• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন |

নিজের স্বেচ্ছাচারিতায় হালহারা এরশাদ

Arsad-11নিউজ ডেস্ক: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ১৯৮৬ সালে গড়া নিজ দল জাতীয় পার্টিকে (জাপা) নিয়ে এখন অনিশ্চিত পথে রয়েছেন। দশম জাতীয় নির্বাচনের পর দলের একক কর্তৃত্ব হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিনি। নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়ে দলে বিভক্তি আনার পর দলের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পেতে নানামুখী তৎপরতাও চালিয়ে যাচ্ছেন এরশাদ। সম্প্রতি রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠানে তিনি নিজেই তাঁর দলে বিভক্তির ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন, ‘তোমরা ফিরে এসো। না হলে আঁস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে।’
জাতীয় পার্টির বিভিন্ন স্তরের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এরশাদ ১৯৯০ সালে রাষ্ট্র শাসনের ক্ষমতা হারানোর পর জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্রে একটি স্বৈরাচারী ধারা (৩৯ ধারা) রেখে ইচ্ছামতো দল চালাচ্ছেন। নিয়মনীতির কোনো বালাই ছাড়াই যাঁকে ইচ্ছা দলে আনছেন ও কেন্দ্রীয় পদ দিচ্ছেন। আবার তাঁর মতের বাইরে গেলে কোনো কারণ দেখানো ছাড়াই দল থেকে বহিষ্কার করছেন। এসব কারণে দলে এরশাদের ঘনিষ্ঠ নেতারাও তাঁর ওপর ত্যক্ত-বিরক্ত।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এরশাদের নির্দেশে প্রথমে দলের নেতারা মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও পরে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন। এ সময় নির্বাচনে বহাল থাকার পক্ষের গ্রুপের নেতৃত্ব দেন স্ত্রী রওশন এরশাদ। তাঁর নেতৃত্বেই এখন জাতীয় পার্টি সংসদের বিরোধী দল। নির্বাচনের পর নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা আর এরশাদের কাছে ভিড়ছেন না। গত ১২ ফ্রেব্রুয়ারি রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠানে এরশাদের আমন্ত্রণে সাড়া দেননি স্ত্রী রওশনসহ দলটির নির্বাচিত ৩০ এমপি। মাত্র চারজন এমপিকে কাছে পেয়ে হতাশা ব্যক্ত করেন এরশাদ।
দলটির নেতারা জানান, একেক সময় একেক কথা বলে দলে ও দলের বাইরে নিজের এক অদ্ভুত চরিত্র ফুটিয়ে তুলেছেন সাবেক এই রাষ্ট্রপতি। তিনি এখনো দলে তাঁর স্বৈরাচারী আচরণ করে যাচ্ছেন। গত নির্বাচনে তাঁর নির্দেশ মানতে গিয়ে ২১৫ জন জাপা প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। রওশনপন্থীরা নির্বাচনে থেকে গিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁরা এখন রওশনকেই তাঁদের নেতা মেনে দলীয় কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। ক্ষুব্ধ এরশাদ ইতিমধ্যে সংসদের বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ তাজুল ইসলাম চৌধুরীকে জাপার দপ্তর সম্পাদক থেকে সরিয়ে অন্য একজনকে দায়িত্ব দিয়েছেন। মনে হচ্ছে তিনি তাঁর কমান্ডের বাইরের নেতাদের শায়েস্তা করতে শুরু করেছেন।
জাপা সূত্রগুলো বলছে, রাডার ক্রয় দুর্নীতি মামলা ও মঞ্জুর হত্যা মামলা নিয়ে এত দিন যতটা না এরশাদ দুশ্চিন্তায় ছিলেন, দল নিয়ে এখন তার চেয়েও বেশি বেকায়দায় রয়েছেন জাপা চেয়ারম্যান। ভেবেছিলেন, নতুন সরকার আসার পর মঞ্জুর হত্যা মামলা থেকে রেহাই পাবেন। কিন্তু ওই মামলা এখন রায় দেওয়ার পর্যায়ে রয়েছে। পাশাপাশি নেতৃত্ব হারাতে শুরু করে মুষড়ে পড়েছেন তিনি।
এরশাদ সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে তাঁর দলের সার্বিক অবস্থার কথা জানিয়েছেন। জবাবে প্রধানমন্ত্রী সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশনের সঙ্গে মিলেমিশে কাজ করার পরামর্শ দেন। এরশাদ ওই পরামর্শ মতো চলছেন না বলে জাপা সূত্র জানিয়েছে। তিনি নতুন কৌশল নিয়ে এগোচ্ছেন। চাইছেন দল থেকে বহিষ্কারের হুমকি দিয়ে নেতাদের আবার তাঁর অনুগত করতে।
জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির এক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, যারা দল নিয়ে এগোতে চান, তাঁরা এখন রওশনকেই তাঁদের নেতা বেছে নিয়েছেন। গত নির্বাচনে নীরবে থেকে রওশন যেভাবে দল গুছিয়েছেন, তাতে সচেতন নেতারা এখন রওশনের অনুমতি ছাড়া অন্য কিছু ভাবছেন না।
এই নেতা বলেন, ‘স্যার (এরশাদ) একেক সময় একেক কথা বলায় তাঁর কথায় এখন কেউ আস্থা রাখতে পারছেন না। তা ছাড়া বয়সের কারণেও তিনি এখন অনেকটা বাস্তবতাবিমুখ। তাঁর অনেক আগেই দলের নেতৃত্ব অন্য কারো হাতে দেওয়া উচিত ছিল।’
সূত্র জানায়, জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হওয়ার পর গণমাধ্যমের সামনে না এলেও নীরবে জাতীয় পার্টিকে সংগঠিত করছেন রওশন এরশাদ। দলের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা এখন জাতীয় পার্টির নেতা হিসেবে রওশনকেই ফলো করছেন। তাইতো প্রায় দেড় মাস হতে চলল, নির্বাচিত এমপিরা এখনো কেউ এরশাদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ পর্যন্ত করতে আসছেন না। কোনো ধরনের যোগাযোগও রাখছেন না।
জাপার আরেকটি সূত্র জানায়, জাপায় এখন ত্রিমুখী নেতৃত্ব চলছে। এরশাদ ও রওশন দুটি ভাগের নেতৃত্বে। কাজী জাফর একটি অংশের নেতা। তবে কার্যত দলের নেতারা এখন রওশনমুখী। সংসদ নির্বাচনে বিজয়ীরা ছাড়াও যেসব নেতা আগামীতে সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পেতে চান তাঁরাও এরশাদকে ছেড়ে রওশনের দ্বারস্থ হচ্ছেন। অন্যরা যাঁরা এরশাদের ঘনিষ্ঠ হিসেবে দলে পরিচিত তাঁরাও গোপনে রওশনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন। জানতে চাইলে এরশাদের এক উপদেষ্টা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা এখন নতুন নেতৃত্ব চাই। গত ২০ বছর দল করে কিছুই পাইনি।’ গত নির্বাচনে হেরে গিয়ে হতাশ এ উপদেষ্টা এখন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ছেড়ে দিয়ে ব্যবসায় মনোযোগী হয়েছেন।
নেতারা বলছেন, এরশাদ নতুন কোনো নাটকীয় ঘটনার জন্ম দিতে না পারলে ভবিষ্যতে রওশনই হবেন জাতীয় পার্টির একমাত্র কর্ণধার।
উৎসঃ   কালের কন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ