• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৬:১৯ অপরাহ্ন |

সাংসদ বদি মুখোমুখি হলেন সাংবাদিকদের

bodiঢাকা: দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে অনেক বাঘা বাঘা নেতাও সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেছেন। মুখোমুখি হতে চাননি গণমাধ্যমের। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম টেকনাফ-উখিয়ার সাংসদ আব্দুর রহমান বদি।

রোববার দুদক কর্মকর্তাদের মোকাবিলা করে বেরিয়েই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন তিনি। শুরুতেই সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বদি বলেন, ‘নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য হলেও এতদিন আমার মনে হয়নি আমি এমপি ছিলাম। কিন্তু আজ এত সাংবাদিকের সামনে এসে মনে হচ্ছে আমি একজন সংসদ সদস্য।’

হলফনামার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা আয়কর দিয়েছি। আমার মোট আয় ১৩ কোটি ৮ লাখ টাকা। কর বর্হিভূতভাবে আমার বিরুদ্ধে যে অবৈধ টাকার অভিযোগ রয়েছে তা মিথ্যা।’

তাহলে আপনার বিরুদ্ধে সব অভিযোগই কি মিথ্যা ?

জবাবে আবদুর রহমান বদি বলেন, ‘দেশে কিছু জ্ঞানপাপী সাংবাদিক রয়েছেন যারা অযথা মানুষকে হেনস্থা করার জন্য এ ধরণের নিউজ করেন। তবে বিষয়টি দুদকের তদন্তাধীন রয়েছে সুতরাং আপনাদের অপেক্ষা করতে হবে।’

২০০৮ সালে নির্বাচনের হলফনামা চেয়ে ২০১৪ সালের নির্বাচনের হলফনামায় আপনার সম্পদ ৩৫১ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে এ অভিযোগের বিষয়ে আপনার মতামত কি?

বদি বলেন, ‘৩৫১ গুণ সম্পদ বৃদ্ধি পেয়েছে এটা ঠিক না। বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে গত পাঁচ বছরে আমি ৩৬ কোটি টাকা আয় করেছি। আপনারা খুঁজে বের করে দেবেন এই টাকা কোথায়।’

সাংবাদিকরা হলফনামা থেকে এই তথ্য নিয়েছে,আপনি কি বলেন?

উত্তরে বদি জানান, আমার হলফনামায় এত টাকা নেই। আপনারা মিথ্যা তথ্য প্রকাশ করতেছেন। আমি হলফনামা নিয়ে এসেছি। আমার হলফনামায় আমি ৯ কোটি ১৯ লাখ ৬৭ হাজার টাকার তথ্য দিয়েছি। তবে এমপি হিসেবে করমুক্ত ১১ লাখ টাকা এই টাকার সাথে যোগ হবে।

গত অর্থবছরে আমি এক কোটি ৫২ লাখ ৫৫ হাজার ৫৭২ টাকা আয়কর দিয়েছি। সব মিলিয়ে আমি সরকারকে প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা কর দিয়েছি। যার ফলে ২০১১/১২ অর্থবছরে আমি কক্সবাজারে সেরা করদাতা হয়েছি।
মিথ্যা তথ্য দেওয়ার কারণে এতদিন আপনি কেন কোন মামলা করেননি ?

উত্তরে সাংসদ বদি জানান, আমি কয়েকটি মামলা কক্সবাজারে ইতিমধ্যে করেছি। কক্সবাজারে তা তদন্তধীন আছে।

আয়ের উৎসের ব্যাপারে আপনার বক্তব্য কি?

আমি আমদানি-রপ্তানিকারক হিসেবে সীমান্ত বাণিজ্য করি। সরকার যে সকল পণ্য বৈধ উপায়ে ব্যবসা করার সুযোগ দিয়েছে সে সকল পণ্যের বাণিজ্য করি। যেমন- সেগুনকাঠ, চাল ইত্যাদি। সরকারকে যথাযথভাবে কর দিয়েই এ ব্যবসা করি।

আপনি ইয়াবা ব্যবসা করেন এমন অভিযোগের বিষয়ে বদি বলেন, ‘বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা আমাকে ইয়াবার গডফাদার বানিয়েছে। আপনাদের কিছু কিছু মিডিয়া ইয়াবা সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের সাথে আতাত করে বাড়তি সুবিধা পাওয়ার জন্য সরকারের এমপি হিসেবে আমার নাম ব্যবহার করেছে। অর্থ্যাৎ তাদের ধারণা, আমার নাম ব্যবহার করলে প্রশাসন ঘাপলা কম করবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এ অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। এটা তথ্য সন্ত্রাস ছাড়া কিছু না। আমি দুই বার সংসদ সদস্য নিবার্চিত হয়েছি। গতবারও প্রায় ৯৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছি।’

কোন মিডিয়া ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত?

উত্তরে বদি জানান, পত্র-পত্রিকা ঘাটলেই তা আপনারা জানতে পারবেন। তাদের বিষয়ে কক্সবাজারসহ সারা দেশের মানুষ অবগত রয়েছেন।

আপনি রোহিঙ্গাদের ভোটার বানিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন এমন অভিযোগের জবাবে বদি বলেন, ‘আপনি যে প্রশ্ন করেছেন তা অযাচিত। আমি অধিকাংশ রহিঙ্গাদের ভোটে নির্বাচিত এটা বলে বলে জাতিকে মিথ্যা তথ্য দিচ্ছেন। আপনাকে প্রমাণ করতে হবে আমাকে কতজন রোহিঙ্গা ভোট দিয়েছেন।’

এত বেশী পরিমাণ সম্পদ কিভাবে অর্জন করা সম্ভব?

বদি জানান, গত জোট সরকারের আমলে আমার বিরুদ্ধে ৪০ থেকে ৪৫টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমাকে কোন ব্যবসা করতে দেওয়া হয়নি। আমি পাঁচ মাস কারাগারে ছিলাম। আমি ব্যবসায়ী পরিবারের সদস্য। আমি কোন কালো টাকা সাদা করিনি। গত পাঁচ বছরে দ্রব্যমূল্য কত ছিল আর আজ কত বেড়েছে। যে শ্রমিকের বেতন ১৬০০ টাকা ছিল তার আজকের আয় পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ হাজার হয়েছে। সেক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের আয় বাড়তেই পারে।

দুদক আপনাকে ডেকেছে এতে আপনার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। দুদক আমাকে ডেকেছে এজন্য আমি দুদককে সেলুট মারি। একজন এমপি হিসেবে যদি আমার বিরুদ্ধে কোন দুর্নীতি পাওয়া যায় তবে মামলা হবে। এটাই সরকারের নীতি।

তিনি আরো বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ যদি আপনারা প্রমাণ করতে পারেন তাহলে পার্লামেন্ট থেকে পদত্যাগ করে জনগণের কাতারে যাব। যদি প্রমাণ করতে পারেন একজন এমপি হিসেবে আমি একটি টাকাও দুর্নীতি করেছি, একটি টাকাও বিদেশে পাচার করেছি, এখানে যা বক্তব্য দিয়েছি তার বাইরেও কোন তথ্য পাওয়া গেলে আমি সংসদ থেকে পদত্যাগ করব।’

বদির হলফনার তথ্য অনুসারে, জীবনে প্রথম সাংসদ হওয়ার পর পাঁচ বছরে তার আয় বেড়েছে ৩৫১ গুণ। আর নিট সম্পদ বেড়েছে ১৯ গুণের বেশি।

অভিযোগ রয়েছে, হলফনামায় বদি কেবল আয়কর বিবরণীতে প্রদর্শিত অর্থ ও সম্পদের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি গত পাঁচ বছরে আয় করেছেন ৩৬ কোটি ৯৬ লাখ ৯৯ হাজার ৪০ টাকা। টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য ও টেকনাফে জ্বালানি তেলের ব্যবসা করে এ টাকা অর্জন করেছেন বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন তিনি।

হলফনামা অনুসারে এমপি বদির বার্ষিক আয় সাত কোটি ৩৯ লাখ ৩৯ হাজার ৮০৮ টাকা। আর বার্ষিক ব্যয় দুই কোটি ৮১ লাখ ২৯ হাজার ৯২৮ টাকা।

এর আগে ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে জমা দেওয়া হলফনামায় বলেছেন, তখন তার বার্ষিক আয় ছিল দুই লাখ ১০ হাজার ৪৮০ টাকা। আর ব্যয় ছিল দুই লাখ ১৮ হাজার ৭২৮ টাকা। তখন (২০০৮) বিভিন্ন ব্যাংকে আবদুর রহমানের মোট জমা ও সঞ্চয়ী আমানত ছিল ৯১ হাজার ৯৮ টাকা। পাঁচ বছরের মাথায় এসে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে আট কোটি পাঁচ লাখ ১০ হাজার ২৩৭ টাকা। তার হাতে ২০০৮ সালের নভেম্বরে নগদ টাকা ছিল দুই লাখ সাত হাজার ৪৮ টাকা। আর এখন ৫০ লাখ টাকা। এ ছাড়া এখন স্ত্রীর কাছে নগদ টাকা আছে ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ২৬৫ টাকা।

আয়কর বিবরণীতে তিনি দেখিয়েছেন সাত কোটি ৩৭ লাখ ৩৭ হাজার ৮০৮ টাকা। আর নিট সম্পদের পরিমাণ বলা হয়েছে নয় কোটি ১৯ লাখ ৬৭ হাজার ৫৬৩ টাকা। পাঁচ বছর আগে ২০০৮ সালের আয়কর বিবরণী অনুসারে, তখন তার বার্ষিক আয় ছিল দুই লাখ ১০ হাজার ৮৮০ টাকা। আর নিট সম্পদ ছিল ৪৭ লাখ ৭৯ হাজার ৮৮৩ টাকার।

উৎস: রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ