• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন |

ইয়াবার নেশায় খুন করতে বুক কাঁপেনি ওদের!

Maderনিউজ ডেস্ক: ১৮ দিনের ব্যবধানে রাজধানীর উত্তরায় চাঞ্চল্যকর দুই নারী খুনের রহস্য বেরিয়ে এলো কেয়ারটেকার শেখ কামাল ওরফে আল মামুন (৩৩) গ্রেপ্তারের পর। ঘাতকরা সংখ্যায় ছিল পাঁচজন। চাকরির প্রলোভনে দুই নারীকে ডেকে নিয়ে শ্লীলতাহানি, অতঃপর খুন। এরপর ঠাণ্ডা মাথায় লাশ টুকরো টুকরো করে বস্তায় ভরে ফেলে দেওয়া হয় ময়লার স্তূপে। ইয়াবার নেশায় পর পর দু’টি খুন করতে একটুও বুক কাঁপেনি তাদের। পুলিশ হেফাজতে খুনের এমনই রোমহর্ষক বর্ণনা দিল গ্রেপ্তার মামুন।
মামুন জানায়, বেশি বেতনের চাকুরীর লোভ দেখিয়ে গৃহকর্মী আমেনা বেগম (২৭) ও খাদিজা বেগমকে (২৬) ডেকে নেওয়া হয়। ফ্লাটে নেওয়ার পরই পাঁচজনে মিলে তাদের শ্লীলতাহানি করে। শ্লীলতাহানির কথা ফাঁস করে দেয়ার হুমকি দিলে দুই নারীকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। এরমধ্যে খাদিজা বেগমের লাশ কেটে টুকরো টুকরো করা হয়। উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশ গত ১২ জানুয়ারি উত্তরার ১৪ নম্বর সেক্টরের ২০ নম্বর রোডের একটি বাড়ির পেছনের ময়লার স্তূপ থেকে উদ্ধার করে আমেনার বস্তাবন্দি লাশ। এর ১৮ দিন বাদে গত ৩১ জানুয়ারি উত্তরার ১৪ নম্বর সেক্টরের ২০ নম্বর সড়কের ৩৩ নম্বর বাড়ির পেছনের নির্জনস্থান থেকে বস্তাবন্দি (খন্ডিত) খাদিজার লাশ উদ্ধার করা হয়।
উত্তরা পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খন্দকার রেজাউল হাসান জানান, আঠারো দিনের মাথায় দুই নারীর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার নিয়ে থানা পুলিশ মহাবিপাকে পড়েছিল। কোন ক্লুই ছিল না। দীর্ঘ অনুসন্ধান শেষে গত ৫ ফেব্রুয়ারি গ্রেপ্তার করা হয় উত্তরার ২০ নম্বর সড়কের নির্মাণাধীন ৬ তলা ভবনের কেয়ার টেকার আল মামুনকে। গত ৯ ফেব্রুয়ারি মামুন খাদিজা খুনের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়। তার দেওয়া তথ্যমতে গতকাল শুক্রবার উত্তরা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় পেশাদার জমির দালাল রকিব আহমেদ ওহাবকে। তার গ্রামের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ। ওহাবও ঘটনার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে।
খুনের সঙ্গে জড়িত দুইজনই জানান, তাদের সঙ্গে আরও তিন সঙ্গী ছিল। তারা পাঁচজনই ইয়াবায় আসক্ত। খুনের ঘটনায় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পশ্চিম থানার সাব-ইন্সপেক্টর জাফর ইকবাল জানান, গ্রেফতারকৃতরা প্রায়ই গভীর রাতে মহিলাদের কৌশলে ডেকে নিয়ে শ্লীলতাহানি করতো। খুনিরা নিয়মিত ইয়াবা সেবন করত। গত ২৬ জানুয়ারি রাতে খাদিজাকে হত্যা করে লাশ বস্তাবন্দি করে নির্মাণাধীন বাড়ির নিচ তলার একটি রাথ রুমে রেখে দেয়। বস্তায় ভরার আগে তারা লাশ ধারালো অস্ত্র দিয়ে কয়েক টুকরা করে। এরপর বস্তাবন্দি লাশ ফেলে দেওয়া হয় ৩০ জানুয়ারি রাতে। অপর দিকে আমেনাকে হত্যা করে ৬ জানুয়ারি। লাশ ফেলতে বের হলে মহল্লার কয়েকটি কুকুর তাদের পিছু নেয়। এ অবস্থায় তারা ঐ দিন লাশ ফেলতে পারেনি। ঘটনার ৫ দিন পর বস্তাবন্দি লাশ রাস্তার পাশের ড্রেনে ফেলে রাখে। পুলিশ ১২ জানুয়ারি আমেনার লাশ উদ্ধার করে।
এক সন্তানের জননি নিহত আমেনা বেগম উত্তরার ১৪ নম্বর সেক্টরের ২০/১৮ নম্বর রোডের ৯১ নম্বর বাড়িতে কাজ করতেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার বাসা তুরাগ এলাকার এক বস্তিতে। অপর দিকে দুই সন্তানের জননি খাদিজা বেগমের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের পূর্ব ধবাইল হালুয়াঘাটে। তিনি উত্তরার বিভিন্ন মেস ও বাসায় রান্নার কাজ করতেন।
উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ