• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:২৯ অপরাহ্ন |

মন্ত্রী-এমপিরা বিধি মানছেন না: সুজন

Sujonঢাকা: উপজেলা নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিরা নির্বাচনী আচরণ বিধি মানছেন না বলে অভিযোগ করেছে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)।

মঙ্গলবার রাজধানীর পুরানা পল্টনের মুক্তিভবনে ‘চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন এবং স্থানীয় সরকার সংস্কার প্রসঙ্গ’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এ কথা বলেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, সরকারের মন্ত্রী এমপিরা প্রটোকল নিয়ে নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান করায় আচরণ বিধি লঙ্গন হয়েছে।

উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা হিসেবে এমপিদের থাকা ঠিক নয় বলে মন্তব্য করে সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এমপিরা সংসদের আইন প্রণয়নের জন্য নির্বাচিত। উপজেলার জন্য নয়।

তিনি বলেন, দলভিত্তিক নির্বাচন হলে কিভাবে প্রার্থীদের মনোনয়ন হবে নির্বাচন কমিশনের তা নিশ্চিত করা উচিত। উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অরাজনৈতিক হলেও রাজনৈতিক দলগুলো প্রার্থী দেয়ার মাধ্যমে আইনভঙ্গ করছেন বলেও জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, উপজেলা নির্বাচন হওয়া জরুরী তবে নির্বাচন হলেই বিদ্যমান সমস্যার সমাধান হবে না। ক্ষমতার দ্বন্দ্বের অবসান, স্থানীয় উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে প্রকৃত স্থানীয় মানুষের কাছে পৌঁছানো এবং তৃণমূলের মানুষের জীবন জীবিকায় সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টির জন্য পরিষদগুলোকে কার্যকর করতে হবে। সংসদ সদস্যকে উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা বানিয়ে তাদের পরামর্শ গ্রহণ করা বাধ্যতামূলক করে যে কর্তৃত্ব দেওয়া হয়েছে তা অনাকাঙ্খিত বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সাবেক মন্ত্রী পরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার বলেন, এরশাদ সামরিক শাসক হওয়ায় তার জনসমর্থন ছিল না। তাই তিনি উপজেলা পরিষদ গঠনের মাধ্যমে জনসমর্থন আদায়ের চেষ্টা করেছেন। প্রাথমিক শিক্ষক ও ডাক্তারদের নিয়োগ উপজেলা চেয়ারম্যানদের হাতে থাকা উচিত বলেও জানান তিনি।

রাজনীতিবিদ রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন,এবারের নির্বাচনেও মনোনয়ন বাণিজ্য হয়েছে যা অনাকাঙ্খিত। এমপিতন্ত্রের হাতে বন্দী উপজেলা। এমপিদেরকে আইন প্রণয়ন এবং রাষ্ট্রের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে ফিরে যাওয়ার আহবান জানান তিনি। তিনি বলেন, উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনার ভার স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে রাখতে হবে। এজন্য উপজেলাকে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ এবং দায়-দায়িত্ব দিতে হবে।

সুজন নির্বাহী সদস্য আলী ইমাম মজুমদার বলেন, সংসদ সদস্যরা উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা হওয়ায় উপজেলা পরিষদের কার্যকারিতা বিপন্ন হচ্ছে। উপজেলা নির্বাচন রাজনৈতিকভাবে হওয়ায় প্রক্রিয়াটা যথাযথ ফল দিবে কি না, তা আমাদের ভেবে দেখা দরকার।

মূল প্রবন্ধে অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ বলেন, স্থানীয় নির্বাচন হলেও এ নির্বাচন জাতীয় রাজনীতির একটি টার্নিং পয়েন্ট হতে পারে। ক্ষমতাসীন এবং ক্ষমতার বাইরের সকল দল স্থানীয় নেতৃত্বে সাংগঠনিকভাবে নিজেদের সংহত করার সুযোগ পাচ্ছে। আইন পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে নির্দলীয়ভাবে অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচন কমিশন উদ্যোগী হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

সাবেক সংসদ সদস্য হুমায়ুন কবীর হিরু বলেন, রাজনৈতিক মতলবে এ উপজেলা নির্বাচন হচ্ছে। স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করতে হলে মতলববাজী পরিহার করে রাজনৈতিক সদিচ্ছার মাধ্যমে ইতিবাচক পদক্ষেপ নিতে হবে।

রাজনীতিবিদ সাদেক সিদ্দিকী বলেন, এমপিদের মধ্যে দেশপ্রেম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থাকলে এমপিদের উপদেষ্টা পদ সমস্যা নয়। এমপিরাও জনগণের দ্বারা নির্বাচিত, তাদেরও জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা আছে। সকল নির্বাচিত প্রতিনিধিই সম্মিলিতভাবে জনগণের দাবী পূরণে কাজ করতে হবে।

রাজনীতিবিদ শিরীন বানু বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো তাদের নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাজে লাগাতে চায় তাই স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করতে চায় না। রাজনৈতিক দলগুলো সরকারে গেলে তাদের পার্টি সেক্রেটারীকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বানানো হয় যাতে স্থানীয় পর্যায়কে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

সাবেক বিচারপতি কাজী এবায়দুল হক চাঁনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মূল বক্তব্য পাঠ করেন স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ। এ সময়  কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা রুহীন হোসেন প্রিন্স, এম এ সিদ্দিকী, সালেক সিদ্দিকী, হুমায়ূন কবীর হিরু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উৎস: আইপোর্ট


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ