• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন |

দ্রুতবিচার আইনের মেয়াদ বাড়লো ৫ বছর

Ministerঢাকা: সরকার দ্রুতবিচার আইনের মেয়াদ পাঁচ বছর বাড়িয়েছে। এ আইন ২০১৯ সালের ৭ এপ্রিল পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদের নিয়মিত বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভুঞা এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুতবিচার) (সংশোধন) আইন, ২০১৪ এর খসড়ার নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। আইনটি এখন পার্লামেন্টে গেলে পাস হবে।’
২০০২ সালে দ্রুতবিচার আইন জারি করা হয়। প্রথমে দুই বছরের জন্য এ আইনটি করা হয়। পরে বিভিন্ন সময়ে এর কার্যকারিতা বাড়ানো হয়। যেমন- ২০০৪, ২০০৬ এবং ২০১২ সালে এর কার্যকারিতা বাড়ানো হয়। ফলে এ আইনটি ২০১৪ সালের ৭ এপ্রিল পর্যন্ত এখনো কার্যকর আছে।
মোশাররাফ বলেন, ‘কেবিনেট এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে এ আইনটি আরো ৫ বছরের জন্য বাড়ানোর। অর্থাৎ আইনটি পার্লামেন্টে পাস হলে ২০১৯ সালের ৭ এপ্রিল পর্যন্ত এর কার্যকারিতা থাকবে।’
আইনটির প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে সচিব বলেন, ‘চাঁদাবাজি, যানবাহন ভাঙচুর-ক্ষতিসাধন, ছিনতাই, দরপত্র ক্রয়-বিক্রয়ে সন্ত্রাস সৃষ্টি ইত্যাদি কারণে এ আইনটি করা হয়েছিল। এ আইনের আওতায় বিচারে সর্বনিম্ন শাস্তি ২ বছর এবং সর্বোচ্চ শাস্তি ৫ বছর, যা আগেই এ আইনে ছিল।’
বিরোধী দলকে দমন করার জন্য ৫ বছর এ আইনের কার্যকারিতা বাড়ানো হয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘২০১৪ সাল পর্যন্ত তাহলে এ আইন কীভাবে আছে। এ আইন বিরোধী দলকে দমন করার জন্য নয়। সময়ের প্রক্রিয়ায় এ আইনটি উত্তীর্ণ হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘একবারের জন্য ৫ বছর বাড়ানো হলে আইনটি আরো কার্যকর হবে।’
এদিকে মন্ত্রিসভায় বিআইএমএসটিইসি (বিমস্টেক) সেন্টার ফর ওয়েদার অ্যান্ড ক্লাইমেট প্রতিষ্ঠার জন্য মেমোরেন্ডাম অব অ্যাসোসিয়েশন স্বাক্ষরের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে।
এছাড়া মোমোরেন্ডাম অব আন্ডারস্ট্যান্ডিং অন দ্য স্টাবলিসমেন্ট অব দ্য বিআইএমএসটিইসি কালচারাল ইন্ডাস্ট্রিজ কমিশন অ্যান্ড বিআইএমএসটিইসি কালচারাল ইন্ডাস্ট্রিজ অবজারভেটরি স্বাক্ষরের প্রস্তাব অনুমোদন হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ