• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৫:০৭ অপরাহ্ন |

চোরের ওপর বাটপারি!

image_77539_0ঢাকা: যশোর থেকে সোনা ও ডলারের একটি চালান পাচারের জন্য ঢাকা নিয়ে আসেন দুই চোরাকারবারি। কিন্তু তাদেরই একজন চালানটি পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেন। এখানে আবার ধান্দা করে পুলিশ। এক এএসআই বিষয়টি গোপন রেখে চালানটি আত্মসাৎ করার পরিকল্পনা করেন। এর সঙ্গে আরো ছিলেন সাবেক এক সেনা সদস্য ও দুই সোর্সসহ কয়েকজন। যারা নিজেদের পুলিশের সিভিল টিম বলে পরিচয় দেয়। উদ্দেশ্য ছিল চালানটি ভাগভাটোয়ারা করে নেয়া। কিন্তু চোরের ওপর এই বাটপারি করতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত আম ছালা দুটোই হারিয়েছে ওই পুলিশ কর্মকর্তা। তাদের হাতেনাতে আটক করেছে র‌্যাব।
দীর্ঘদিন ধরে এমন অপকর্ম করে আসছিলেন সাভার থানার ওই এএসআই ফায়জুল ইসলাম। তার সঙ্গে আটক সাবেক সেনা সদস্য হলেন মো. রেজাউল, দুই সোর্স সুজন ও মিরান খান।
র‌্যাব-৪ এর একটি দল তাদের হাতেনাতে আটক করে। তাদের কাছ থেকে নগদ টাকা, পুলিশের রিভলভার, একটি পিস্তল, হ্যান্ডক্যাপ, ছুড়ি ও মোবাইল উদ্ধার করা হয়।
র‌্যাব জানায়, গতকাল শুক্রবার গভীর রাতে আশুলিয়া এলাকায় যশোর থেকে সোনা ও ডলারের চালানটি আসে ঢাকায়। এই পাচার আত্মসাত করতে গিয়ে র‌্যাবের হাতে আটক হন সাভার থানার এএসআই ফায়জুল ইসলাম, সাবেক সেনাসদস্য ও দুই সোর্স। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে আটক করা হয় চালান বহনকারী চোরকারবারি দলের এক সদস্য ও চালানটির মূল মালিক সাবেক এক ইউপি চেয়ারম্যানকে।
পুরো ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক এটিএম হাবিবুর রহমান বলেন, চোরাকারবারি দলের নেতা সবুর চেয়ারম্যান সোনা ও ডলারের একটি চালান ঢাকায় পৌঁছে দিতে তার দলের সদস্য সামছুল হক ও খোকনকে ঢাকায় পাঠান। তারা যশোর থেকে ঈগল পরিবহনে রওনা দিয়ে পথে গাড়ি পরিবর্তন করে অন্য একটি গাড়িতে সাভার পৌঁছে। কিন্তু চালানটি আত্মসাৎ করার জন্য পরিকল্পনা করেন খোকন। সাভার থানার এএসআই ফায়জুলকে বিষয়টি তিনি জানান। এএসআই ফায়জুল তখন বিষয়টি থানায় না জানিয়ে কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে সিভিল পোশাকে সামছুল হককে আটক করার জন্য যান এবং সামছুল হককে গাড়ি থেকে নামিয়ে চালানটি হাতিয়ে নেন।
পুলিশ পরিচয়ে সামছুল হককে অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় ঘটনাস্থলে র‌্যাব-৪ এর একটি দল পৌঁছলে এএসআই ফায়জুল নিজেকে সাভার থানার এএসআই পরিচয় দিলেও বাকিরা সঠিক পরিচয় দিতে পারেনি। ফায়জুল সামছুল হককে আটকের ব্যাপারে সঠিক তথ্য দিতে ব্যর্থ হলে র‌্যাব তাকেসহ সহযোগী সাবেক সেনাসদস্য রেজাউল হক, পুলিশের সোর্স সুজন শেখ, ও মিরান খানকে আটক করে।
ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে পাচারকারী দলের সদস্য খোকন ওরপে সাজ্জাদসহ ৪ থেকে ৫ জন চালানটি নিয়ে পালিয়ে যায়। র‌্যাব-৪ এর ক্যাপ্টেন নাহিদের নেতৃত্বে আরেকটি টিম তাদের পিছু নেয়। ভোরে স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে খবর পেয়ে আশুলিয়া এলাকায় ক্যাপ্টেন নাহিদকে মারাত্মক জখম অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।  তিনি এখন ঢাকা সিএমএইচে চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।
আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, মূলত পাচারকারী দলের সদস্য হলেও খোকন পুলিশের সোর্স হিসেবেও কাজ করেন। অবৈধ মালামাল এভাবে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দিয়ে ভাগ পান। এএসআই ফায়জুলসহ সাভার থানা পুলিশের আরো বেশক’জন কর্মকর্তা এসব কর্মকাণ্ড করেন।
র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসান জানান, বিভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে ও চোরকারবারি দলের কিছু সদস্যের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে সাভার এলাকায় অবৈধ চোরাচালান আটক হয় পুলিশের হাতে। কিন্তু এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা এগুলো ভাগভাটোয়ারা করেন। এসব পুলিশ কর্মকর্তা অপহরণ করে মোটা অঙ্কের মুক্তিপণও আদায় করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। উৎস: বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ