• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৪:৪০ অপরাহ্ন |

স্বার্থের জন্য আওয়ামী লীগ মৌলবাদকে আলিঙ্গন করে

Awamili Flagনিউজ ডেস্ক: আওয়ামী লীগ ধর্মনিরপেক্ষতা ও অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির কথা বললেও ক্ষমতা দখল ও রক্ষায় তারা কখনো ধর্মনিরপেক্ষ হতে পারেনি। ছাড়তে পারেনি সাম্প্রদায়িক শক্তি ও মৌলবাদীদের সঙ্গ। অতীতে যেমন তারা মৌলবাদীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছে এবারও তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিসর্জন দিয়ে তাদের সঙ্গে আতাত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা।

তাদের অভিযোগ, আওয়ামী লীগ নিজেদের মুক্তিযুদ্ধের ধারক ও বাহক দাবি করলেও তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করতে পারেনি। তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে পদদলিত করেছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে জলাঞ্জলি দিয়ে ক্ষমতার জন্য মৌলবাদীদের সঙ্গে তাদের ঐক্য কখনো প্রকাশ্য কখনো কৌশলগত। আওয়ামী লীগের যত্মে বেড়ে ওঠা মৌলবাদীরা সরকারের কাছ থেকে পায় আর্থিক সুবিধা ও রাজনৈতিক আনুকূল্য। আওয়ামী লীগের সংস্পর্শে আসলে যুদ্ধাপরাধী হয় মুক্তিযোদ্ধা, প্রতিক্রিয়াশীল হয় প্রগতিশীল, স্বৈরাচারী হয় গণতন্ত্রী, দেশদ্রোহী হয় দেশপ্রেমিক, লুটেরা হয় সাদা মনের মানুষ।আবার আওয়ামী লীগের আশীর্বাদে মৌলবাদীরা যেমন নিজেদের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধার করছে তেমনি জাতীয় সংসদের মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানেও তারা জায়গা করে নিয়েছে। যুদ্ধাপরাধের বিচার মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠার জন্য নয় সরকারের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ৮৬ সালে এরশাদের অধীনে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জামায়াতও নির্বাচনে অংশ নেয়। ৯৪ সাল থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে বিএনপির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ ও জামায়াত যুগপৎ আন্দোলন করে। ২০০৮ সালে নির্বাচনে নিজেদের বিজয় নিশ্চিত করতে আওয়ামী লীগ খেলাফত মজলিস ও ইসলামী ফ্রন্টকে জোটভুক্ত করে। জাকের পার্টির সঙ্গে ছিল অনানুষ্ঠনিক ঐক্য। এবারও আওয়ামী লীগ নীতি আদর্শ অঙ্গীকার বিসর্জন দিয়েছে। শেষমেষ দশম সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগ অন্যান্য সংসদীয় দলসহ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারীর নেতৃত্বাধীন মৌলবাদী সংগঠন বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের সঙ্গে জোট বেঁধেছে। আসলে আওয়ামী লীগ কখনো মৌলবাদ ছাড়তে পারে না। স্বার্থের জন্য তারা মৌলবাদকে আলিঙ্গন করে, স্বার্থের বিরুদ্ধে গেলে ছুঁড়ে ফেলে দেয়। এ কারণে মনে হয় পানির যেমন রং নেই আওয়ামী লীগের তেমনি চরিত্র নেই।
পর্যবেক্ষকদের মতে, হিন্দু মৌলবাদীদের সঙ্গে গাঁটছড়া বাধতেও আওয়ামী লীগ পিছিয়ে নেই। তাদের বিরুদ্ধে হিন্দু মৌলবাদে পৃষ্ঠপোষকতারও অভিযোগ রয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রথম সরকার গঠনের পর তিনি বৃটেন সফরে যান। তখন রাজধানী লন্ডনে হিন্দু বৌদ্ধ খৃস্টান ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। ওই অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, আপনারা হিন্দু। আপনাদের এক পা বাংলাদেশে, আরেক পা ভারতে। হিন্দু বৌদ্ধ খৃস্টান ঐক্য পরিষদ গঠন করার জন্য আমি মেজর জেনারেল সি আর দত্তকে টাকা দিয়েছি, সেখানে মুসলমান নাই কেন?
বিভিন্ন সময়ে মৌলবাদী দলগুলোর সঙ্গে আওয়ামী লীগের ঐক্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কমরেড মনজুরুল আহসান খান প্রাইমনিউজ.কম.বিডিকে বলেন, আওয়ামী লীগ হচ্ছে ওয়াশিং মেশিনের মতো; চোর-বাটপার, যুদ্ধাপরাধী-রাজাকার যিনিই তাদের দলে যোগ দেন তিনিই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিতে পরিণত হন। মৌলবাদীদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ঐক্য কখনো প্রকাশ্য কখনো কৌশলগত। জামায়াতের সঙ্গে আওয়ামী লীগের ঐক্য কৌশলগত।যে কারণে আওয়ামী লীগ নেতা হানিফ বলেছিলেন জামায়াতের সব নেতা যুদ্ধাপরাধী নয়। তার এ বক্তব্য জামায়াতকে নিজেদের দলে ভেড়ানোর চেষ্টা। এ তৎপরতার অংশ হিসেবে কুষ্টিয়া জেলা জামায়াতের রুকন নওশের আলীসহ কিছু জামায়াত নেতাকর্মী আওয়ামী লীগে যোগ দেয়।
ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোশারেফা মিশু। তিনি প্রাইমনিউজ.কম.বিডিকে বলেন, মৌলবাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের সম্পর্ক নতুন নয়। তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে পদদলিত করেছে৤ তত্ত্বাধায়ক সরকারের দাবিতে জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছে। ৪২ বছর পর যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিচার আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের কমিটমেন্ট নয়; রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।
আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সংসদীয় জোটে তরিকত ফেডারেশনের অন্তর্ভুক্তির কারণ জানতে চা্ইলে দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন প্রাইমনিউজ.কম.বিডিকে বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে সংসদে নারী আসনের গুরুত্ব অনেক।অনেক ইসলামী দল নারী নেতৃত্ব স্বীকার করে না। কিন্তু সংসদীয় জোটে তরিকত ফেডারেশনের অন্তর্ভুক্তির নারী নেতৃত্বের প্রতি তাদের সমর্থন।এই জোট অসম্প্রদায়িক ও অহিংস রাজনৈতিক চর্চাকে উৎসাহিত করবে।
জামায়াত নেতৃবৃন্দ মনে করেন, জামায়াতে ইসলামী যদি বিএনপির সঙ্গে ১৯ দলীয় জোটে না থেকে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটে থাকতো তাহলে অধ্যাপক গোলাম আযমসহ জামায়াত নেতৃবৃন্দকে আজ বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হতো না। ফাঁসি হতো না কাদের মোল্লার, কারাবরণ করতে গিয়ে মরতে হতোনা মাওলানা ইউসুফকে। জামায়াত হতো আজকের ঐকমত্যের সরকারের বড় অংশীদার। জামায়াত পেতো মন্ত্রীত্ব, থাকতো নেতাদের বাড়ি-গাড়িতে পতাকা।
গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে জমায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, শুধু বিএনপি নয় আওয়ামী লীগের সঙ্গেও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য জামায়াত অবিস্মরণীয় ভূমিকা রাখে। এ আন্দোলন চলাকালে শেখ হাসিনা, তোফায়েল আহমদ, আমির হোসেন আমু এবং অন্যান্য আওয়ামী লীগ নেতারা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, কামারুজ্জামান ও আব্দুল কাদের মোল্লার সঙ্গে বিভিন্ন মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করেন।
তিনি বলেন, ১৯৯১ সালের অক্টোবর মাসে সাবেক প্রধান বিচারপতি বদরুল হায়দার চৌধুরী অধ্যাপক গোলাম আযমের সঙ্গে দেখা করে আওয়ামী লীগের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে জামায়াতের ভোট প্রার্থনা করেন।
উৎসঃ   প্রাইমনিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ