• মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৪:৩০ অপরাহ্ন |

কোটিপতি হতে চায়, তারা ব্যবসা বুঝে না- শিল্পমন্ত্রী

amir hossainনিউজ ডেস্ক: শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বর্তমান বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে পণ্যের যথাযথ মান বজায় রাখার জন্য দেশের ব্যবসায়ীদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী হঠাৎ কোটিপতি হতে চায়, তারা ব্যবসা বুঝে না। নৈতিকতার অভাবে তাদের ব্যবসায়িক মূল্যবোধ থাকে না। তাদের জন্য প্রকৃত ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়ে। দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ বিশেষ করে ভূগর্ভস্থ প্রাকৃতিক সম্পদ উত্তোলনে নিজেদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে তা যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে।

রোববার সকালে রাজধানীর মতিঝিলে ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি (ডিসিসিআই) মিলনায়তনে শিল্প মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ এ্যাক্রেডিটেশন বোর্ড, ডিসিসিআই এবং বিজনেস ইনিশিয়েটিভ ডেভেলপমেন্ট (বিল্ড) এর যৌথভাবে আয়োজিত ‘রফতানি বৃদ্ধিতে এ্যাক্রেডিটেশনের ভূমিকা’- শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।

ডিসিসিআই সভাপতি মোহাম্মদ শাহজাহান খানের সভাপতিত্বে সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বিএবি’র মহাপরিচালক আবু আব্দুল্লাহ, বিল্ড এর চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহীম, শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ফরহাদ আহমেদ, ডিসিসিআই সহ-সভাপতি ওসামা তাসির প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএবি পরিচালনা পরিষদের সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এম লিয়াকত আলী।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, বর্তমান বিশ্ব প্রতিযোগিতামুলক বিশ্বে টিকে থাকতে হলে সত্যিকারের ব্যবসায়ী মানসিকতা রাখতে হবে। তাহলেই বিশ্ববাজারে আমাদের সম্মান বৃদ্ধি পাবে। তিনি বলেন, আমাদের দেশ থেকে যেসব পণ্য রফতানি হয় সেগুলোর আন্তর্জাতিক মান বজায় রাখা খুব গুরুত্বপূর্ণ। মান নিয়ন্ত্রণে এ্যাক্রেডিটেশনের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ উল্লেখ করে তিনি বলেন,  সঠিক মান নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে শিল্পায়নে আন্তর্জাতিকভাবে মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব।

দেশের কি সম্পদের প্রতি বিদেশীদের লোলুপ দৃষ্টির কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, সমুদ্র নিয়ে সমস্যাগুলোর এটা বড় কারণ। সমুদ্রের সমস্যা দূর করতে না পারলে আমাদের সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত আসতে পারে বলেও আশংকা প্রকাশ করেন তিনি।

আমির হোসেন আমু বলেন, দুশ’ মিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানির মাধ্যমে বাংলাদেশের রফতানি বাণিজ্যের যাত্রা শুরু হলেও  এখন তা ২৭ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমানে বিশ্বের ১৮৮টি দেশে বাংলাদেশের ৭০৫টি পণ্য রফতানি হচ্ছে। রফতানির এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে দেশে এ্যাক্রেডিটেশন ল্যাবরেটরির সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে।

মোহাম্মদ শাহজাহান খান বলেন, দেশের সুষম অর্থনীতির পাশাপাশি প্রতিটি মানুষের সুস্বাস্থ্য ও জীবন মানের উন্নয়নও জরুরি। পণ্যের আন্তর্জাতিক মান সংরক্ষণের ওপর এর বাস্তবায়ন অনেকাংশে নির্ভরশীল উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোয়ালিটির বিষয়টি এখন সারাবিশ্বে আলোচিত বিষয়।

বাংলাদেশী রফতানি পণ্যের গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধিতে দেশে স্থাপিত টেস্টিং ল্যাবরেটরিগুলোতে এ্যাক্রেডিটেশন সুবিধা নিশ্চিত করা এবং আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণে এর সনদ খুব গুরুত্বপূর্ণ।
আলোচনায় বক্তারা বলেন, পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে এ্যাক্রেডিটেশন খুবই প্রয়োজনীয়। দেশে পণ্যের গুণগত মান নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হলে বিদেশীদের ওপর নির্ভরশীল হতে হবে না। এর মাধ্যমে আমাদের রফতানি পণ্যের তালিকা বৃদ্ধি পাবে।

এছাড়া বাংলাদেশী পণ্য ভারতে রফতানির ক্ষেত্রে সেদেশের সরকার নির্ধারিত মান বজায় রাখতে হবে। এজন্য বাংলাদেশের টেস্টিং ল্যাবগুলোর আন্তর্জাতিক মান অর্জন জরুরী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ