• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৫৭ অপরাহ্ন |

চার আইনপ্রণেতার বেআইনি কাজ

66383_1নিউজ ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদের চারজন সাংসদ পৌর মেয়রের পদ ছাড়েননি। ওই পদে থেকে তাঁরা গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। এখন তাঁরা দুই পদই আগলে রেখেছেন এবং পৌরসভায় দাপ্তরিক কাজ করছেন।
এই চার সাংসদ হলেন নোয়াখালী-৩ আসনের মামুনুর রশীদ, ফেনী-২ আসনের নিজাম উদ্দিন হাজারী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস ও ভোলা-২ আসনের আলী আজম। তাঁরা যথাক্রমে চৌমুহনী, ফেনী, রোহনপুর ও দৌলতখান পৌরসভার মেয়র।
এই চারজনই সরকারি দল আওয়ামী লীগের সাংসদ। এঁদের মধ্যে মামুনুর রশীদ ও নিজাম হাজারী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।
উচ্চ আদালতের একটি রায়ের সুবাদে এই চার পৌর মেয়র পদে থেকেই সংসদ নির্বাচন করেছিলেন। ওই মামলায় নির্বাচন কমিশনের আইনজীবী ছিলেন শাহদীন মালিক। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, সাংসদ হিসেবে শপথ নেওয়ার পর মেয়র হিসেবে তাঁদের সব কর্মকাণ্ড বেআইনি। সাংসদ ও মেয়র পদসংক্রান্ত আইন তাঁদের বোধগম্য না হওয়াটা দুঃখজনক। স্থানীয় সরকার নির্বাহী বিভাগের অংশ। সংসদ নির্বাহী বিভাগের কাছ থেকে জবাবদিহি আদায় করে। এ পার্থক্য বুঝতে না পারাটা সাংসদ হিসেবে তাঁদের যোগ্যতা ও দক্ষতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে।
গত ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচিতদের নাম গেজেটে প্রকাশিত হয় ৮ জানুয়ারি। সাংসদেরা শপথ নেন ৯ জানুয়ারি। সংসদের প্রথম বৈঠক বসে ২৯ জানুয়ারি। ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সংসদের সাতটি বৈঠক বসেছে। এই চার সাংসদ সব কটি বৈঠকে যোগ দিয়েছেন। একই সঙ্গে তাঁরা অধিবেশন মুলতবির সুযোগে এলাকায় গিয়ে পৌরসভাতেও দাপ্তরিক কাজ করেছেন। এঁদের মধ্যে মামুনুর রশীদ ও নিজাম হাজারী পৌরসভার গাড়িও ব্যবহার করছেন।
পৌরসভা আইনের ১৯/২ ধারায় বলা আছে, কোনো ব্যক্তি অন্য কোনো স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান বা সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে তিনি মেয়র পদে থাকার অযোগ্য হবেন। ওই আইনের ৩৩ ধারায় বলা আছে, কোনো মেয়র সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে মেয়রের পদ শূন্য ঘোষিত হবে।
ফেনী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক এবং নোয়াখালী ও ভোলা অফিস জানিয়েছে, সংসদ অধিবেশন মুলতবি হলে চার সাংসদই নিজ নিজ পৌরসভায় গিয়ে অফিস করছেন। আর্থিক সংশ্লিষ্টতা আছে এমন ফাইলে তাঁরা সইও করছেন। তবে নাগরিক সনদ প্রদানসহ কম গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলোর দায়িত্ব দিয়ে রাখা হয়েছে প্যানেল মেয়রকে।
ফেনী থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী গত ২২ জানুয়ারি পৌরসভার সম্মেলনকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে বলেছিলেন, একসঙ্গে দুই পদে থাকা যাবে।
তবে গতকাল নিজম উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা দ্বিধাদ্বন্দ্বে আছি। আইন যদি বলে মেয়র পদ ছেড়ে দিতে হবে, ছেড়ে দেব।’
নোয়াখালী প্রতিনিধি জানান, চৌমুহনী পৌরসভার দৈনন্দিন কাজগুলো প্যানেল মেয়র মো. শাহাবুদ্দিন করে থাকেন। আর্থিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ নথিগুলো সাংসদ মামুনুর রশীদ তদারকি করছেন। এলাকায় গেলে তিনি পৌরসভার গাড়ি ব্যবহার করেন।
ওই পৌরসভার সচিব কাইয়ুম উদ্দীন জানান, অধিবেশন চালু থাকায় সাংসদ কয়েক দিন এলাকায় ছিলেন না। গতকাল তিনি নোয়াখালী এসেছেন। জমে থাকা ফাইলপত্রে সই করার জন্য আজ শনিবারও অফিস খোলা রাখা হবে।
ভোলা-২ আসনের সাংসদ আলী আজম প্রথম আলোকে বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, একসঙ্গে দুটি পদে থাকা যায় না। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করেছি। তারা বলেছে, অপেক্ষা করতে। স্থানীয় সরকার বিভাগ আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত চেয়েছে। মতামত আসার পর স্থানীয় সরকার বিভাগ যা বলবে, সে অনুসারে সিদ্ধান্ত নেব।’
তবে স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আশোক মাধব রায় প্রথম আলোকে বলেন, ‘আইনে স্পষ্ট বলা আছে, পৌর মেয়র যারা সাংসদ হয়েছেন, তাঁদের পদত্যাগ করতে হবে। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত চাওয়া হয়েছে কি না, তা আমার জানা নেই।’
চার সাংসদই মনে করেন, পৌর মেয়রের পদ লাভজনক কি না, এ সম্পর্কিত হাইকোর্টের রায় অনুযায়ী তাঁরা দুটি পদেই থাকতে পারবেন। সে জন্য তাঁরা এখনো পদত্যাগ করেননি।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের সাংসদ গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদককে বলেছেন, ‘পৌরসভা মেয়রের পদ লাভজনক নয়। এ বিষয়ে উচ্চ আদালতের রায় আছে। সে জন্য আমরা পদে থেকে নির্বাচন করতে পেরেছি। সুতরাং এখন মেয়র পদে থাকলে কোনো সমস্যা নেই।’
কমিশন সচিবালয়ের আইন শাখা জানায়, ২০০৯ সালে নির্বাচন কমিশন ঝিনাইদহ-৩ আসনের সাংসদ শফিকুল আজম খান, নড়াইল-১ আসনের কবিরুল হক এবং সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ নাসরিন জাহানের সদস্যপদের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে তাঁদের নোটিশ দেয়। কারণ, তাঁরা পৌর মেয়র পদে থেকে সংসদ সদস্য পদে নির্বাচন করেছিলেন।
এরপর তিন সাংসদ কমিশনের নোটিশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন। ২০১৩ সালে রায়ে হাইকোর্ট বলেছেন, পৌর মেয়ররা পদে থেকে নির্বাচন করতে পারবেন।
কমিশন সচিবালয়ের কর্মকর্তারা বলেন, স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইনে বলা আছে, পৌর মেয়ররা সাংসদ নির্বাচিত হলে তাঁদের পদ শূন্য ঘোষিত হবে। এর ব্যাখ্যা এসেছে, তাঁরা মেয়র পদে থেকে নির্বাচন করতে পারবেন।
জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনার আবদুল মোবারক প্রথম আলোকে বলেন, আদালত বলেছেন, মেয়র পদে থেকে নির্বাচন করতে পারবেন। তার অর্থ তো এই নয়, নির্বাচিত হওয়ার পরও তিনি একসঙ্গে দুটি পদে থাকতে পারবেন। অবশ্যই তাঁকে একটি পদ ছেড়ে দিতে হবে।
তবে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এখন সংক্ষুব্ধ কেউ আদালতের শরণাপন্ন হলে সংসদ সদস্য পদ নিয়েও জটিলতা তৈরি হতে পারে।
উৎসঃ   নতুনবার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ