• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩০ অপরাহ্ন |

জামায়াতের টার্গেট

Jamatনিউজ ডেস্ক: উপজেলা নির্বাচনে সর্বোচ্চ ফলাফল পেতে তৎপরতা চালাচ্ছে জামায়াত। এবার প্রথম দফা নির্বাচনে তারা অন্তত ১৫ উপজেলায় দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীর জয়ের টার্গেট নিয়েছে। নিবন্ধন বাতিল, মানবতাবিরোধী অভিযোগে শীর্ষ নেতাদের বিচার, আন্দোলনের নামে সহিংস কর্মকান্ডসহ নানা কারণে কোণঠাসা দলটি তাদের অবস্থান মজবুত ও ভাবমূর্তি ফিরিয়ে আনতে সুযোগ কাজে লাগাতে চায়। ১৯ দলীয় জোটের মাধ্যমে দরকষাকষি করে সর্বোচ্চ সংখ্যক পদে একক প্রার্থী দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে এই দল। এমনকি জোটের সঙ্গে সমঝোতা না হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে বিএনপি-জামায়াতের একাধিক প্রার্থী দেয়ার ঘটনাও ঘটছে। ‘নিরপেক্ষ নির্বাচন’ হলে গতবারের চেয়ে এবার আরও বেশি সংখ্যক পদে জামায়াতের প্রার্থীরা বিজয়ী হবে বলে সংশ্লিষ্ট নেতাদের প্রত্যাশা। তবে স্থানীয় নির্বাচন অরাজনৈতিক হওয়ার অজুহাতে এ বিষয়ে দলটির কেন্দ্রীয় কোনো নেতা মন্তব্য করতে রাজি হননি। দলীয় সূত্র মতে, বর্তমানে সারা দেশে ২৫টি উপজেলায় চেয়ারম্যান, ৩২টিতে ভাইস চেয়ারম্যান এবং ২৬টিতে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রয়েছে জামায়াত সমর্থিত। এবার এই সংখ্যা আরও বাড়ানোর টার্গেট নিয়ে কাজ করছে দলটি। যে পদেই হোক প্রায় সব উপজেলাতেই জামায়াতের প্রার্থী থাকছে বলেও সূত্র জানিয়েছে। বিশেষ করে যেসব এলাকায় জামায়াতের অবস্থান মজবুত, সেসব জায়গায় জোটের সঙ্গে সমঝোতা করে চেয়ারম্যান বা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের একক প্রার্থী দিচ্ছে দলটি। এক্ষেত্রে কোনো ছাড় দিতে নারাজ তারা। এ নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় বিএনপি-জামায়াতের মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব এবং একাধিক প্রার্থী দেয়ার ঘটনাও ঘটছে। নির্বাচন উপলক্ষে কেন্দ্রীয় ও জেলা-উপজেলার নেতাদের নিয়ে একাধিক সেল গঠন করে কাজ চালাচ্ছে জামায়াত। দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করতে বিএনপির সঙ্গে সমন্বয়সহ বিভিন্ন কৌশলে কাজ করছে তারা। অনেক জায়গায় গ্রেফতার-নির্যাতনের ভয়ে প্রার্থীসহ বড় নেতারা সেভাবে মাঠে নামতে না পারলেও স্থানীয় নেতাকর্মীরা প্রচারণা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে।
বুধবার অনুষ্ঠিতব্য প্রথম দফার নির্বাচনে ৯৭টি উপজেলার মধ্যে ২৮টিতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে জামায়াত। এর মধ্যে ২০টিতে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলে কমপক্ষে ১৫টিতে জয় পেতে চায় দলটি। একইভাবে ২৬টিতে ভাইস চেয়ারম্যান এবং ১২টিতে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়েছে দলটি। এর মধ্যে ১৪টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিএনপির সঙ্গে সমঝোতা হয়েছে তাদের। বাকিগুলোতে বিএনপি ও জামায়াত আলাদাভাবে নির্বাচন করছে। যে ১৪টিতে বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের সমঝোতা হয়েছে সেসব উপজেলার মধ্যে বেশ কয়েকটিতে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী এখনও মাঠে রয়েছেন। যেসব উপজেলায় প্রার্থী দেয়া হয়েছে সেখানে স্থানীয়ভাবে জামায়াতের শক্ত অবস্থান রয়েছে বলে দাবি জামায়াতের। এসবের মধ্যে ৮-১০টিতে জামায়াত সমর্থিত বর্তমান চেয়ারম্যান রয়েছেন। ঝিনাইদহ সদর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জামায়াত নেতা হাবিবুর রহমান জানান, এখানে জোটের একক প্রার্থী দেয়ায় সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জয়ের ব্যাপারে বেশ আশাবাদী তিনি। তবে জেলার কোটচাঁদপুর, কালীগঞ্জ ও হরিণাকু-ু উপজেলায় এখনও জোটের প্রার্থীদের মধ্যে সমঝোতা না হওয়ায় একাধিক প্রার্থী রয়েছে। এতে জামায়াত প্রার্থীদের জয় পেতে বেগ পেতে হবে। জামায়াতের ঢাকা মহানগরের এক নেতা জানান, সারা দেশের প্রায় সব উপজেলাতেই জামায়াতের প্রার্থী দেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে যেসব জায়গায় জামায়াতের প্রভাব বেশি সেখানে চেয়ারম্যান পদে জোটের মাধ্যমে একক প্রার্থী দেয়া হচ্ছে। অন্য জায়গাতে ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের প্রার্থী থাকছে। তবে বিভিন্ন জায়গায় সমঝোতা না হওয়ায় বিএনপি-জামায়াতের একাধিক প্রার্থী উন্মুক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। উৎসঃ   alokito


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ