বিএনপির সাবেক এমপি কাজী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন কায়কোবাদসহ ১৯ জন পলাতক। অন্যদিকে, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার (অব.) সাইফুল ইসলাম ডিউক, সাবেক আইজিপি মো. আশরাফুল হুদা, শহিদুল হক ও খোদা বঙ্ চৌধুরী, মামলার তিন তদন্ত কর্মকর্তা সাবেক বিশেষ পুলিশ সুপার রুহুল আমিন, সিআইডির সিনিয়র এএসপি মুন্সি আতিকুর রহমান, এএসপি আবদুর রশীদ এবং সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার আরিফুল ইসলাম জামিনে রয়েছেন।
দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা : বিশ্লেষকরা বলছেন, তৎকালীন শিল্পমন্ত্রী মতিউর রহমান নিজামী (ফাসির দণ্ডপ্রাপ্ত) এ মামলায় যে সাক্ষ্য দিয়েছেন, তাতে বেগম খালেদা জিয়ার অবহিত হওয়ার বিষয়টি রয়েছে। নিজামী সাক্ষ্যে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে অস্ত্র আটকের বিষয়টি নিয়ে তিনি আলোচনা করেছেন। খালেদা জিয়া ঘটনাটি জেনেছেন, কিন্তু এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেননি। অন্যদিকে, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলেও অভিযুক্ত ও সাক্ষীদের সাক্ষ্যে ওঠে এসেছে। বলা হয়েছে, চট্টগ্রামের স্থানীয় পুলিশ এ নিয়ে থানায় মামলা করে। পরে সেটি গোয়েন্দা বিভাগে হস্তান্তর করা হয়। তারা এ নিয়ে কার্যত কিছুই করেননি। তদন্ত কমিটি গঠন করা হলে সেই কমিটির কোনো প্রতিবেদনও জনসম্মুখে প্রকাশিত হয়নি বা কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। উল্টো পুরো ঘটনা ধামাচাপার সর্বাত্দক চেষ্টা হয়। আর এসব ঘটনায় যারা জড়িত ছিলেন, তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধেই অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে। চাঞ্চল্যকর এ মামলায় গত ৩০ জানুয়ারি নিজামী-বাবরসহ ১৪ জনের ফাঁসির আদেশ দেন চট্টগ্রামের একটি আদালত। তবে, পেশাজীবীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় খালেদা জিয়া আক্ষেপের সঙ্গে বলেছেন, যারা দশ ট্রাক অস্ত্র ধরল তাদের পুরস্কার না দিয়ে ফাঁসি দেওয়া হলো। এটা ন্যায়বিচারের পরিপন্থী। বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, ‘দশ ট্রাক অস্ত্র মামলার রায়, পর্যবেক্ষণ এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে আমি ব্যক্তিগতভাবে খুবই হতাশ ও চিন্তিত। যদিও সরকার এগুলো সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশে করেছে। কিন্তু এর ভবিষ্যৎ কী হবে, তা আমরা কেউই বলতে পারছি না।’ জানা গেছে, এ দুই মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে বিএনপি চুলচেরা বিশ্লেষণ করছে। আইনিভাবে মোকাবিলা করতে দল সমর্থিত আইনজীবী নেতাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যে যেন কোনো হতাশা কাজ না করে, তাই এ নিয়ে দলীয়ভাবে বক্তব্য-বিবৃতি না দেওয়ার জন্য নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। এ মামলার রায় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য প্রসঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাংলাদেশ প্রতিদিনকে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘এটা অপপ্রচার। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী উদ্দেশ্যমূলকভাবে দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় হাওয়া ভবন ও তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সম্পৃক্ততার কথা বলছেন। কলঙ্কজনক ভোটারবিহীন নির্বাচনের বিরুদ্ধে জনগণের যে ঐকমত্য সৃষ্টি হয়েছে, তা থেকে দৃষ্টি ভিন্ন দিকে সরানোর জন্যই এ ধরনের অপপ্রচার। এটা তাদের পুরনো অভ্যাস। ওই সময় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেগম জিয়া তার যথাযথ দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি তদন্তসাপেক্ষে জড়িত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য তাৎক্ষণিকভাবেই নির্দেশ দিয়েছিলেন।’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, ‘দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মামলায় জিয়া পরিবারকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে জড়ানো হচ্ছে। দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দলের শীর্ষ দুই নেতার বিরুদ্ধে এ ধরনের আচরণে আমি হতাশ না হলেও চিন্তিত। স্বাভাবিকভাবেই নেতা-কর্মীরাও কিছুটা উদ্বিগ্ন।’ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মাত্রা সবক্ষেত্রে থাকা উচিত নয় বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
মামলা আর মামলা : বিএনপির একটি সূত্র দাবি করেছে, সারা দেশে নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে এখন মামলার সংখ্যা প্রায় ৩০ হাজার। শুধু রাজধানীতেই প্রায় তিন হাজার মামলা। এসব মামলায় আসামি দুই থেকে আড়াই লাখের মতো। বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের প্রায় সবার বিরুদ্ধেই একাধিক মামলা রয়েছে। মামলার কারণে সারা দেশে নেতা-কর্মীদের থাকতে হয় গ্রেফতার আতঙ্কে। গ্রেফতার এড়াতে শীর্ষ নেতারাও কখনো কখনো চলে যান আত্দগোপনে। পুলিশের ভয়ে মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা তাদের বাসাবাড়িতে থাকেন না। ফেরারি অবস্থায় কখনো কখনো নেতারা একজন জানতে পারেন না আরেকজনের খবর। মোবাইল ফোন রাখেন বন্ধ।
উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ