• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:২৯ অপরাহ্ন |

উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বাম দল

ECনিউজ ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করলেও উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে দেশের প্রধান বাম রাজনৈতিক দলগুলো। দলগুলোর অর্ধশতাধিক প্রার্থী ইতিমধ্যেই নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েছেন। তিন দফায় অনুষ্ঠেয় ২৯৮টি উপজেলার কয়েকটিতে এসব প্রার্থীদের অনেকে জোরালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলতে পারবেন বলেও মনে করা হচ্ছে।

নির্বাচন কমিশন ঘোষিত ১৯ ও ২৭ ফেব্রুয়ারি এবং ১৫ মার্চ তিন দফায় অনুষ্ঠেয় উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান- এ তিন পদেই কমবেশি প্রার্থী রয়েছে এসব বাম দলের। দেশের অন্যতম দুই বামপন্থি জোট সিপিবি-বাসদ এবং আটটি বাম দলের সমন্বয়ে গঠিত গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার ব্যানারেই মূলত প্রার্থী হয়েছেন তাঁরা।

এর মধ্যে ১৯ ফেব্রুয়ারির প্রথম দফার ৯৮ (২৪ ফেব্রুয়ারির একটিসহ) উপজেলা নির্বাচনের বেশ কয়েকটিতে প্রার্থী দিয়েছে এসব দল। ২৭ ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় দফার ১১৭টি উপজেলায় চলমান মনোনয়নপত্র দাখিল প্রক্রিয়ায়ও অনেকে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। আবার ১৫ মার্চের তৃতীয় দফার ৮৩টি উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণের প্রস্তুতি রয়েছে কারো কারো। সব মিলিয়ে বেশ জোরেশোরেই উপজেলা নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন এসব দলের প্রার্থীরা।

এর আগে ৫ জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সব দলের অংশগ্রহণ ছাড়া ‘একতরফা’ ও ‘প্রহসনের’ নির্বাচন আখ্যা দিয়ে ওই নির্বাচন বর্জন করেছিল এসব বাম দল। তবে এবার বর্তমান সরকারের অধীনেই উপজেলা নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে মাঠে নেমেছে তাঁরা।

বাম নেতারা অবশ্য বলছেন, স্থানীয় সরকারের নির্বাচন হওয়ায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সরকার গঠন কিংবা পরিবর্তনে প্রভাব ফেলে না। তাছাড়া তারা স্থানীয় সরকার তথা জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাসী। এ কারণে স্বশাসিত ও শক্তিশালী স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের অংশ হিসেবেই উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তাঁরা।

জানা গেছে, সিপিবি-বাসদ জোট থেকে বিভিন্ন উপজেলার চেয়ারম্যান পদে যারা প্রার্থী হয়েছেন অথবা ১৫ মার্চের তৃতীয় দফার নির্বাচনে প্রার্থী হবেন তাদের মধ্যে রয়েছেন রংপুরের কাউনিয়ায় রফিকুল ইসলাম, নেত্রকোনার দুর্গাপুরে আবদুল্লাহ হক, ফরিদপুরের ভাঙ্গায় বর্তমান চেয়ারম্যান সুধীন সরকার মঙ্গল, খুলনার পাইকগাছায় কৃষষ্ণ পদ মন্ডল, বাগেরহাটের মংলায় নূর আলম শেখ, গাইবান্ধা সদরে মিহির ঘোষ, নওগাঁর মহাদেবপুরে কালীপদ সরকার, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে হারুনুর রশীদ, যশোরের চৌগাছায়  আবদুল মালেক, কুড়িগ্রামের রৌমারীতে আবুল বাশার মঞ্জু, কিশোরগঞ্জ সদরে অ্যাডভোকেট মাসুদ মিয়া, ফেনীর দাগন ভূইঞায় অর্জুন দাসসহ অনেকেই।

ভাইস চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হচ্ছেন, খুলনার দিঘলিয়ায় শেখ আতিয়ার রহমান, পাইকগাছায় সুভাষ সানা মহিন, পঞ্চগড়ের বোদায় আলী মোর্তজা, ফরিদপুরের নগরকান্দায় হাফিজুর রহমান, মধুখালীতে অ্যাডভোকেট মানিক মজুমদার, জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে আল আমীন, কালাইয়ে শফিউল বারী রাসেল, গাইবান্ধা সদরে গোলাম রাব্বানী, রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে আলফাজ হোসেন যুবরাজ, লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে আবদুল মজিদ প্রমূখ।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে এই জোটের প্রার্থীরা হচ্ছেন, ময়মনসিংহ সদরে সাজেদা বেগম সাজু, রংপুরের কাউনিয়ায় শেফালী খাতুন, চট্টগ্রামের পটিয়ায় মাজেদা বেগম শেরু, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে আনোয়ারা বেগম আঙ্গুর, হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে সুফিয়া মজুমদার আলেয়া, দিনাজপুর সদরে বাসন্তী মালাকার প্রমূখ।

গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার শরিক দলগুলো থেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় শংকর সাংমা, পাবনার বেড়ায় জুলহাসনাইন বাবু, পিরোজপুরের কাউখালীতে নিমাই মন্ডল, কুড়িগ্রামের রৌমারীতে আবদুর রাজ্জাক, গাইবান্ধা সদরে আহসানুল হাবীব সাঈদ প্রমূখ।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন ঢাকার দোহারে আবদুল হাকিমসহ অনেকে। মহিলা ভাইস চেয়ারমান প্রার্থীরা হচ্ছেন নীলফামারীর সৈয়দপুরে কামরুন্নাহার ইরা, গাইবান্ধা সদরে নীলুফা ইয়াসমীন শিল্পী প্রমূখ।

জানতে চাইলে সিপিবি’র সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, সব সময়ই তাঁরা গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছেন। জাতীয় নির্বাচন সেই মাত্রায় হয়নি বলেই ওই নির্বাচনে অংশগ্রহণ থেকে বিরত ছিলেন তাঁরা। তবে উপজেলা নির্বাচন সবার অংশগ্রহণে অংশগ্রহণমূলক ও গ্রহণযোগ্য হওয়ায় সেখানে অংশ নিচ্ছেন তাঁরা।

বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেন, জাতীয় নির্বাচন হয় সরকার গঠন ও পরিবর্তনের জন্য। অন্যদিকে স্থানীয় সরকার নির্বাচন হওয়ায় উপজেলা নির্বাচন সরকার পরিবর্তনে কোন প্রভাব ফেলে না। আবার স্থানীয় সরকার তথা জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাসী হওয়ায় এবং উপজেলা পরিষদকে এমপিতন্ত্র ও আমলাতন্ত্রের প্রভাবমুক্ত করার লক্ষ্যেই তাঁরা এই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার অন্যতম নেতা ও বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক জানান, স্বশাসিত ও জনগণের প্রতিনিধিত্বমূলক স্থানীয় সরকার গড়ে তোলা এবং একে জনগণের কাছে দায়বদ্ধ করার আন্দোলনের অংশ হিসেবেই উপজেলা নির্বাচনে যাচ্ছেন তাঁরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ