• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১১:৫৮ অপরাহ্ন |

রাকাব: স্বামীর ন্যায্য পাওনা পায়নি মর্জিনা

Rajshahi-Krishi-Unnayan-Bankদিনাজপুর প্রতিনিধি: রাকাব দিনাজপুর শাখার কর্মচারী মোঃ শমশের আলীর স্ত্রী মোছাঃ মর্জিনা খাতুন স্বামীর মৃত্যুর ৫ বছর পরেও তার ন্যায্য পাওনা বুঝে পাননি।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মোঃ শমশের আলী ১১-০৪- ১৯৮৪ তারিখে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাঙ্ক (রাকাব ) দিনাজপুর শাখা উত্তর জোনে যোগদান করেন। সততা, নিষ্ঠা ও বিশ্বস্ততার সাথে কর্মরত থাকা অবস্থায় তিনি ৩১-০১-২০০৯ তারিখে নিজ বাসভবনে মারা যান। তার মৃত্যুর পর তার স্ত্রী মোছাঃ মর্জিনা খাতুন নিয়মনীতি মোতাবেক আনুতোষিক এবং অন্যান্য আর্থিক সুবিধাসহ পেনশনের জন্য আবেদন করেন। ব্যাংকের নিয়ম মোতাবেক শমশের আলীর দাফন কাফনের জন্য ১২ হাজার টাকা দেয়ার কথা থাকলেও দেয়া হয় মাত্র ৭ হাজার টাকা। মৃত শমশের চাকুরীরত থাকা অবস্থায় ১৯৯৩ সালে এবং ২০০৫ সালে টাইম স্কেল প্রাপ্তির হকদার হলেও তাকে তা দেয়া হয়নি। তবে রাকাব প্রধান কার্যালয় রাজশাহী এর ২৯-০৬-১১ এর পত্র নং ০৭/২০১০-১১/১৭৭৩ (৮) মোতাবেক তার স্ত্রী মর্জিনাকে আনুতোষিক বাবদ ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা দেয়া হয়। তাকে গ্রাচ্যুইটি ও জেনারেল প্রফিডেন্ট ফান্ড যথাযথভাবে প্রদান করা হয়নি। ব্যাখ্যাহীনভাবে মৃত শমশের আলীর ১৮ মাসের বেতন প্রদান করা হয়নি। কেবলমাত্র তাই নয়, তাকে বা তার পরিবারকে উক্ত হিসাবের টাকা প্রদানের কোন উদ্যোগও নেয়া হয়নি।
মৃত শমশের আলীর চাকুরী বিষয়ক আনুতোষিক যথাযথভাবে প্রদান করা হলে তার পরিবার ১৫ লাখ টাকা পেতেন। কিন্তু যোগসাজশী হিসাবে তাকে মাত্র ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। তাকে অন্যান্য আর্থিক প্রাপ্তি হতে বঞ্চিত করা হয়েছে।
অভিযোগে বলা হয়েছে, তাকে প্রাপ্য পাওনা হতে শুধুমাত্র বঞ্চিতই করা হয়নি, বিভিন্নভাবে হয়রানীও করা হয়েছে। তার কাছ হতে তার স্বামীর নিয়োগপত্রসহ অন্যান্য কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। তিনি এ ব্যাপারে রাজশাহীতে রাকাব উপ মহাব্যবস্থাপক এর সাথে দেখা করেন। তিনি বিস্তারিত শোনার পর মামলা করার পরামর্শ দেন। তিনি রাকাব চেয়ারম্যানের সাথে দেখা করতে গেলে তাকে তার চেম্বারে ঢুকতে দেয়া হয়নি।
মোসাঃ মর্জিনা এ প্রতিবেদককে তার উপরে অন্যায় ও অবিচারের কথা জানান। তিনি বলেন, তার স্বামীর সৎকারের জন্য তাকে ১২ হাজার টাকা দেয়ার কথা থাকলেও দেয়া হয়েছে ৭ হাজার টাকা। ছুটি নগদানে তাকে ৪০ হাজার টাকা দেয়ার কথা থাকলেও দেয়া হয়েছে ২৩ হাজার ২৪০ টাকা। মারা যাবার আগে শমশের আলী কোন নমিনি করে যাননি। তবে কোর্ট থেকে ৪ জনকে নমিনি করা হয়। তাকে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এফিডেবিট করে আনতে বলেন। তিনি এফিডেবিট করে এনে দেবার পর তার টাকা ভাগ করে দেয়া হয়। কাগজপত্র নিয়ে নেয়া হয়। তাকে পূর্ণ পেনশনও দেয়া হচ্ছে না। দেয়া হচ্ছে মাত্র ৫০ শতাংশ টাকা। স্বামীর মৃত্যুর ৫ বছর পার হলেও রাকাব কর্তৃপক্ষ মোছাঃ মর্জিনাকে পাওনাদি বুঝিয়ে দিচ্ছেন না। তাকে বলা হচ্ছে মামলা করতে। কিন্তু কিসের বলে তিনি মামলা করবেন? তার সব কাগজইতো ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কৌশলে কেড়ে নিয়েছেন।
পরে তিনি তার স্বামীর নিয়োগপত্র চাইলে ব্যাংক ম্যানেজার তরিকুল হক তাকে বলেন, আপনার স্বামীর কাগজপত্র পুড়ে গেছে। তিনি তাকে কেন ৫০ শতাংশ পেনশন দেয়া হচ্ছে জানতে  চাইলে  মোয়রফ হোসেন নামে একজন তাকে বলেন, আপনি কে? আপনাকে আমরা চিনিনা। যাকে চিনতাম সে মারা গেছে।
সন্তানাদি নিয়ে বর্তমানে অতি কষ্টে দিন কাটছে মর্জিনার। তিনি চান রাকাব কর্তৃপক্ষ তার উপরে যে অত্যাচার করেছে তার প্রতিকার করা হোক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ