• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৫:১২ অপরাহ্ন |

সম্পদে তাঁরা এমপি-মন্ত্রীদের থেকে পিছিয়ে নেই

upozela e-2014ঢাকাঃ চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়া চেয়ারম্যান প্রার্থীরা প্রচুর অর্থ-সম্পদের মালিক। বুধবার প্রথম ধাপে ৯৭ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৪৩২ প্রার্থী। এঁদের মধ্যে ১১০ জনের বেশি কোটি টাকার মালিক।

এমনকি অধিকাংশ প্রার্থীর ঢাকায় ফ্ল্যাট-বাড়ি ও গাড়ি রয়েছে। এছাড়া তাঁদের নামে-বেনামে ও স্ত্রীর নামে রয়েছে প্রচুর সম্পদ। পাশাপাশি অনেক প্রার্থীর বাবা-মাসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের নামেও সম্পদ রয়েছে।

নির্বাচন কমিশনে (ইসি) প্রার্থীদের দেওয়া হলফনামা থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়,  কোটিপতি এসব প্রার্থী ছাড়া বাকিদেও সম্পদও কম নেই।  চুতর্থ উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়া চেয়ারম্যান প্রার্থীরা সংসদ সদস্য (এমপি) ও মন্ত্রীদের অর্থ-সম্পদের দিক দিয়ে পিছিয়ে নেই।

কুষ্টিয়া
কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহিদুল ইসলাম ইসির হলফনামায় নিজেকে ব্যবসায়ী উল্লেখ করেছেন।  নিজের কাছে নগদ টাকা আছে ৫ লাখ। ট্রাক রয়েছে চারটি, যার মূল্য ৮৩ লাখ টাকা। স্ত্রীর নামে রয়েছে ৫ ভরি স্বর্ণ।

অন্য প্রার্থী মোশাররফ হুসাইনের কাছে নগদ টাকা আছে প্রায় ৩ লাখ। তিনি নিজেকে ঠিকাদার হিসেবে উল্লেখ করলেও আয়ের উৎসে উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাতা ছাড়া অন্য কোনো আয় দেখাননি।

এ এফ এম আমিনুল হকের বার্ষিক আয় প্রায় ১৫ লাখ টাকা। তাঁর নামে নগদ টাকা রয়েছে ১১ লাখ আর স্ত্রীর নামে রয়েছে ১৯ লাখ। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা রয়েছে নিজের ২ লাখ ও স্ত্রীর ২ লাখ টাকা। নিজের নামে প্রায় ৫৩ লাখ টাকার চার ও পাঁচ তলাবিশিষ্ট দুটি ক্লিনিক ভবন রয়েছে।

এ উপজেলার অন্য প্রার্থী জাকির হোসেন সরকারের নামে নগদ টাকা রয়েছে প্রায় ১ কোটি ২৮ লাখ। স্ত্রীর নামে প্রায় ২৪ লাখ। ব্যাংক-আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নিজের নামে রয়েছে ৯ কোটি ২২ লাখ টাকার বেশি আর স্ত্রীর নামে ৫০ লাখ। নিজের নামে প্রায় ৮ কোটি টাকার শেয়ার রয়েছে। স্ত্রীর নামেও কোটি টাকার বেশি শেয়ারে বিনিয়োগ আছে। নিজের নামে প্রায় ৪৮ লাখ টাকার আবাসিক ভবন বা দালান রয়েছে।

কিশোরগঞ্জ
কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাডভোকেট ফকির মো. মাজহারুল ইসলাম তাঁর হলফনামায় সম্পদের বিবরণীতে নিজের নামের চেয়ে স্ত্রীর নামেই সম্পদ বেশি দেখিয়েছেন। তাঁর কাছে নগদ রয়েছে ৩ লাখ ২৩ হাজার ৬৯৩ টাকা। কিন্তু স্ত্রীর নামে রয়েছে ৩৮ লাখ ৪৫ হাজার ১৪ টাকা। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা রয়েছে ২ লাখ টাকা। এ ছাড়া নিজের নামে বন্ড ও অন্যান্য খাতে কোনো অর্থ না থাকলেও তাঁর স্ত্রীর নামে রয়েছে ১৪ কোটি ৩৩ লাখ ৫১ হাজার ৯২২ টাকা। নিজের নামে স্বর্ণ ও অন্যান্য মূল্যবান ধাতু ২০ ভরি থাকলেও স্ত্রীর নামে রয়েছে ৫০ ভরি। নিজের নামে আধাপাকা দুটি বাড়ি থাকলেও ধানমন্ডিতে স্ত্রীর নামে একটি ফ্ল্যাটও রয়েছে।

এ উপজেলার অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী নাসিরুল ইসলাম খান ও তাঁর স্ত্রীর নামেও রয়েছে অঢেল সম্পদ। তাঁর নামে কৃষি জমি রয়েছে প্রায় ৫ একর। এ ছাড়া ২.৫ কাঠা, ৪.৫ কাঠা ও ৩০ শতাংশ অকৃষি জমিও দেখানো হয়েছে। মূল্য প্রায় ৩২ লাখ টাকা। আর নাসিরুল ইসলামের স্ত্রীর নামে ২.৫ কাঠা, ৬ কাঠা, ৩৫ শতাংশসহ আরও কিছু অকৃষি জমি দেখানো হয়েছে। মূল্য প্রায় ২৫ লাখ টাকা।

এ ছাড়া নিজের নামে একটি টিনশেড ঘর, ৯৬০ বর্গফুটের অফিস স্পেস, দুটি অ্যাপার্টমেন্ট (মূল্য ৩৩ লাখ ৮৫ হাজার ৫২০ টাকা), দোকান রয়েছে একটি। অন্যদিকে তার স্ত্রীর নামে ১২ লাখ টাকার একটি অ্যাপার্টমেন্ট রয়েছে।

নাসিরুল নিজের নামে প্রায় ১১ লাখ টাকা নগদ দেখিয়েছেন। স্ত্রীর নামে নগদ রয়েছে প্রায় সাড়ে ৫ লাখ টাকা। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা রয়েছে ৩৫ লাখ ও স্ত্রীর নামে ১১ লাখ টাকা। বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্র বা অন্যান্য আমানতের পরিমাণ নিজের নামে ৪১ লাখ ৫০ হাজার ও স্ত্রীর নামে ৯০ লাখ টাকা রয়েছে।

এছাড়া চেয়ারম্যান প্রার্থী রফিকুর রহমান হলফনামায় পেশায় নিজেকে ব্যবসায়ী হিসেবে উপস্থাপন করেছেন। বার্ষিক আয় দেখিয়েছেন প্রায় ৩১ লাখ টাকা। নগদ টাকা রয়েছে নিজের নামে ৫০ হাজার। বন্ড ও অন্যান্য খাতে রয়েছে নিজের নামে প্রায় ৮৬ লাখ টাকা। আর স্ত্রীর নামে রয়েছে সাড়ে ৭ লাখ টাকা। মূল্যবান ধাতু নিজের নামে রয়েছে ২০ ভরি আর স্ত্রীর নামে ১৫ ভরি।

সিরাজগঞ্জ
সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিবুর রহমান লেবু হলফনামায় নিজেকে ঠিকাদার ও ব্যবসায়ী হিসেবে উপস্থাপন করেছেন। বার্ষিক আয় আড়াই লাখ টাকা দেখিয়েছেন। নগদ টাকা রয়েছে ১৩ লাখ। ২০ তোলা স্বর্ণ রয়েছে। এ ছাড়া অকৃষি জমি রয়েছে ১০৯ শতাংশ; যার মূল্য সাড়ে ৮ লাখ টাকা।

এছাড়া আরেক প্রার্থী মোহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন হলফনামায় পেশার বিবরণীতে পাঁচটি বিষয় উল্লেখ করেছেন। তাঁর নিজের নামে নগদ টাকা রয়েছে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ। স্ত্রীর নামে প্রায় ১০ লাখ টাকা। শেয়ারে নিজের নামে রয়েছে প্রায় ৪৭ লাখ টাকা। আর স্ত্রীর নামে রয়েছে ১৫ লাখ টাকা।

নিজের নামে রয়েছে একটি প্রাইভেট কার, তবে স্ত্রীর নামে রয়েছে জিপ গাড়ি একটি। নিজের নামে স্বর্ণ রয়েছে ৫ ভরি আর স্ত্রীর নামে ২৫ ভরি। নিজের নামে কৃষি জমি রয়েছে প্রায় ৪৪ লাখ টাকা পরিমাণের। স্ত্রীর নামে অকৃষি জমি রয়েছে প্রায় ১৫ লাখ টাকার।

রিয়াজ উদ্দিনের নিজের নামে আবাসিক ভবন বা দালান রয়েছে ১৬ লাখ টাকার আর স্ত্রীর নামে ১৫ লাখ ৭৫ হাজার টাকার। এ ছাড়া বাড়ি-অ্যাপার্টমেন্ট নিজের নামে না থাকলেও স্ত্রীর নামে রয়েছে, যার মূল্য ৫৩ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। এছাড়া যৌথ মালিকানায়ও তার বেশকিছু সম্পদ রয়েছে।

অন্য প্রার্থী শহীদুল ইসলাম ইসির হলফনামায় পেশায় নিজেকে শিক্ষক হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তাঁর বার্ষিক আয় ২ লাখ ৬৪ হাজার ৭৮০ টাকা। নগদ টাকা নিজের নামে ৪০ হাজার, স্ত্রীর নামে ৫০ হাজার। স্বর্ণ নিজের নামে ২০ ভরি। স্ত্রীর নামে ১০ ভরি।

আগামী বুধবার চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে ৯৭টি  উপজেলায় ভোট গ্রহণ। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীর সংখ্যা ৪৩২, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫১৩ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩২৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।  মোট ভোটার ১ কোটি ৬৪ লাখ ৭৮ হাজার ১৭২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮১ লাখ ৯১ হাজার ৫৩৭ জন, মহিলা ভোটার ৮২ লাখ ৮৬ হাজার ৬৩৫ জন। ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৬ হাজার ৯৯৫টি, ভোটক ৪৩ হাজার ২৯০টি।

উৎসঃ আইপোর্ট


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ