• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন |

অবহেলা ও পরিকল্পনার অভাবে ডুবতে বসেছে কৃষি ব্যাংক

Rajshahi-Krishi-Unnayan-Bankঅর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক: কর্মকর্তাদের অবহেলা ও পরিকল্পনার অভাবে ডুবতে বসেছে বিশেষায়িত বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক। বর্তমানে ব্যাংকটির ৯৯৮ শাখার মধ্য ১৯২ টি লোকসানী। এটি যেকোনো ব্যাংকের জন্য অশনি সংকেত বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

জানা গেছে, সম্প্রতি ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের এক সভায় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। বিষয়গুলোর মধ্যে ছিল- কেপিআই (কি পারফরমেন্স ইন্ডিকেটর) ঋণ বিতরণ, ঋণ আদায়, আমানত সংগ্রহ, অনাদায়ি স্থাপিত সুদ, শ্রেণিকৃত ঋণ, আয়-ব্যয় ও লাভক্ষতি, মুনাফা অর্জনকারী শাখার তথ্যাদি, খাতওয়ারী ঋণ বিতরণ, আমদানি ব্যবসা, আমদানি ও রফতানি ব্যবসা এবং রেমিট্যান্স প্রবাহ চিত্র।

আলোচনায় উল্লেখ করা হয়, ব্যাংকের প্রতিটি স্তর অর্থাৎ প্রধান কার্যালয়, স্থানীয় মুখ্য কার্যালয়, বিভাগীয় কার্যালয়, মুখ্য ও আঞ্চলিক কার্যালয় ও শাখার প্রধানদের তাদের নিজ নিজ কার্যালয়ের আয়-ব্যয়, লাভ-ক্ষতির প্রকৃত অবস্থান জানতে হবে।

বলা হয়, পারফরমেন্সের ভিত্তিতে সব কার্যালয়ের প্রধানদের মূল্যায়ন করা যেতে পারে। বর্তমানে ব্যাংকটির ১৯২টি শাখা অলাভজনক বা লোকসানি। এ অলাভজনক শাখাগুলোকে নিবিড় তদারকির মাধ্যমে লাভজনক পর্যায়ে উন্নীত করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে।

জানা গেছে, আর্থিক সূচকগুলোর অবনতির পাশাপাশি বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে লোকসানী শাখার সংখ্যা। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ হিসেব অনুযায়ী, শতভাগ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এ ব্যাংকটির লোকসানী শাখা এখন ১৯২ টিতে দাঁড়িয়েছে। যেখানে মোট শাখার সংখ্যা প্রায় এক হাজার।

জানা গেছে, সরকার দলীয় লোকেরা বিভিন্নভাবে ঋণ নিয়ে পরিশোধ না করার কারণেও ব্যাংকগুলোর লোকসানের অন্যতম কারণ। তারা ঋণ নিয়ে পরিশোধ করছে না। ব্যাংকের পক্ষ থেকে চাপ দেয়া হলেও সেটা তারা আমলে নেন না। উল্টো ব্যাংকের কর্মকর্তাদের নানাভাবে ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন।

এ অবস্থায় বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, আর্থিক সূচকগুলোর পর্যায়ক্রমে উন্নয়নের পাশাপাশি লোকসানী শাখা কমিয়ে আনার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। এ জন্য কঠোর  নজরদারির আওতায় আনা হচ্ছে ব্যাংকটিকে।  এতে করে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের ক্ষমতা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে  যেসব শাখার প্রধানদের কর্মদক্ষতা সন্তোষজনক নয়  তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার চিন্তা ভাবনা চলছে।

ব্যাংকের আয়ের প্রধান উৎস ঋণখাতের ব্যবস্থাপনায় দুর্বলতার কারণে এর আর্থিক অবস্থা সঙ্কটজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে। সুষ্ঠু তদারকি ও আদায় কাজে শিথিলতার কারণে ঋণ আদায়ে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। ফলে বিপুল পরিমাণ ঋণ মেয়াদোত্তীর্ণ /শ্রেণিকৃত হয়েছে বা হচ্ছে। এতে ব্যাংক কাঙ্ক্ষিত সুদ আয় থেকে বঞ্চিত হয়ে লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছে। এ অবস্থার অবসানকল্পে ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর বিধান ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারের নির্দেশনা পরিপালনের ক্ষেত্রে যত্নশীল হয়ে শক্তিশালী ও দক্ষ ঋণব্যবস্থা গড়ে তোলা আবশ্যক। ঋণ কার্যক্রমে সব স্তরে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি প্রতিষ্ঠা করা একান্ত আবশ্যক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক নির্বাহী পরিচালক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বেসরকারি ব্যাংকগুলো যেখানে কঠিনভাবে ব্যবসা করছে সেখানে সরকারি ব্যাংকগুলো লোকসান করছে। এটা হতে পারে না। কারণ ব্যাংককিং ব্যবসা এখন খুবই ভালো। তিনি বলেন, যেসব শাখা লোকসান করছে তাদের জবাব নিতে হবে। কি কারণে হলো সেটা খুঁজে বের করতে পারলে অনেক সমস্যার সমাধান হবে। এজন্য তিনি সরকারের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতা কামনা করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ