• বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৪৫ অপরাহ্ন |

নিষিদ্ধ হলেই জামায়াত নতুন দল গড়বে

Jamatনিউজ ডেস্ক: সরকার নির্বাহী আদেশে বা আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করলে নতুন দল গঠন করবে জামায়াত। এ ব্যাপারে এখন থেকেই সব পর্যায়ের নেতাকর্মীকে মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। নতুন দল গঠনে সরকারের বাধা এলে কি করতে হবে- সেটা নিয়েও আগে-ভাগে পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে চাইছে দলটির শীর্ষ নেতৃত্ব। যাতে কোনোভাবেই দলীয় নেতাকর্মীদের মনোবল ভেঙে না পড়ে। জামায়াতের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে এমন তথ্য।

সূত্র জানায়, দল নিষিদ্ধ হলেও কৌশলগত কারণে সঙ্গে সঙ্গেই নতুন কোনো দল গঠনের ঘোষণা দেয়া হবে না। পরিবেশ-পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও সময়-সুযোগমতো নতুন দল নিয়ে মাঠে নামবে জামায়াত-শিবির। পাশাপাশি সরকারের দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ-প্রতিরোধ ও জনমত তৈরি করার অংশ হিসেবে নিয়মিত বিরতিতে জনপ্রিয় সব ইস্যু নিয়ে আন্দোলনের মাঠে থাকবে দলটি। এমনকি কোনো একটি জনপ্রিয় ইস্যু নিয়ে শিগগিরই ‘ঢাকা ঘেরাও’ কর্মসূচিও দেয়ার পরিকল্পনা করছে দলটি। ঢাকার বাইরে জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে জোটের উদ্যোগে সভা-সমাবেশ করার প্রস্তুতিও নিচ্ছে দলটির নেতারা। বিভাগীয় সমাবেশগুলোতে ১৯ দলীয় জোটের নেত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপস্থিতি নিশ্চিত করতেও তৎপর তারা। এতে সমাবেশগুলোতে জামায়াত-শিবির নিরাপদে শোডাউন করতে পারবে বলে মনে করেন দলের শীর্ষ নেতারা। সার্বিক অবস্থা পর্যালোচনায় সাম্প্রতিক অনুষ্ঠিত দলীয় বৈঠকগুলোতে দলের ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা হয় বলে সূত্র জানায়। বৈঠকে সরকারবিরোধী আন্দোলন অব্যাহত রাখা এবং উপজেলাসহ স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে অংশগ্রহণ করার বিষয়েও সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া প্রতিদিন গ্রেফতার, পুলিশ ও যৌথ বাহিনীর অভিযান এবং গোয়েন্দা নজরদারী থাকলেও চলমান উপজেলা নির্বাচনে জামায়াত অংশ নিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তবে শক্তি ক্ষয় না করে সতর্ক থেকে সব কার্যক্রম চালানোর পরামর্শ দেয়া হয় নেতাকর্মীদের।

সূত্র জানায়, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে ১৯৯৬ সালের মতো আন্দোলন অব্যাহত রাখতে চায় জামায়াত। ১৯ দলের নামে জোটগতভাবে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে নিতে চায় দলটি। এরই অংশ হিসেবে সামনেই দলটি ঢাকা ঘেরাও কর্মসূচিসহ বেশ কিছু কর্মপরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামবে। দলীয় নেতাকর্মীদের মনোবল চাঙ্গা রাখতে দলটি এ ধরনের কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামার পরিকল্পনা করছে। বিরতি দিয়ে হলেও সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন অব্যাহত রাখার পক্ষে জামায়াতের নীতিনির্ধারকরা। নীতিনির্ধারকদের দাবি, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন করতে গিয়ে অন্যান্য দলের চেয়ে জামায়াতই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দলের শত শত নেতাকর্মী এ আন্দোলনে নিহত ও আহত হয়েছেন। প্রায় আড়াই বছর ধরে প্রকাশ্যে কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করতে পারছেন না তারা। প্রথমসারির বেশিরভাগ নেতা কারাগারে বন্দি। দ্বিতীয়-তৃতীয় সারির নেতারা পর্যন্ত পলাতক জীবনযাপন করছেন। এ অবস্থায় বর্তমান সরকারের পতন ঘটিয়ে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ, তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত রাখা ছাড়া উপায় নেই। দমন-পীড়ন, নির্যাতন, গণগ্রেফতার ও গণহত্যা চালিয়ে জামায়াতের আন্দোলন দমন করা যাবে না বলেও মনে করেন তারা। সূত্রের দাবি, বর্তমান সরকার জামায়াত-শিবিরের তিন শতাধিক নেতাকর্মীকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর যৌথ বাহিনী ও পুলিশ দেশের বিভিন্ন এলাকায় দলের ২৭ নেতাকর্মীকে হত্যা করেছে। গুম করা হয়েছে অনেককে। সরকারের নির্দেশে পুলিশ ও দলীয় সন্ত্রাসীদের হামলায় পঙ্গু হয়েছেন শত শত নেতাকর্মী। হাজার হাজার নেতাকর্মী কারাগারে আটক আছেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করার চেষ্টা করছে। বিরোধী রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের নির্বিচারে হত্যা করছে। এ অবস্থায় সরকারের হাত থেকে দেশ, জনগণ, গণতন্ত্র ও মানুষের মৌলিক অধিকার রক্ষায় আন্দোলন ছাড়া কোনো বিকল্প দেখছে না জামায়াত।

সংশ্লিষ্টরা জানান, উচ্চ আদালতে নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণা, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ‘অপরাধী সংগঠন’ হিসেবে চিহ্নিত হওয়া এবং সর্বোপরি নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নিবন্ধন বাতিল হওয়ার প্রেক্ষাপটে জামায়াতের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। এর বাইরে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর দলটির নেতাকর্মীদের ওপর সরকারের খড়গহস্ত আরও প্রসারিত হয়। এ অবস্থায় জামায়াতের রাজনীতি আরও বেশি প্রতিকূল পরিস্থিতির মুখে পড়ে। নির্বাচনপূর্ব আন্দোলনের সময় সংঘটিত সহিংসতার পুরো দায়ভারই পড়েছে জামায়াতের ঘাড়ে। সহিংসতার অভিযোগে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করার দাবি জানায় দেশি-বিদেশি বিভিন্ন মহল ও সংগঠন। প্রতিষ্ঠার পর পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ সময়ে তিন দফা নিষিদ্ধ হলেও দলটি এমন দুঃসময়ের মুখোমুখি অতীতে আর কখনও হয়নি বলে দাবি করে জামায়াত নেতারা। নির্বাচন-পরবর্তী সময়ে জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে চাপ রয়েছে বিএনপিসহ সহযোগী রাজনৈতিক দলগুলোর ওপর। এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছে জামায়াত।

এ ব্যাপারে দলের ঢাকা মহানগরীর দায়িত্বশীল এক নেতা বলেন, রাজপথে সভা-সমাবেশ করা সব নাগরিকের রাজনৈতিক ও গণতান্ত্রিক অধিকার। অথচ সরকার বিরোধী দলকে তাদের গণতান্ত্রিক, সাংবিধানিক মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করছে। সরকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে রাজনৈতিক ও আদর্শিকভাবে মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র ও অপরাজনীতির পথ বেছে নিয়েছে।

উৎসঃ   আলোকিত বাংলাদেশ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ