• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:০৬ পূর্বাহ্ন |

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ‘জয় বাংলা’

আবদুল মান্নান:

Mannanশুরুতে প্রয়াত বরেণ্য সাংবাদিক ফয়েজ আহমেদের একটি লেখার কিছু অংশের উল্লেখ করতে চাই। লেখাটি প্রকাশিত হয়েছিল ফয়েজ ভাইয়ের মৃত্যুর বছরখানেক আগে সম্ভবত দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায়। ১৯৬৮ সালের কথা। তখন বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে ঢাকা সেনানিবাসে এক বিশেষ ট্রাইব্যুনালে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার শুনানি চলছে। মামলার সংবাদ সংগ্রহ করতে প্রতিদিন নির্বাচিত কিছু সিনিয়র সাংবাদিককে ট্রাইব্যুনালে হাজির থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে ফয়েজ ভাই অন্যতম। সাংবাদিকদের বসার ব্যবস্থা ট্রাইব্যুনালের পেছনের দিকে। একদিনের কথা। বঙ্গবন্ধুসহ মামলার অন্যান্য আসামি কাঠগড়ায় উঠলেন। ঢোকার মুখেই ফয়েজ ভাইয়ের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর চোখাচোখি হয়। তার জন্য নির্ধারিত চেয়ারে বসেই তিনি পেছনের দিকে ফিরে ফয়েজ ভাইকে ডাক দিলেন। ফয়েজ ভাই না শোনার ভান করলেন। চিন্তা করলেন তার সঙ্গে কথা বললে না আবার কোন ঝুট-ঝামেলা হয়। কয়েকবার ডেকেও ফয়েজ ভাইয়ের সাড়া না পেয়ে বঙ্গবন্ধু বেশ উচ্চ গুরুগম্ভীর কণ্ঠে বলে উঠলেন, ‘ফয়েজ, বাংলাদেশে থাকতে হলে শেখ মুজিবের সঙ্গে কথা বলতে হবে’। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ইউটিউবের মাধ্যমে একটি টকশোর বৃত্তান্ত দেখে এতদিন পর হঠাৎ ওই ঘটনাটি মনে পড়ল এবং বঙ্গবন্ধুর স্টাইলে বলতে ইচ্ছে করল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করলে একজন বাঙালিকে ‘জয় বাংলা’ বলতেই হবে । তারপর তিনি ইচ্ছা করলে ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ অথবা ‘জয় হিন্দ’ও বলতে পারেন। অনেক বাঙালি তো বিদেশে গিয়ে সে দেশের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন এবং সে দেশের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে সে দেশের জাতীয় সঙ্গীত আর জাতীয় পতাকাকে নিজের জাতীয় সঙ্গীত আর পতাকা মনে করেন। বিশ্বায়নের এ যুগে তাতে কোনো অসুবিধা দেখি না।
খোঁজ নিয়ে জেনেছি, ওই টক শোটি মাস দুয়েক আগে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। যে চ্যানেলটিতে ওই অনুষ্ঠানটি হয়েছিল তা আবার আওয়ামী লীগের একজন সংসদ সদস্যের মালিকানাধীন একটি চ্যানেল। টক শোতে সঞ্চালক ছাড়া চারজন অংশগ্রহণকারী উপস্থিত ছিলেন। প্রথমজন সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক মোহাম্মদ এ আরাফাত। বেশ সজ্জন ব্যক্তি। যুক্তি দিয়ে কথা বলেন। কখনও উত্তেজিত হতে দেখা যায় না। ব্যক্তিগত জীবনে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। বিশ্বাসে আওয়ামী লীগ ঘরানার। সজীব ওয়াজেদ জয়ের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব আছে বলে জানা যায়। দ্বিতীয়জন আবদুস সালাম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম তথ্য দিচ্ছে, তিনি ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। পরে বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রী হন। বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের ভবিষ্যৎ অন্ধকার হয়ে এলে এরশাদের রাজনৈতিক সাথী হন।

নয় বছর বেশ ভালোই ছিলেন। এরশাদের পতন হলে জাতীয়তাবাদী মন্ত্রে দীক্ষা নেন। তারেক জিয়ার সঙ্গে বেশ সখ্য ছিল বলে জানা গেছে। এক-এগারোর পর সিদ্ধান্ত নিলেন খোলনলচে পাল্টে দলকে সংস্কার করতে হবে। হাজির হলেন মান্নান ভূঁইয়ার দরবারে। সেই দরবার ইতিমধ্যে সমৃদ্ধ করেছেন সাইফুর রহমান, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন, ড. ওসমান ফারুক, সাদেক হোসেন খোকা, জেনারেল (অব.) মাহবুবসহ অনেকেই। মইনুদ্দিন-ফখরুদ্দীনের ছত্রছায়ায় দিনকাল বেশ ভালোই যাচ্ছিল। ২০০৮-এর এক তুমুল ছাত্র আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে মইনুদ্দিন-ফখরুদ্দীনের দুর্গে ফাটল ধরল। কিছুদিন লাপাত্তা থাকার পর সালাম আবার জাতীয়তাবাদী ঘাটে। তবে এখনও ম্যাডামের তেমন একটা কৃপাদৃষ্টি লাভ করতে পারেননি। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে টক শো করে তার দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা চলছে। সেদিনের টক শোও তার অংশবিশেষ বলে ধরে নেওয়া যায়। তৃতীয়জন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য অপু উকিল। মিষ্টভাষী আর সদালাপী। যুক্তি দিয়ে কথা বলার চেষ্টা করেন কিন্তু মাঝে-মধ্যে গলায় জোরের অভাব দেখা যায়। নিজের অবস্থান আঁচ করতে সবসময় পারেন না। বিএনপির সাবেক মহিলা সংসদ সদস্যদের গলাবাজির কাছে অসহায় মনে হয়। চতুর্থ জন মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান। একাত্তরের একজন মুক্তিযোদ্ধা। একসময় জাতীয়তাবাদী রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। সংসদ সদস্যও নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরে ম্যাডামের সমালোচনা করায় দল থেকে বহিষ্কৃত হন। এখন নিয়মিত লেখালেখি করেন। টিভি টক শোতে প্রায়ই দেখা যায়। তবে কোনদিকে কথা বলবেন তা বোঝা যায় না। অনেকটা কানা বক্করের মতো। কানা বক্কর এক সময় ভালো ফুটবল খেলতেন। পরে গাড়ি অ্যাক্সিডেন্টে একটি চোখ নষ্ট হওয়ায় মাঠে নামলে কোনদিকে গোল দেবেন তা বোঝা মুশকিল ছিল। তখন নিজ দলের খেলোয়াড়রা দারুণ টেনশনে পড়ে যেতেন। মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান একদিন খালেদা জিয়াকে তুলাধোনা করেন তো অন্যদিন শেখ হাসিনাকে মাথায় তুলে আছাড় মারেন। আবার পরদিন বলেন, শেখ হাসিনা দশ বছর ক্ষমতায় থাকলেও তার কোনো আপত্তি নেই যদি তিনি দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে পারেন। সঞ্চালক অঞ্জন রায়। বেশ গুছিয়ে কথা বলেন। এক সময় অন্য আরেকটি টিভিতে একটি টক শো সঞ্চালনা করতেন। অনুষ্ঠানে সব বিচিত্র ধরনের আলোচক হাজির করতেন। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হলে বিজ্ঞাপন বিরতিতে যেতেন। নতুন চ্যানেলে সম্ভবত বিজ্ঞাপনের সংখ্যা কম। সে কারণে তার সঞ্চালিত টক শো নিজের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে অসহায় হয়ে পড়েন। অবস্থা খারাপের দিকে গেলে বলেন, ‘প্রিয় দর্শক-শ্রোতা আমরা আমাদের অনুষ্ঠান এখানেই শেষ করছি’। কিন্তু তার কথায় অনুষ্ঠান শেষ হয় না। ক্যামেরা চলতে থাকে আর ট্রান্সমিশনও চালু থাকে। উলি্লখিত অনুষ্ঠানটির অবস্থাও অনেকটা তেমনই ছিল।

যে টক শোটি নিয়ে লেখার সূত্রপাত সেটির এক পর্যায়ে আরাফাত ‘জয় বাংলা’ স্লোগান নিয়ে বলতে গিয়ে বলেন, জয় বাংলা স্লোগানকে যারা আলিঙ্গন করতে পারেন না, তাদের মুক্তিযোদ্ধা বলতে কষ্ট হয়। এতেই ঘটে বিপত্তি। প্রথমে তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান এবং এর পর পরই আবদুস সালাম। সব দর্শক-শ্রোতাকে অবাক করে দিয়ে দু’জনই অত্যন্ত অশালীন, অশোভন, অপ্রত্যাশিত আর দৃষ্টিকটুভাবে আরাফাতকে আক্রমণাত্মক বাক্যবাণে জর্জরিত করতে থাকেন। আরাফাতকে বলতে থাকেন, তিনি যেন তার বক্তব্য প্রত্যাহার করেন, যা প্রত্যাশিতভাবেই আরাফাত প্রত্যাহার করতে অস্বীকার করেন। যাদের ‘জয় বাংলা’ স্লোগান নিয়ে এত আপত্তি আর অ্যালার্জি তাদের মনে থাকা উচিত, এ স্লোগান একাত্তর সালে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় রণধ্বনি ছিল। এই স্লোগান ঊনসত্তরের গণআন্দোলনের সময়ও উচ্চারিত হয়েছে। বাঙালি যখন পশ্চিম পাকিস্তানি আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে লিপ্ত তখন বাঙালি বাঙালিত্বকে উচ্চশিখরে নিয়ে যাওয়ার জন্য এই স্লোগান দেওয়া শুরু করে। এরও অনেক আগে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম তার লেখা প্রবন্ধ ‘বাঙালির বাংলা,’ যেটি ৩ বৈশাখ, ১৩৪৯ বঙ্গাব্দে দৈনিক নবযুগে প্রকাশিত হয়েছিল। সেখানে লিখেছিলেন, ‘বাঙলা বাঙালির হোক! বাঙলার জয় হোক! বাঙালির জয় হোক!’ তিনি একই প্রবন্ধে লিখেছিলেন_ বাঙালিকে, বাঙালির ছেলেমেয়েকে ছেলেবেলা থেকে শুধু এই মন্ত্র শেখাও : “এই পবিত্র বাংলাদেশে/বাঙালির-আমাদের।/দিয়া ‘প্রহারেণ ধনঞ্জয়’/তাড়াব আমরা, করি না ভয়/যত পরদেশি দস্যু ডাকাত/’রামা’দের ‘গামা’দের।”
ধারণা করা হয়, ঊনসত্তরের গণআন্দোলনের সময় ‘জয় বাংলা’ স্লোগানটির উৎপত্তি এখান থেকেই। একাত্তরে রণাঙ্গনে এটি শুধু রণধ্বনিই ছিল না, আমাদের মুক্তি বাহিনীকে বহির্বিশ্বের অনেক জায়গায় চিনত ‘জয় বাংলা’ বাহিনী হিসেবে।

আখতারুজ্জামান আর সালামের নেতা জেনারেল জিয়া ১৯৭৪ সালে সাপ্তাহিক বিচিত্রায় তার লেখা ‘একটি জাতির জন্ম’ লেখাটি শেষ করেছিলেন ‘জয় বাংলা’ দিয়ে। কিন্তু জাতির দুর্ভাগ্য, যে স্লোগান জিয়ার এত প্রিয় ছিল, সে স্লোগান শুনলে তার অনুসারীদের গায়ে এক অজ্ঞাত কারণে জ্বালা ধরে এবং আরাফাতদের ওপর চড়াও হয়। সেদিন ঘটনা সেখানেই থেমে থাকেনি। অঞ্জন সময়ের আগেই অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘোষণা করেন; কিন্তু তাতে থামানো যায়নি সেই দুই বীরপুরুষকে। চলতে থাকে আরাফাতের উদ্দেশে নানা খিস্তি এবং একপর্যায়ে সালাম বলেই ফেলেন টক শো না হয়ে বাইরে হলে দেখে নিতেন। এরপর তিনি অনেকটা জোরপূর্বক আরাফাতকে স্টুডিও থেকে বের করে দেন। মেজর (অব.) আখতার থেকে আরও ভদ্র আচরণ আশা করা গিয়েছিল। বয়সের দিক থেকে আরাফাত তো তার সন্তানতুল্য। আরাফাত ওই মন্তব্য করে কি কোনো অপরাধ করেছেন? তিনি তো বলেননি ‘জয় বাংলা স্লোগান যারা আলিঙ্গন করতে পারেন না তারা মুক্তিযোদ্ধা নন’। এটি বললেও না হয় ওই দুই বীরপুঙ্গবের উত্তেজিত হওয়ার একটা কারণ ছিল। আর এটি তো সত্য, একজন মুক্তিযোদ্ধার সব সময় মুক্তিযোদ্ধা থাকাটা খুবই কঠিন। এই দীর্ঘ চলি্লশ বছরে কত মুক্তিযোদ্ধা রাজাকার হলো; কিন্তু একজন রাজাকারও মুক্তিযোদ্ধা হয়নি। এ বাস্তবতা তো মেনে নিতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করলে ‘জয় বাংলা’তেও বিশ্বাস করতে হবে। আশা করি এরপর থেকে টক শোর প্রযোজকরা
তাদের অতিথি বাছাইয়ের সময় আরও যত্নবান হবেন।

সাবেক উপাচার্য, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ