• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন |

মার্চের প্রথম সপ্তাহে বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

electricityঢাকা: গণশুনানি ছাড়াই গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে। এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন বলছে, বিতরণ কোম্পানির ক্ষতি কমাতে আগামী মার্চের প্রথম সপ্তাহে দাম বাড়তে পারে। আর বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গণশুনানি ছাড়া দাম বাড়ানো হলে আইন লঙ্ঘন হবে। এছাড়া চলতি সেচ মৌসুমে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হবে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। সর্বশেষ ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছিল। কিন্তু এর মাত্র তিন মাস পরে বিতরণ ক্ষতি দেখিয়ে আবারও দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছিল ৫টি বিতরণ কোম্পানি। ওই সময় এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন শুনানি করে আবারও দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করলে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে তা বাতিল হয়। বিতরণ কোম্পানিগুলোর ২০১২ সালের দেওয়া পুরোনো প্রস্তাব আমলে নিয়েই এখন আবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।
বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সদস্য ড. সেলিম মাহমুদ জানান, অনেকদিন পর্যন্ত ট্যারিফ আটকে রাখা কিন্তু ভাল জিনিস না। প্রায় এক বছরেও বেশী সময় হয়ে গেছে এর মধ্যে পাঁচটি সেবাদান কারী প্রতিষ্ঠান আমাদের জানিয়েছে যে তারা আর্থিকভাবে ক্ষতির সম্মুক্ষিণ হচ্ছে। এখন আপাতত আইনের দৃষ্টিতে শুনানি না হলেও চলবে। কিন্তু গণশুনানী ছাড়াই দাম বাড়ানো বিইআরসি আইনের সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন বলে জানিয়েছেন কনজিউমার অ্যাসোসিয়েশন ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা।
কনজিউমার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের জ্বালানি উপদেষ্টা জানান, যেটার ভর্তুকির টাকা নিয়ে নেয়া হয়েছে সেই টাকা আবার নতুন করে মূল্যহার বৃদ্ধি করার প্রশ্ন আসে না। এটার আইনি জটিলতা আছে এবং বিআরসি নিজেই নিজের আইন লঙ্ঘন করবে। ঐ প্রস্তাবের ওপর আর কোন সিদ্ধান্ত দেওয়ার সুযোগ নেই। আর বিশেষজ্ঞরা মনে করেন চলতি সেচ মৌসুমের আগে দাম বাড়ানোর হবে অযৌক্তিক। বর্তমানে গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের গড় দাম ৫ টাকা ৭৫ পয়সা। বিতরণ কোম্পানির পুরোনো প্রস্তাবের ভিত্তিতে গড়ে প্রায় দশ শতাংশের মতো খুচরা বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর চিন্তা ভাবনা চলছে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ