• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:৪২ পূর্বাহ্ন |

নিম্নমানের প্রি-পেইড বিদ্যুৎ মিটার কেনার তোড়জোড়

meterঢাকা: বড় ধরনের কমিশন নেয়ার বিনিময়ে পছন্দের কোম্পানির কাছ থেকে উচ্চমূল্যে প্রি-পেইড মিটার কেনার অভিযোগ উঠেছে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিউবো) বিরুদ্ধে। অভিযোগ রয়েছে, বিউবো ও কতিপয় ঠিকাদার কোম্পানির যোগসাজশে একটি শক্তিশালী চক্র তাদের পছন্দের কোম্পানির কাছ থেকে প্রায় ২ লাখ প্রি-পেইড মিটার কেনার উদ্যোগ নিয়েছে। চক্রটি দরপত্রের স্পেসিফিকেশন এমনভাবে তৈরি করেছে যে, তাদের পছন্দের কোম্পানি ছাড়া আর কেউই অংশ নিতে পারবে না। জানা গেছে, শিগগিরই এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হবে।

বিদ্যুৎ সেক্টরের বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, বর্তমানে দেশে বিদ্যুতের কোনো ঘাটতি নেই। কিন্তু মান্ধাতার আমলের বিতরণ ব্যবস্থার কারণে জোড়াতালি দিয়ে বিদ্যুৎ বিতরণ করতে গিয়ে প্রতি বছর সিস্টেম লসের আওতায় বিপুল পরিমাণ বিদ্যুৎ নষ্ট হয়। এছাড়া নিুমানের প্রি-পেইড মিটার আমদানি ও অদক্ষ প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে মিটার নিয়ে বিতরণ লাইনে বসানোর কারণেও সরকার প্রতি বছর বিপুল অংকের টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে। দুর্নীতিবাজ গ্রাহকরা এসব নিুমানের প্রি-পেইড মিটার টেম্পারিং করারও সুযোগ পাচ্ছে। সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য, বর্তমান সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনে বড় ধরনের যে সাফল্য দেখিয়েছে, বিতরণ ব্যবস্থার নানা অনিয়ম-দুর্নীতি, নিম্নমানের প্রি-পেইড মিটার ক্রয় সরকারের এই সাফল্যকে ম্লান করে দেবে। তারা এ অবস্থায় শুধু বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডই নয়, বোর্ডের আওতাধীন সব বিতরণ কোম্পানিকে এ ধরনের অনিয়ম কঠোর হস্তে দমনের পরামর্শ দিয়েছেন। অন্যথা বিদ্যুৎ খাতে বর্তমান সরকারের বড় অর্জন টেকসই ও দীর্ঘস্থায়ী হবে না বলেও হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। একই সঙ্গে এসব অনিয়ম-দুর্নীতি অব্যাহত থাকলে বিশ্বব্যাংক, এডিবিসহ বড় বড় দাতাসংস্থাগুলো বিদ্যুৎ খাতে যেভাবে সহায়তা দিতে শুরু করেছে তাও বন্ধ করে দেবে। মুখ ফিরিয়ে নেবে এসব প্রকল্পে বিনিয়োগেও। এতে ২০১৫ সালের মধ্যে দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে আলো পৌঁছে দেয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে নির্বাচনী অঙ্গীকার তা বাস্তবায়নও হোঁচট খেতে পারে।জানা গেছে, এর আগেও ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি লিমিটেড (ডিপিডিসি) কর্তৃপক্ষ ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারি একটি প্রতিষ্ঠান থেকে সরাসরি কেনার নামে (ডাইরেক্ট পার্সেজ মেথড) ১০ হাজার সিঙ্গেল ফেইজ প্রি-পেইড মিটার আমদানির যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করেছিল। অভিযোগ রয়েছে, এই প্রক্রিয়াটিতে খুবই গোপনীয়তা অবলম্বন করা হয়েছে যাতে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের কেউ জানতে না পারে। জানা গেছে, এই ক্ষেত্রেও তাদের পছন্দের কোম্পানিকে কার্যাদেশ দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।জানা গেছে, ওই সিঙ্গেল ফেইজ মিটার ক্রয়ের জন্য ডিপিডিসি যে কোম্পানিকে কার্যাদেশ দেয়ার পাঁয়তারা করছে, তারা সত্যিকার অর্থে বৈদ্যুতিক মিটার প্রস্তুতকারী কোম্পানি নয়। এছাড়া পিপিআর-২০০৮-এর নির্দেশনা অনুযায়ী ওপেন টেন্ডারিং মেথড (ওটিএম)-এর মাধ্যমে প্রতিযোগিতামূলক বাজার দরে মালামাল ক্রয়ের বাধ্যবাধকতা থাকলেও ডিপিডিসি এই ক্ষেত্রে তাও মানেনি। জানা গেছে, এর আগে বিউবো তাদের সিরাজগঞ্জ প্রজেক্টের জন্য ‘লিনডিস প্লাস গিয়ার’ (lyndis +Gyr) নামের একটি আন্তর্জাতিকমানের কোম্পানির কাছ থেকে প্রতিটি ৮০ মার্কিন ডলারে বেশ কিছু প্রি-পেইড মিটার কিনেছিল। সেখানে অতি গোপনে একটি অদক্ষ কোম্পানির মাধ্যমে চীন থেকে নিুমানের প্রি-পেইড মিটার (সিস্টেমসহ) আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে প্রতিটি ১৬৫ মার্কিন ডলারে। এ খাতে ১ লাখ মিটার আমদানি করলে সরকারের গচ্চা যাবে প্রায় ৭০ কোটি টাকা। জানা গেছে, যেখানে দেশের বড় বড় কোম্পানি চীনা কোম্পানির মালামাল কেনা বন্ধ করে দিচ্ছে, সেখানে সরকারের সবচেয়ে স্পর্শকাতর বিভাগ প্রতিনিয়ত চীনের দিকে ঝুঁকছে। চীনপ্রীতির কারণে এর আগেও বিপিডিবি’র প্রি-পেইড মিটার আমদানির একটি বড় প্রকল্প আলোর মুখ দেখেনি। জানা গেছে, ওই কোম্পানিটি নিুমানের হওয়ায় এখনও ওই প্রকল্পটি প্রক্রিয়াধীন অবস্থায় আছে।ডিপিডিসিকে অনুসরণ করে অন্য একটি বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিও তড়িঘড়ি করে ১০ হাজার প্রি-পেইড মিটার কেনার জন্য মরিয়া। পিপিআর-২০০৮ অনুযায়ী একটি দেশীয় প্রতিষ্ঠান অপর আরেকটি দেশীয় প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে সরাসরি কোনো ধরনের মালামাল কিনতে পারবে যদি তাদের নিজস্ব উৎপাদন ব্যবস্থা থাকে। এরপরও রহস্যজনকভাবে বিতরণ কোম্পানি সরকারি ক্রয় নীতিমালা লংঘন করে বিদেশী একটি কোম্পানির মালামাল ডাইরেক্ট পার্সেজ মেথড (ডিপিএম) প্রক্রিয়ায় কেনার উদ্যোগ নিচ্ছে তা রহস্যজনক।অনুসন্ধানে জানা গেছে, একটি স্থানীয় কোম্পানির প্ররোচনা ও পরোক্ষ সহায়তায় ডিপিডিসির সর্বোচ্চ পর্যায়ের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তার চক্র একটি স্বনামধন্য সরকারি প্রতিষ্ঠানকে ব্যবহার করে বিনা টেন্ডারে চীন থেকে নিুমানের প্রি-পেইড মিটার আমদানির চুক্তি করেছে। শুধু নিুমানেরই নয়, মিটারগুলোর দামও স্থানীয় বাজারের তুলনায় বহুগুণ বেশি।এর আগে ২০১০ সালের ১১ অক্টোবর বিউবো আন্তর্জাতিক দরপত্র (নং-১৫৩০) আহ্বান করে। নিয়ম অনুযায়ী টার্নকি চুক্তি নং-০৯৭৯৩ এর আওতায় সংশ্লিষ্ট দরদাতাকে ডিজাইন, মেনুফ্যাকচারিং, সাপ্লাই, সফটওয়্যার, হার্ডওয়ার এবং মিটার ইনস্টলেশন ও কমিশনিং, প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেমের নেটওয়ার্কিংসহ যাবতীয় সেবা প্রদান বাধ্যতামূলক। ওই বছরের ডিসেম্বর মাসে ওই দরপত্রের কারিগরি অংশটি খোলা হয়। জানা গেছে, সেখানে মাত্র দুটি দরপত্র গ্রহণযোগ্য হিসেবে বিবেচিত হয়। কিন্তু কোনো ধরনের কারিগরি যোগ্যতা ও দক্ষতা না থাকার পরও বিউবো জেবি হেক্সিং নামে একটি কোম্পানিকে ২০১১ সালের ২৩ মে কার্যাদেশ দেয়।অভিযোগ রয়েছে, বাণিজ্যিকভাবে প্রি-পেইড মিটার ইন্টারফেজিং সফটওয়্যার তৈরির বাস্তব অভিজ্ঞতা জেবি হেক্সিং-এর ছিল না। জানা গেছে, গত দুই বছরের বেশি সময় ধরে প্রতিষ্ঠানটি নানা চেষ্টা-তদবির করেও প্রি-পেইড মিটারের ইন্টারফেজিং করতে পারেনি। খোদ বিউবোর বিশেষজ্ঞ কর্মকর্তারা বলেছেন, কার্যাদেশ পাওয়া প্রতিষ্ঠানটি এতটাই অদক্ষ ও অযোগ্য যে, গত ২৬ জানুয়ারি ২০১১ সালে তাদের জমাকৃত স্যাম্পল মিটার প্রদর্শনকালে মিটারের যথাযথ কারিগরি প্রয়োগ পর্যন্ত তারা দেখাতে পারেনি। এছাড়াও অনলাইন প্রি-পেইড মিটার গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্কিং সিস্টেমেও তাদের স্যাম্পল মিটার প্রদর্শনেও ব্যর্থ হয়েছে। তাদের বক্তব্য নতুন ই-মিটারিংয়ের জন্য এই দুটি শর্ত খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু তারপরও একটি চক্র কোটি কোটি টাকা কমিশন বাণিজ্য করার জন্য জেবি হেক্সিং নামের ওই কোম্পানিকে ২০১১ সালে কার্যাদেশ দিয়েছে।জানা গেছে, দরপত্রের ৬(এ) ধারা অনুসারে বিল অব কোয়ান্টিটিজ অনুযায়ী বিউবো গত ২০১২ সালের ২৫ জুন আইডিয়াল জেবি হেক্সিংকে তাদের প্রস্তাবিত কি-প্যাড ও স্মার্ট কার্ড মিটারসহ মোট ৫টি প্রি-পেইড মিটার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের মিটার একটি সাধারণ ভেন্ডিং স্টেশনের অধীনে সফটওয়্যারের সাহায্যে ইন্টারফেজিং করার আহ্বান জানায়। কিন্তু আইডিয়াল জেবি হেক্সিং তাদের প্রস্তাবিত উভয় প্রকার মিটার ইন্টারফেজিং করতে ব্যর্থ হয়। জানা গেছে, ইতিমধ্যে এলসির (লেটার অব ক্রেডিট) মেয়াদও ফুরিয়ে গেছে। কিন্তু জেবি হেক্সিং তাদের মিটার দিতে পারেনি। তারপরও ওই কোম্পানির কাছ থেকে এখনও প্রি-পেইড মিটার কেনার তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে বিউবো। অভিযোগ আইডিয়াল জেবি হেক্সিং মনোনীত বাংলাদেশী সফটওয়্যার কোম্পানিটির বাণিজ্যিকভাবে প্রি-পেইড মিটারের ইন্টারফেজিং সফটওয়্যার তৈরির বাস্তব অভিজ্ঞতা নেই।এদিকে জেবি হেক্সিং এখন তাদের নতুন অপচেষ্টা হিসেবে দরপত্র এবং চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করে আইবিসিএস-প্রাইমেক্স সফটওয়্যার নামে বাংলাদেশী একটি কোম্পানির সফটওয়্যার প্রদানের জন্য বিউবোকে প্রস্তাব দিয়েছে। বিউবো অবৈধভাবে ও নিয়মনীতি ভঙ্গ করে এই প্রস্তাবে সম্মতি দিয়েছে বলে জানা গেছে। বিদ্যুৎ সেক্টরের বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, নির্ধারিত সময়ে প্রকল্পের মালামাল প্রদানে ব্যর্থ হওয়ায় আইন অনুসারে যেখানে পারফরমেন্স গ্যারান্টি বাজেয়াপ্ত করার কথা ছিল সেখানে তাদের প্রস্তাব গ্রহণ করা রহস্যজনক।এদিকে জেবি হেক্সিংকে দেয়া প্রকল্পটি ব্যর্থ হলেও বিউবো তড়িঘড়ি করে আরেকটি নতুন স্পেসিফিকেশন তৈরি করে আরও তিনটি আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করে ১ লাখ ৬৯ হাজার প্রি-পেইড মিটার কেনার পদক্ষেপ নিয়েছে। জানা গেছে, যেখানে বাজারে প্রি-পেইড মিটারের দাম ১২শ’ থেকে ১৪শ’ টাকা সেখানে প্রতিটি মিটার নেয়া হচ্ছে ১২ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা দিয়ে।বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, একটি আবাসিক প্রি-পেইড মিটারে প্রতিমাসে গড়ে ৬০০ টাকা থেকে ১ হাজার টাকা বিল আসে। সেখানে এত দামে একটি মিটার ক্রয় করে ওই গ্রাহককে দেয়া কতটুকু বাস্তবসম্মত হবে? তাদের মতে ইতিমধ্যে বিউবো, পবিবো, ডেসকো, ডিপিডিসি ইলেকট্রো মেকানিক্যাল মিটার দেশীয় ডিজিটাল মিটার প্রতিস্থাপন করে সিস্টেম লস শতভাগ কমাতে সক্ষম হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ডিজিটাল মিটারগুলো দেশীয় প্রতিষ্ঠান এবং প্রি-পেইড মিটারগুলো শুধু বিদেশী প্রতিষ্ঠান সরবরাহ করে থাকে। প্রশ্ন উঠেছে, তারপরও বিউবোর মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ চীন থেকে শত কোটি টাকা বেশি দাম দিয়ে নিুমানের মিটার আমদানি করছে কার স্বার্থে? যুগান্তর।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ