• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৫৩ অপরাহ্ন |

ডাঙায় বাঘ, জলে কুমির

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী:
Gaffar‘ডাঙায় বাঘ, জলে কুমির’। কথাটা যেন বর্তমান হাসিনা সরকারের জন্য বর্ণে বর্ণে সঠিক মনে হচ্ছে। একদিকে এ সরকারের বিরুদ্ধে ঠায় দাঁড়িয়েছে পরাশক্তি আমেরিকা। সঙ্গে লেজুড় ইউনূস শিবির ও নেটিভ সুশীল সমাজ। অন্যদিকে এ সরকারের বিরুদ্ধে জোট বেঁধেছে জামায়াত, হেফাজত, সর্বশেষে নাকি আল কায়দাও। সঙ্গে বিএনপি তো রয়েছেই। গত রোববারই মাত্র জানলাম, আল কায়দার নেতা আল জাওয়াহেরি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে হুংকার দিয়েছেন। বলেছেন, ‘এই রাষ্ট্রটির জন্মই ইসলামবিরোধী। এই রাষ্ট্রের বর্তমান সরকার ইসলামের শত্র। এই সরকারকে উৎখাতের জন্য তিনি বাংলাদেশের মুসলমানদের কাছে আহ্বান জানিয়েছেন।’
আল কায়দা নেতার নামে প্রচারিত এ বক্তব্যটি কতটা সত্য তা এখনও জানা যায়নি। অনেকের ধারণা, জামায়াত গত বছর ৫ মে পেছনে বসে সরকার উচ্ছেদের জন্য হেফাজতিদের মাঠে নামিয়েছিল। বর্তমানেও তেমনি টেপে ধারণকৃত আল জাওয়াহিরির নামে প্রচারিত এ বক্তব্যটি জামায়াত-শিবির থেকেই ম্যানুফেকচার করা। বিএনপির পক্ষপুটে বসে সরকার উচ্ছেদের লক্ষ্যে সন্ত্রাস চালিয়ে ব্যর্থ হওয়ার পর তারা এখন নতুন পক্ষপুট খুঁজছে। এ পক্ষপুটটি হচ্ছে আরেকটি সন্ত্রাসী সংস্থা আল কায়দা। যার আন্তর্জাতিক ব্যাপ্তি এবং দেশে দেশে অব্যাহত সন্ত্রাস চালনার ক্ষমতা ও ট্রেনিং রয়েছে।
আল কায়দা সম্পর্কিত খবরটি এখন পর্যন্ত যতই অসমর্থিত হোক, আমার ধারণা, এটা সঠিক হওয়ার সম্ভাবনা বারো আনা। যদি সঠিক হয় তাহলে তা বাংলাদেশের জন্য শাপে বর। কারণ জামায়াত এতদিন ধরে তার মার্কিন মুরব্বিদের বুঝিয়ে এসেছে, তারা আল কায়দার মতো সন্ত্রাসী দল নয়। আল কায়দার সঙ্গে তাদের কোনো সংশ্রব নেই। মার্কিন মুরব্বিরাও তাদের এ কথা বিশ্বাস করে জামায়াতকে একটি মধ্যপন্থী বা ‘মডারেট মুসলিম গণতান্ত্রিক দল’ বলে সার্টিফিকেট দিয়ে বসেছিলেন।
এখন আল জাওয়াহিরি যা বলেছেন তা যদি সত্য হয়, তাহলে আল কায়দার সঙ্গে জামায়াতি সংশ্রব আর প্রমাণ করার দরকার নেই। সংশ্রব না থাকলে বাংলাদেশে জামায়াতের প্রচারণা ও সন্ত্রাসকে সমর্থন দানের জন্য আল কায়দার নেতা বর্তমানের মোক্ষম সময় বুঝে এগিয়ে আসতেন না। ধর্মের কল এমনি করেই বাতাসে নড়ে। বাংলাদেশে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লার বিচার চলার সময় জামায়াত প্রচার চালিয়েছিল, এ কাদের মোল্লা একাত্তরের সেই কাদের মোল্লা নন। তার ফাঁসির আদেশ হওয়ার পর পাকিস্তান পার্লামেন্ট তড়িঘড়ি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনতে গিয়ে প্রমাণ করে দেয় যে, এই কাদের মোল্লাই ’৭১ সালে তাদের গণহত্যার সহচর কাদের মোল্লা। আর এতদিনে আল কায়দা নেতার নামে প্রচারিত বক্তব্যটি যদি সঠিক হয়ে থাকে তাহলে বলতে হবে, আল কায়দার সঙ্গে বাংলাদেশের জামায়াতের সম্পর্কটি এখন আর প্রমাণের অপেক্ষা রাখে না।
এখন প্রশ্ন, আফগানিস্তানে ও পাকিস্তানে আল কায়দার (সঙ্গে তালেবান) সঙ্গে যুদ্ধরত আমেরিকার ওবামা প্রশাসন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে আল কায়দার এ হুমকি সম্পর্কে কী করবেন? তারা কি আল কায়দার বিরুদ্ধে সংগ্রামে হাসিনা সরকারকে সমর্থন দিতে এগিয়ে আসবেন? না, তাদের বর্তমান হাসিনা সরকারবিরোধী নীতি অনুসরণে অটল থেকে বাংলাদেশে আল কায়দার সম্ভাব্য তৎপরতাকে নীরব অনুমোদন দেবেন?
যদি তারা তা দেন, তাহলে এই ব্যাপারে তাদের পোষ্য নেটিভ সুশীল সমাজের ভূমিকাটি কী হবে? এ সমাজের মুখপাত্র মতি-মাহফুজকেও কি দেখা যাবে বিএনপি-জামায়াতকে নিরপেক্ষতার আড়ালে সমর্থনদানের মতো জামায়াত-আল কায়দার সম্ভাব্য সরকারবিরোধী তৎপরতারও প্রচ্ছন্ন সমর্থক হয়ে দাঁড়াতে? এক্ষেত্রে ইউনূস-শিবিরের ভূমিকাটিও কী হবে তা বুঝতে কষ্ট হয় না।
নিউইয়র্কে নাইন-ইলেভেনের পর বিশ্বকে সন্ত্রাসমুক্ত করার নামে আমেরিকা আল কায়দার বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ শুরু করে, তা যে কত মেকি ও লোকদেখানো ছিল, তার প্রমাণ আফগানিস্তানে আল কায়দার ঘাঁটি ধ্বংস করার আগে তারা ইরাকের মতো একটি আল কায়দাবিরোধী সেক্যুলার রাষ্ট্রকে ধ্বংস করে। তারপর সিরিয়ার মতো আরেকটি সেক্যুলার রাষ্ট্রের দিকে আগ্রাসন চালায়। তাদের এই নীতির ফলে দুটি রাষ্ট্রেই আল কায়দার শক্তি বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ইরানের শক্তিশালী বিরোধিতা না থাকলে ইরাক ও সিরিয়া দুটি রাষ্ট্রেই এতদিনে আল কায়দার রাজত্ব প্রতিষ্ঠা পেত।
আমেরিকার দু’মুখো নীতির জন্য মিসর, লিবিয়া, তিউনিসিয়ায় জঙ্গি মৌলবাদ প্রভূত শক্তি সঞ্চয় করেছে। আফগানিস্তানে আল কায়দা ও তালেবানদের সঙ্গে যুদ্ধক্লান্ত আমেরিকা এখন দেশটি থেকে সাফল্যজনক পশ্চাৎপলায়নের (Successful retreat) সুযোগ খুঁজছে। তাদের ক্রীড়নক প্রেসিডেন্ট কারজাই আমেরিকার কাছ থেকে মুখ ঘুরিয়ে আল কায়দা ও তালেবানদের সঙ্গে আপস করতে চান। আমেরিকাও তালেবানদের সঙ্গে একটা সম্মান বাঁচানোর মতো আপস করে দেশটি ছাড়তে চায়।
পাকিস্তানেও অনুরূপ অবস্থা বিরাজমান। বর্তমান নওয়াজ শরিফ সরকার তালেবানদের সঙ্গে আপসরফায় বিশ্বাসী। সরকার ও তালেবানদের মধ্যে নানা ধরনের বৈঠক চলছে। পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে ক্ষমতায় তালেবান ও আল কায়দার অংশগ্রহণ ক্রমশই অনিবার্য হয়ে উঠছে। মনে হয় ওয়াশিংটনও এই অঞ্চলে তার সামরিক আধিপত্য বজায় রাখার নিশ্চয়তা পেলে একটি প্রকৃত গণতান্ত্রিক ও সেক্যুলার সরকারের চেয়ে ধর্মান্ধ তালেবান ও আল কায়দার সরকারকে ক্ষমতায় দেখতে বেশি পছন্দ করে। আল কায়দা ও তালেবানদের স্রষ্টা তারাই। মার্কিন সাম্রাজ্যের বর্তমান পতনশীল অবস্থায় সাম্রাজ্য রক্ষায় এই তালেবানদেরই তারা বেশি নির্ভরশীল ‘এলাই’ মনে করেন।
বাংলাদেশেও তাই একটি সেক্যুলার সরকারকে সমর্থনদানের পরিবর্তে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যদি দেশটিতে তালেবানদের অভ্যুত্থানের আশংকা ও আল কায়দার হুমকিকে গুরুত্ব না দিয়ে শেখ হাসিনার সেক্যুলার সরকারটিকে বিব্রত করার জন্য নানা ধরনের চাপ, নানা অজুহাত অব্যাহত রাখে তাহলে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই। সাম্প্রতিক নির্বাচন বানচাল করার জন্য জামায়াত ও বিএনপির দেশব্যাপী একটানা সন্ত্রাস সৃষ্টির বিরুদ্ধেও আমেরিকা ও তাদের নেটিভ সুশীল সমাজকে ততটা সরব হতে দেখা যায়নি, যতটা তারা সরব ছিলেন এবং এখনও আছেন হাসিনার সেক্যুলার সরকারটির বিরোধিতায়। ভবিষ্যতে যদি আল জাওয়াহিরির নামে প্রচারিত হুমকি অনুযায়ী বাংলাদেশে আল কায়দার সন্ত্রাস সম্প্রসারিত হয়, সে ক্ষেত্রেও ওয়াশিংটন ও তাদের পোষ্য নেটিভ সুশীল সমাজের ভূমিকা কী হবে তা অনুমান করতে কষ্ট হয় না। এক্ষেত্রেও মৌলবাদ ও তথাকথিত নিরপেক্ষতাবাদের মধ্যে একটা অপ্রকাশ্য আনহোলি এলায়েন্স গড়ে উঠতে পারে।
আমি এই পরিস্থিতিটাকেই বলেছি, বাংলাদেশের বর্তমান হাসিনা সরকারের জন্য ডাঙ্গায় বাঘ জলে কুমির থাকার পরিস্থিতি। বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক রাজনীতি অস্থিতিশীল করার লক্ষ্যে গণতন্ত্রের নামে এই বাঘ ও কুমিরের মধ্যে মিলন ঘটতে পারে। মাথার উপরে হয়তো ছায়া ধরে থাকবে ঈগলের রক্তচক্ষু। একটি ছোট উন্নয়নশীল দেশ বাংলাদেশ। এই বাংলাদেশকে অস্তিত্বের সংকট থেকে মুক্ত করার কঠিন সংগ্রামে রত হাসিনা সরকার। কিন্তু দু’দিক থেকেই এই সরকার এখন হামলা ও হুমকির সম্মুখীন।
আমি বিনা দ্বিধায় এ কথা বলতে পারি, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ধরনের ভয়াবহ দেশী-বিদেশী চক্রান্তের মোকাবেলা করছেন, এ ধরনের চক্রান্তের মোকাবেলা তার পিতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকেও করতে হয়নি। চক্রান্তের শাখা-প্রশাখা যেভাবে বাড়ছে তাতে শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত নিরাপত্তা আরও বেশি হুমকির সম্মুখীন। এ অবস্থায় সমাজের সর্বস্তরে এই বিপদ সম্পর্কে সচেতনতা ও এই বিপদের বিরুদ্ধে সব গণতান্ত্রিক ও পেশাজীবী শ্রেণীর অটুট ঐক্য গড়ে তুলতে না পারলে এই বিপদ সামাল দেয়া কঠিন হবে।
বাংলাদেশের অস্তিত্বের ভিত্তি ধর্মনিরপেক্ষতা ও অসাম্প্রদায়িকতা। এই ভিত্তি ধ্বংস হলে দেশটিতে গণতন্ত্র রক্ষার কোনো প্রশ্নই ওঠে না। অথচ এই অসাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মনিরপেক্ষতার ভিত্তিকে ধ্বংস করার জন্যই এখন প্রচণ্ড হামলা চালানো হচ্ছে গণতন্ত্রের ধুয়া তুলে। হাসিনা সরকারের যত দোষ-ত্র“টি, ভুলভ্রান্তি থাকুক, তারা এখন একা লড়ছেন। গণতান্ত্রিক শিবিরের সবাইও এই সরকারের পক্ষে নয়। সিপিবি ও বামদের মতো দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে একপাল্লায় তুলে রেখে তত্ত্বকথার জালে বন্দি রয়েছেন। তারা আসলে বামপন্থী বিচ্যুতি নয়, ডানপন্থী বিচ্যুতিতে ভুগছেন।
নইলে একই সঙ্গে সাম্রাজ্যবাদ ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে একাট্টা হয়ে সংগ্রামের এমন সময় আর কখন পাওয়া যাবে? বাংলাদেশের আকাশে যখন সাম্রাজ্যবাদ ও মৌলবাদ দুই দানবেরই অশুভ ছায়ার বিস্তার ঘটছে, তখন সেই বাস্তবতাকে পাশ কাটিয়ে যারা খবরের কাগজে কলাম লিখে নিজেদের ‘গণতান্ত্রিক পবিত্রতা’ রক্ষার নামে দেশের জনগণ ও বাস্তবতা থেকে ক্রমশই নিজেদের বিচ্ছিন্ন করছেন, তারা এখনও নিজেদের ভুল বুঝতে না পারলে এবং সাম্রাজ্যবাদ ও মৌলবাদবিরোধী সংগ্রামে যুক্ত না হলে দেশের বিপদ তো আছেই, তাদেরও বিপদ আছে। ৫ মে’র হেফাজতি অভ্যুত্থানের সময় দেখা গেছে, তারা কমিউনিস্ট পার্টির অফিসে আগুন দিতে এবং সেই দলের নেতার গাড়ি পোড়াতে সর্বাগ্রে নজর দিয়েছে।
হাসিনা সরকারও এই বাঘ ও কুমিরের খেলা সম্পর্কে সচেতন ও সতর্ক হোন। আওয়ামী লীগের এখনই সংগঠিত হওয়ার সময়। ছাত্রফ্রন্ট, যুবফ্রন্ট ও শ্রমিকফ্রন্টের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার সময়। দেশপ্রেমিক বুদ্ধিজীবীদেরও ঐক্যবদ্ধ ও সক্রিয় হওয়ার মহালগ্ন। ডাঙায় বাঘ জলে কুমির। এই বাঘ ও কুমির নিধনে জনগণের ঐক্য ছাড়া বিকল্প কোনো উপায় নেই। এই আপ্তবাক্যটি আমাকে আবারও উচ্চারণ করতে হল।
(যুগান্তর, ১৭/০২/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ