• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:২৩ পূর্বাহ্ন |

ইউক্রেনে সংঘর্ষ অব্যাহত: নিহত ২১

unicrenঢাকা: ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে মঙ্গলবার থেকে সরকার বিরোধী এবং নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ অব্যাহত রয়েছে। দু পক্ষের সংঘর্ষে এ পর্যন্ত ২১ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছে আরো শত শত মানুষ। আগুনে পুড়ছে কিয়েভের ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্কয়ার বা মেইডেন। এছাড়া আরো দুটি শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে।
মঙ্গলবার পুলিশ কিয়েভের ইনডিপেন্ডেন্ট স্কয়ারে অবস্থানকারী বিক্ষোভকারীদের ওপর চড়াও হলে দু পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘাত শুরু হয়। বুধবার সকালেও সংঘর্ষ অব্যাহত থাকার খবর পাওয়া গেছে। এতে কমপক্ষে ২১ জন নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে ১৪ জন বিক্ষোভকারী এবং বাকি ৭ পুলিশ। আরো শত শত লোক আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে বেশ কয়েক জনের অবস্থা গুরুতর।
এছাড়া  ইনডিপেন্ডেন্ট স্কয়ারে অবস্থানকারী বিক্ষোভকারীদের তাঁবুগুলোতে আগুন জ্বলছে বলে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে।
পুলিশ মঙ্গলবার কিয়েভের ঐতিহ্যবাহী ইনডিপেন্ডেন্ট স্কয়ারে সামনে অবস্থান নেওয়া ২৫ হাজারের মতো বিক্ষোভকারীদের ওপর চড়াও হলে দু পক্ষের মধ্যে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে।বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ ব্যবহার করছে কাঁদানে গ্যাস, ফ্লাশ গ্রেনেড ও জলকামান।  অন্যদিকে বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেলের ও মটোলভ ককটেল (পেট্রোল বোমা) ছুড়ছে।  সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছ থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর দেশটিতে মঙ্গলবার ছিল  সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী দিন।
গত নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট ইয়ানুকোভিচ রাশিয়ার প্ররোচণায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে একটি বাণিজ্যিক চুক্তি স্বাক্ষরে অস্বীকৃতি জানালে দেশটিতে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়। গত তিন মাস ধরে চলা বিক্ষোভের চূড়ান্ত রূপ পায় মঙ্গলবার। এ সময় কে বা কারা বিক্ষোভকারীদের তাবুগুলোতে আগুন ধরিয়ে দেয়। বুধবার সকালে আরো বেশি সংখ্যক তাঁবুতে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এখনো চত্বরটিতে আগুন জ্বলতে দেখা যাচ্ছে। এলাকার একটি ট্রেড ইউনিয়নের ভবনের কয়েকটি তলাতেও আগুন জ্বলতে দেখা যাচ্ছে বলে রয়টার্স জাপনিয়েছে। গত কয়েক মাস ধরে ওই ভবনটি সরকার বিরোধীদের সদর দপ্তর হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছিল।
রাজধানী কিয়েভ ছাড়া আরো দুটি শহরে সংঘাত ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। পুলিশ বলছে, বিক্ষোভকারীরা ইভানো-ফ্রাঙ্কিভস্ক ও লভিভ শহরের আঞ্চলিক প্রশাসনিক সদর দপ্তর দখল করে নিয়েছে। এছাড়া তারা তেরনোপিল শহরের প্রধান পুলিশ দপ্তরটিতেও আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।
এদিকে প্রেসিডেন্ট ইয়ানোকভিচ এবংবর্তমান বিরোধী দলীয় নেতা ভাইতালি  ক্লিসকোর সঙ্গে চলা মঙ্গলবার মধ্যরাতের এক বৈঠক কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ক্লিসকো বলেন,‘ এই রক্তপাতের মধ্যে আলোচনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়।’ একই সঙ্গে তিনি সরকারের প্রতি সত্বর মেইডেন থেকে সেনা ও পুলিশ সরিয়ে নেয়ার দাবি করেছেন।
এই ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, যুক্তরাষ্ট্র এবং জাতিসংঘ। তবে পরিস্থিতির জন্য রাশিয়া পশ্চিমা দেশ ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নকেই দায়ী করছে। দেশটিতে ‘গৃহযুদ্ধ’ শুরু হওয়ার আশঙ্কাও প্রকাশ করেছে রাশিয়া।

উৎস: বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ