• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৬:০৮ অপরাহ্ন |

কাপাসিয়ায় নির্বাচন বুধবার: আ’লীগে কোন্দল, বিজয়ের আশা বিএনপির

01
হাজিনুর রহমান শাহিন, গাজীপুর: বুধবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে কাপাসিয়া উপজেলা নির্বাচন। স্থানীয় সরকার পরিষদের এ নির্বাচনটি দলীয় নির্বাচন না হলেও  প্রধান প্রধান রাজনৈতিক দল তাদের সমর্থিত প্রার্থী মনোনয়ন দিয়ে নির্বাচিত করার জন্য মরিয়া হয়ে নির্বাচনী প্রচারনা চালাচ্ছেন। নির্বাচনের আর একদিন বাকী। আর তাই শেষ মুহুর্তের প্রচারনায় ভোটারদের সহানুভূতি কামনায় চেষ্টা চালাচ্ছেন প্রার্থী ও তাদের কর্মীরা। কে হবেন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি এ নিয়ে আলোচনা চলছে ভোটারদের মধ্যেও ।   শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে  প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা গ্রহন করেছে নির্বাচন কমিশন।
নির্বাচনকে ঘিরে এলাকায় এখন উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।  পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে সমগ্র উপজেলা। ভোটারদের কাছে গিয়ে ভোট ও সমর্থন কামনা করে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন প্রার্থী ও তার সমর্থকরা। ভোটাররাও মাথায় হাত বুলিয়ে প্রার্থীদের আশ্বস্ত করছেন।
এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী,  ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জনসহ মোট ৯  প্রার্থী  প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে নির্বাচন নিয়ে বড় দুই দলের প্রার্থী নিয়ে রয়েছে আলাদা অবস্থান। প্রার্থী নিয়ে সঙ্কট, বিদ্রোহী প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে নানা গুঞ্জন ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। আওয়ামী সংগঠনের এ সংকটকে  কাজে লাগিয়ে একক প্রার্থী থাকায় আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে ফায়দা নিতে চাইছে বিএনপি। এ কারণে বিদ্রোহী প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের গলার কাটা হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মনে করছেন সাধারণ ভোটাররা। যদিও বিদ্রোহী প্রার্থী আওয়ামী লীগের জন্য কোনো মাথা ব্যথা নয় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোতাহার হোসেন মোল্লা।
তিনি জানান, বিদ্রোহী প্রার্থী এ নির্বাচনে কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না। তাই তৃণমুল নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটারদের ভোট তিনি পাবেন বলে আশা প্রকাশ করেন। অপরদিকে নির্বাচন নিরপেক্ষ হলে উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার ব্যপারে শতভাগ আশা ব্যক্ত করেছেন বিএনপি সমর্থতি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী খন্দকার আজিজুর রহমান পেরা।
সূত্র জানায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি নিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পাল্টাপাল্টি বহিষ্কারকে কেন্দ্র করে নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম অসন্তোষ ও অভ্যন্তরীণ কোন্দলের সৃষ্টি হয়েছে। এ কোন্দলের ফাঁকে বিএনপি নিজেদের ঘর ঘোছানোর কাজে ব্যস্ত রয়েছে। বিএনপি দলীয় প্রার্থী নিয়ে অভ্যন্তরীণ কোন্দল না থাকায় ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে দলটি। তাই এ নির্বাচনে  বিজয় ছিনিয়ে আনতে মরিয়া হয়ে কাজ করে যাচ্ছে নেতাকর্মীরা। বর্তমানে কাপাসিয়াতে আওয়ামী লীগের সভাপতি পক্ষের একটি অংশ দলীয় মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছে। আর সাধারণ সম্পাদক আরিফ গ্রুপের পক্ষে অপর একটি দল সম্পূর্ণ নীরব ভূমিকায় রয়েছে।  দলীয় কোন্দলের কারণে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন দুই জন।
আওয়ামী লীগের উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বাংলাদেশ কৃষকলীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়াম্যান মোতাহার হোসেন মোল্লা (দোয়াত কলম) ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক রুহুল আমীন (মোটর সাইকেল) এবং ভাইস চেয়ারম্যান পদে গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগ ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক আমানত হোসেন খাঁন (উড়োজাহাজ) এবং অ্যাডভোকেট রেজাউর রহমান লস্কর মিঠু (তালা), মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে রওশন আরা সরকার (ফুটবল) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। বিএনপি থেকে একক প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে বিএডিসির সাবেক মহাসচীব ও গাজীপুর জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি খন্দকার আজিজুর রহমান পেরা (আনারস) ভাইস চেয়াম্যান পদে ইস্কান্দার আলম জানু (জাহাজ) এবং মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান পদে কাপাসিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো খলিলুর রহমানের সহধর্মিনী শামসুননাহার ডেইজী (কলসী) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অপরদিকে কাপাসিয়া উপজেলা জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা শেফাউল হক ভাইস-চেয়ারম্যান পদে (বই) প্রতীকে নির্বাচন করছেন।
উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল ঘুরে ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী থেকে মূল প্রতিদ্বন্ধিতা হবে বড় দু’দলের প্রার্থী মোতাহার হোসেন মোল্লা ও খন্দকার আজিজুর রহমান পেরার মধ্যে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রতিযোগীর মধ্যে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জামায়াত প্রার্থীর মধ্যে মূলপ্রতিযোগিতা হবে বিদ্রোহী প্রার্থী আমানত হোসেন খানের সঙ্গে।
৩৫৬ দশমিক ৯৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিস্তৃত উপজেলায় মোট ভোটার  ২ লাখ ২৯ হাজার ৫৪০ জন। যাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ১১ হাজার ৫৮৮ এবং মহিলা ভোটার সংখ্যা- ১ লাখ ১৭ হাজার ৯৫২ জন। মোট ভোট কেন্দ্র- ১১৭টি, গোপন ভোট কক্ষ হবে -৫০৫টি। আসন্ন এ নির্বাচনকে সামনে রেখে সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে নির্বাচন কমিশন। এ ব্যপারে সহকারী রির্টানিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলাউদ্দিন আলী জানান, সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহনযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রশাসন থেকে সবধরণের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে  প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং ও পুলিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ