• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:২৯ অপরাহ্ন |

সরকারি বাসা ছাড়ছেন না দিলীপ বড়ুয়া

Dilipনিউজ ডেস্ক: মন্ত্রিত্ব গেছে অনেক আগেই। মাঝে কিছুদিন ছিলেন নির্বাচনকালীন সরকারের উপদেষ্টা। তাও গত হয়েছে অনেকদিন হলো। কিন্তু এখনও সরকারি বাসা ও গাড়ি ছাড়েন নি সাম্যবাদী দল নেতা দিলীপ বড়ুয়া।
পিকিংপন্থী হিসেবে পরিচিত এই বামনেতা জোর করেই দখল করে রেখেছেন বেইলি রোর্ডের ৪ নম্বর বাংলোটি। শনিবার বিকেলেও বাসাটিতে তার পরিবারের অবস্থান নিশ্চিত হওয়া গেছে।
বিকেল ৩টায় ৪ নম্বর বাসায় গিয়ে দিলীপ বড়ুয়াকে পাওয়া যায় নি। বাসার নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার সদস্য জগদীশ জানান, তিনি সকাল ১০টার দিকে বেরিয়েছেন। কখন ফিরবেন জানেন না। দিলীপ বড়ুয়ার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে আনসার সদস্য গেট না খুলেই অনুমতি আনার জন্য বাসার ভেতরে চলে যান। বেরিয়ে আসেন কয়েক মিনিট পর। তার কয়েক মিনিট ব্যবধানে আসেন দিলীপ বড়ুয়ার ব্যক্তিগত কেয়ারটেকার আনিস।
আনিস জানান, বাসার অন্য কেউ কোনো কথা বলবে না। জরুরি কথা থাকলে রাতে স্যার (দিলীপ বড়ুয়া) ফিরলে যোগাযোগ করতে হবে।
দিলীপ বড়ুয়া সরকারি বাসা কবে ছাড়বেন জানতে চাইলে আনিস জানান, কবে ছাড়বেন আমি জানি না। এমন কোনো আলোচনাও আমি শুনতে পাইনি। আনিস আরও জানান, দিলীপ বড়ুয়া দু’টি গাড়ি ব্যবহার করেন। যার একটি নিয়ে বাইরে গেছেন। আরেকটি বাসায় রয়েছে। বাসায় কোন গাড়িটি রয়েছে জানতে চাইলে জবাব দেন নি। এসময় গেটের ফাঁক দিয়ে বাসার ভেতরে মন্ত্রিত্ব থাকাকালীন ব্যবহার করা কালো রঙের গাড়িটি পার্ক করে রাখতে দেখা গেছে।
বাসা না ছাড়ার তালিকায় আরও ছিলেন নির্বাচনকালীন সরকারের খাদ্যমন্ত্রী রমেশ চন্দ্র সেন ও স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু। তারা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সরকারি বাসা ছেড়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।
বেইলি রোডের ২৪ নম্বর বাড়িতে থাকতেন রমেশ চন্দ্র সেন। বাড়িটি এবার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার নামে। কিন্তু রমেশ চন্দ্র সেন না ছাড়ায় মায়া উঠতে পারছিলেন না।  বৃহস্পতিবার রমেশ চন্দ্র সেন ছাড়ার পর শুক্রবারেই সংস্কার কাজ শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পিডব্লিউডির কর্মচারী সোহাগ মিয়া।
সংস্কার শেষ হলেই মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া উঠবেন বলে জানা গেছে। অন্যদিকে বেইলি রোডের মিনিস্টার অ্যাপার্টমেন্টে ১ নম্বর ভবনের ৪ নম্বর ফ্লাটে থাকতেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু।
বার বার বলার পরও বাসাটি ছাড়ছিলেন না তিনি। তবে বৃহস্পতিবার তার সায় পাওয়া গেছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার বিকেলে বাসাটি ছেড়েছেন বলে জানিয়েছেন আনসার সদস্য জাহাঙ্গীর মিয়া। তবে কোথায় গেছেন সে বিষয়ে কোননো তথ্য জানাতে পারেন নি তিনি। নির্বাচনকালীন সরকার গঠন হলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইয়া বলেছিলেন, মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর এক মাসের মধ্যে সরকারি বাসা ছাড়তে হবে।
কিন্তু অতীতে দেখা গেছে মন্ত্রিত্ব ছাড়ার কয়েক দিনের মধ্যে বাসা ছাড়তে। অনেকে আবার কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে বাসা ছেড়ে দিয়েছেন। কিন্তু দিলীপ বড়ুয়া সব হারিয়েছেন ১২ জানুয়ারি। সে হিসেবে অনেক আগেই তার বাসা ছাড়ার সময় পেরিয়ে গেছে। কিন্তু দিলীপ বড়ুয়া সামান্য ভদ্রতা দেখাতেও ব্যর্থ হয়েছেন বলে দাবি করেছে সরকারি আবাসন পরিদপ্তর।
বার বার বাসা ছাড়তে বলার পর নোটিশ দিয়েও বাসা না ছাড়ায় বিব্রত সরকারি আবাসন পরিদপ্তর। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মুখে বড় বড় কথা বলেন কিন্তু তার কাজের সঙ্গে কোনো মিল নেই। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য অনেক বার ফোন দিলেও সরকারি আবাসন পরিদপ্তরের পরিচালক ড. আশরাফুল ইসলাম ফোন রিসিভ করেন নি।
উৎসঃ   বাংলানিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ