• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৫২ অপরাহ্ন |

বিএনপির ভূমিকায় হতাশ ও ক্ষুব্ধ শরিকরা

BNP Logo

ঢাকা: সরকার বিরোধী আন্দোলনে বিএনপির বর্তমান ভূমিকায় হতাশ ও ক্ষুব্ধ ১৯ দলীয় জোটের বেশির ভাগ শরিক দল। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে এখনই জোরালো আন্দোলন চায় শরিকরা। কিন্তু শরিকদের অভিযোগ, বিএনপি আন্দোলনের বদলে দল গোছাতে ব্যস্ত।

বর্তমানে বিএনপির এই ভূমিকায় হতাশ ও ক্ষুব্ধ জোটের শরিক কয়েকটি দলের বেশির ভাগ নেতা। আবার জোটের দ্বিতীয় প্রধান দল জামায়াতের কর্মকাণ্ড নিয়ে বিএনপির কোনো কোনো নেতা যেমন ক্ষুব্ধ, তেমনি বিএনপির ওপরও ক্ষুব্ধ জামায়াত নেতারা। এ ছাড়া অন্যদের চেয়ে জামায়াতে ইসলামীকে বিএনপি বেশি গুরুত্ব দেওয়ায়ও ক্ষোভ আছে কোনো কোনো দলের।

বিএনপি, জামায়াতে ইসলামী, কল্যাণ পার্টি, এলডিপি, বাংলাদেশ ন্যাপ, বিজেপিসহ ১৯ দলীয় জোটের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। দৈনিক কালের কণ্ঠ এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ৫ জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সরকারের পক্ষ থেকে নির্বাচনে টানতে ১৯ দলীয় জোটের বেশ কয়েকটি দলের নেতাদের মন্ত্রিত্ব ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হওয়ার লোভনীয় প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কথার ওপর আস্থা রেখেই ওই নেতারা সরকারের প্রস্তাবে সাড়া দেননি। বিএনপি ও মিত্র দলের নেতারা এ নিয়ে একাধিকবার বৈঠকে ও টেলিফোনে আলোচনা করেন।

বিএনপির পক্ষ থেকে তখন মিত্রদের বোঝানো হয়েছিল, যেভাবে সারা দেশে আন্দোলন হচ্ছে তাতে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে সরকার বাধ্য হবে। একতরফা নির্বাচন দেশের মানুষ মেনে নেবে না। আন্দোলনের কারণে নির্বাচনের তফসিল বাতিল করতে বাধ্য হবে নির্বাচন কমিশন। আর সরকার যদি গায়ের জোরে নির্বাচন করেও তাহলে তা দেশে-বিদেশে গ্রহণযোগ্য হবে না। ফের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করতে বাধ্য হবে ইসি। নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে বিপুল ভোটে জিতে সরকার গঠন করবে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট। বিএনপি সরকার গঠন করতে পারলে তাতে অন্তর্ভুক্ত হবেন শরিক দলের নেতারাও। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি।

সূত্র জানায়, গত নির্বাচনে বিএনপির অংশ না নেওয়াকে ভুল সিদ্ধান্ত বলে মনে করছে জোটের কয়েকটি শরিক দল। একটি শরিক দলের এক নেতা বলেন, গত নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায়, সে সময়েও বিএনপি পাঁচটি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছে। তখন তো সরকার নানা কারসাজি করেও আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিজয়ী করাতে পারেনি। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিলে বিএনপির এমন শোচনীয় অবস্থা হতো না।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা জানান, তাঁরা সারা জীবন বিরোধী দলে থাকার জন্য বিএনপির সঙ্গে জোট করেননি। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা জানি, বাংলাদেশে এক দল পরপর দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসে না। যেহেতু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল, সেহেতু গত বছর ভেবেছিলাম, সামনে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে। কিন্তু কিছু ভুলের জন্য সেটা আর হয়নি। বিএনপি ক্ষমতায় না আসায় শুধু বিএনপিই ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শরিকরাও।’

তিনি আরো বলেন, গত নির্বাচনে সরকার আমাদের দল থেকে দুজনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত করার শর্তে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল। আমরা তা ফিরিয়ে দেই। এখন দেখছি সেটা ছিল আমাদের বোকামি। বর্তমানে আন্দোলনের কোনো কর্মসূচি নেই। বিএনপি এখন নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত। সম্প্রতি বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক হলেও জোটের কোনো বৈঠক হয়নি। বিএনপির এ কর্মকাণ্ড নিয়ে আমরা হতাশ।

নামসর্বস্ব একটি শরিক দলের এক নেতা বলেন, আমাদের দল ছোট হতে পারে, কিন্তু দল তো। ছোট বলে গুরুত্ব দেবে না, এটা ঠিক নয়। আমাদেরও চাওয়া-পাওয়ার বিষয় আছে। সারা জীবন শুধু সরকারবিরোধী আন্দোলনের জন্য বিএনপির সঙ্গে জোট করিনি। আন্দোলনের কৌশলে বিএনপি ভুল করেছে, এখন তার খেসারত দিতে হচ্ছে ১৯ দলীয় জোটকে।

তিনি বলেন, সরকার যে রকম হার্ডলাইনে রয়েছে, সেখানে বিএনপি গুরুত্ব না দিলে আমাদের মতো ছোট দল নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। আমরা এখন চরম অনিশ্চয়তায় আছি। ওই নেতা আরো বলেন, আওয়ামী লীগ যাদের নিয়ে এখন সরকার গঠন করেছে, তার মধ্যেও অনেক দল আছে নামসর্বস্ব। এর পরও ওই সব ছোট দলকে দূরে ঠেলে দেয়নি আওয়ামী লীগ।

ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী বলেন, আমাদের কাছেও মন্ত্রী-এমপি হওয়ার প্রস্তাব ছিল। আমরা রাজি হইনি। তবে সব সময় বিরোধী দলে থাকার জন্যও কেউ রাজনীতি করে না।

তিনি বলেন, বিএনপি হয়তো কৌশলগত কারণে একটু পিছিয়ে রয়েছে। রাজনীতিতে শেষ বলে কিছু নেই। তবে হতাশা থাকলেও তা কাটিয়ে উঠতে হবে। এখন করার কিছু নেই। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের শরিক দলগুলোর মধ্যে এই হতাশা থাকবে না।

এদিকে বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এক নেতা বলেন, জামায়াতে ইসলামীকে নিয়েই যত ঝামেলা। না হলে বিএনপি একটি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের দল, তাদের নিয়ে কোনো বিতর্কের সুযোগ ছিল না। বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে আওয়ামী লীগ নাও জিততে পারত। জামায়াতের কারণেই বিএনপির এ অবস্থা। দিন দিন বিএনপির অবস্থা শোচনীয় পর্যায়ে চলে যাচ্ছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির আদর্শের মিল নেই। আরো কয়েকটি শরিক দল রয়েছে, তাদের সঙ্গেও আদর্শের মিল নেই। এর পরও রাজনৈতিক কারণে জোট গঠন করতে হয়েছে। আওয়ামী লীগও কয়েকটি ছোট দল নিয়ে জোট করেছে। রাজনীতিতে এটা দোষের কিছু নয়। বিএনপি বড় দল, তাই সিদ্ধান্ত তো বিএনপিকেই নিতে হবে। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অবশ্যই ১৯ দলীয় জোটের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে। বর্তমানেও তাই হচ্ছে। এ নিয়ে শরিক দলের হতাশ হওয়ার কিছু নেই।

অন্যদিকে ১৯ দলীয় জোটের শরিক এলডিপির এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, জামায়াতে ইসলামী মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত হলেও অন্যান্য শরিক দলের নেতাদের চেয়ে জামায়াতের নেতাদেরই বিএনপি এখনো বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। জোটের শরিকদের বিএনপিকে অবশ্যই গুরুত্ব দিতে হবে। কিন্তু গুরুত্ব না পাওয়ায় জোটের বৈঠকে খালেদা জিয়ার সামনে কিছু না বললেও বৈঠকের বাইরে বিএনপি নেতাদের প্রতি ওই নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করে থাকেন।

জোটের শরিক দল বিজেপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ অবশ্য বলেছেন, মন্ত্রী এমপি হওয়ার জন্য আমাদেরও তো অফার ছিল। অফার থাকতেই পারে। কই, আমরা তো টলিনি। তিনি বলেন, শরিক দলগুলোকে বুঝতে হবে, বিএনপি জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় আন্দোলন করছে এবং সামনে তারা বিজয়ী হবেই।

উৎস: আইপোর্ট নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ