• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন |

খালেদার ফোনে চাঙ্গা তৃণমূল

khalada_zia_
নিউজ ডেস্ক: উপজেলা নির্বাচনে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সক্রিয়া না হওয়ায় ভালো ফলের আশায় প্রার্থীদের সঙ্গে নিজেই কথা বলছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এদের মধ্যে প্রয়োজন বুঝে কারো সঙ্গে বেশি, কারো সঙ্গে কম কথা বলছেন বিএনপি প্রধান। তাকে সহযোগিতা করছেন দলের দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয় সূত্র জানায়, খালেদার জিয়ার এমন উদ্যোগে তৃণমূল পর্যায়ে ব্যাপক প্রাণচাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। অভূতপূর্ব সাড়া পড়েছে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মনে।

খালেদা জিয়া এভাবে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলা শুরু করার পর উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থিতা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতাও কমে গেছে অনেক। অনেক অভিমানী প্রার্থীই বিদ্রোহী অবস্থান থেকে সরে বিএনপি প্রধানের নির্দেশিত প্রার্থীকে সহযোগিত‍া করছেন। একইসঙ্গে সাংগঠনিকভাবে চাঙ্গা হচ্ছে দল।

খালেদা জিয়ার এমন সময়োপযোগ তৎপরতায় কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের অনুপস্থিতিজনিত ঘাটতি অনেকটাই কটিয়ে ওঠা সম্ভব হচ্ছে বলে দাবি দলীয় সূত্রের।

সূত্রমতে, বারবার তাগাদা দেওয়া সত্ত্বেও বিএনপির স্থায়ী কমিটি, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদ ও কেন্দ্রীয় কমিটির গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের প্রায় সকলেই সরে আছেন নির্বাচনী মাঠ থেকে। যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সালাহউদ্দিন আহমেদ ও মোহাম্মদ শাহজাহান ও মিজানুর রহমান মিনু এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবুর রহমান সরোয়‍ার ছাড়া তেমন আর কাউকেই নির্বাচনের মাঠে দেখা য‍াচ্ছে না। আর কেন্দ্রীয় দপ্তরে রিজভীকে সহযোগিতা করছেন দুই সহ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি ও আসাদুল করিম শাহীন।

এমন পরিস্থিতিতে তাই খালেদা জিয়ার সক্রিয় না হয়ে উপায় ছিলো না।

দলীয় সূত্র বলছে, যে সব উপজেলায় একাধিক প্রার্থী আছে, সেখানকার সমস্যা প্রথমে সমাধানের চেষ্টা করছেন রিজভী। তিনি ব্যর্থ হলে ফোন নাম্বার পাঠিয়ে দিচ্ছেন খালেদা জিয়ার কাছে। এরপর খালেদা জিয়া নিজেই কথা বলছেন অভিমানী প্রার্থীর সঙ্গে।

যার সঙ্গে কথা বলছেন তাকে দলের বিপদে-আপদে ভূমিকা রাখার জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছেন খালেদা জিয়া। দিচ্ছেন যথাসময়ে যথাযথ মূল্যায়ণের আশ্বাস। এক কাত‍ারে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে দল সমর্থিত প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করার আহবান জানাচ্ছেন তিনি।

খালেদা জিয়ার এমন আহবানে কাজও হচ্ছে বেশ। কিন্তু এরপরও যারা অবাধ্য থাকছেন, বহিষ্কার করা হচ্ছে তাদের।

বিএনপি দপ্তরের হিসেবে, উপজেলা নির্বাচনের ডামাডোল শুরু হওয়ার পর এরই মধ্যে শতাধিক মনোয়নয়ন প্রত্যাশীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় তাদের বহিষ্কার করা হয়।

এদের মধ্যে ৬ ফেব্রুয়ারি ঝিনাইদহ সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মুন্সী কামাল আজাদ পান্নুকে বহিষ্কার করে জেলা বিএনপি। একই দিন বহিষ্কৃত হন খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি এম কে আজাদ ও উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এসএম রবিউল ফারুক।

৮ ফেব্রুয়ারি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোখলেছুর রহমান, প্রচার সম্পাদক আবদুল মমিন, সদস্য আবদুল কাদের মাস্টার, মফিজুল ইসলাম ও পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হককে বহিষ্কার করা হয়। বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়া এবং জেলার প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ায় ১০ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা রফিকুর রহমান এবং বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলা বিএনপি সভাপতি ইমাম হাসান আবু চানকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় বিএনপি।

১১ ফেব্রুয়ারি খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন ভূঁইয়া বহিষ্কৃত হন। একই দিন রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ায় জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি গোলাম শওকত সিরাজ এবং মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ায় শহর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি সালাউদ্দিন খান স্বপনকে বহিষ্কার করা হয়।

দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় নাটোর জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য সিরাজুল ইসলাম, গুরুদাসপুর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আয়নাল হক তালুকদার ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আলী আযমকে ১২ ফেব্রুয়ারি দল থেকে বহিষ্কার করে জেলা বিএনপি।

একই দিন উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করায় পাবনার চাটমোহর উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রহিম কালু, ভাঙ্গুরা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নুর মোজাহিদ স্বপন ও সাঁথিয়া উপজেলা বিএনপির সদস্য সালাউদ্দিন খানকে বহিষ্কার করে জেলা বিএনপি।

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও দলের স্বার্থবিরোধী তৎপরতায় লিপ্ত থাকার কারণে ১৪ ফেব্রুয়ারি ৫ নেতাকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় বিএনপি। বহিষ্কৃতরা হলেন- বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি লোকমান হোসেন খান, বিএনপি নেতা নূর আলম এবং হান্নান শরীফ।

এদিকে রোববার বগুড়া জেলার ধনুট উপজেলা বিএনপির সভাপতি তহিদুল আলম মামুন, জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মানিক সওদাগর, কিশোরগঞ্জ জেলার নিকলী উপজেলা বিএনপির সদস্য আবু সাঈদ, মাদারীপুর জেলার শিবচর থানা বিএনপির সদস্য নাজমুল হুদা চৌধুরী মিঠু এবং শাহাদাৎ হোসেন খানকে বহিষ্কার করা হয়।

উৎসঃ   বাংলানিউজ২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ