• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন |

খালেদার বহিষ্কারাদেশ, তারেকের প্রত্যাহার

Khaleda-Tariqueসিলেট: উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রায় ১৩ ঘণ্টা আগে সিলেটের ৩ জন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর বহিষ্কারাদেশ নাটকীয়ভাবে প্রত্যাহার করেছে বিএনপি।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় তাদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হোসেন জীবন বাংলামেইলকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

যারা পুনরায় প্রার্থিতা ফিরে ফেলেন তারা হলেন- গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও সিলেট জেলা ছাত্রদলের সভাপতি এমরান আহমদ, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নছিরুল হক শাহীন, কোম্পানীগঞ্জের চেয়ারম্যার পদপ্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাব উদ্দিন।

তারা গোলাপগঞ্জ ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়েছেন।
দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে প্রার্থী হওয়ায় নির্বাচনের দুইদিন আগে গত সোমবার তাদেরকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। কিন্তু নির্বাচনের কয়েক ১৩ ঘণ্টা আগে নাটকীয়ভাবে তাদের প্রার্থিতা ফিরিয়ে দেয়ায় দলীয় নেতাকর্মীরা বিপাকে পড়েছেন। একই উপজেলায় দু’জন করে দলের মনোনীত প্রার্থী থাকায় কাকে ভোট দিতে হবে এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কর্মী-সমর্থকদের মধ্যেও। তাদের প্রশ্নের উত্তর দিতে পারছেন না স্থানীয় নেতারা।

দলীয় একটি নির্ভযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, গত সোমবার বিএনপির নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে তাদেরকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। কিন্তু নির্বাচনের প্রায় ১২ ঘণ্টা পূর্বে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান তাকের রহমানের নির্দেশে তাদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়। তারেক রহমানের সঙ্গে এই তিন নেতার সুসম্পর্ক রয়েছে বলেও জানিয়েছে সূত্র।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিলেট জেলা ছাত্রদলের এক নেতা বাংলামেইলকে বলেন, ‘গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও সিলেট জেলা ছাত্রদলের সভাপতি এমরান আহমদের তারেক রহমানের সঙ্গে সুসম্পর্ক রয়েছে। এমরান নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার আগে দীর্ঘদিন ইংল্যান্ডে তারেক রহমানের সঙ্গে ছিলেন। তখন তারেকের সঙ্গে ইমরানের সুসম্পর্ক গড়ে উঠে। বহিষ্কার হওয়ার পর ইমরান তারেক রহমানকে ফোনে বিষয়টি জানান। বিষয়টি জানার পর তারেক কেন্দ্রীয় বিএনপির মাধ্যমে তাদের বহিষ্কারাদেশ তুলে নেন।

দলীয় সূত্র জানায়, গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির পক্ষ থেকে জিলাল উদ্দিনকে সমর্থন দেয়া হলেও বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হন জেলা ছাত্রদলের সভাপতি এমরান আহমদ চৌধুরী ও উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নছিরুল হক শাহিন।

দলের সিদ্ধান্ত না মেনে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় কেন্দ্র থেকে সোমবার এমরান আহমদ চৌধুরী ও নছিরুল হক শাহীনকে বহিষ্কার করা হয়। কিন্তু বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষে ছাত্রদল নেতাকে বহিষ্কার করার এখতিয়ার নিয়ে দেখা দেয় নানা প্রশ্ন। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে তার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের খবর আসে সিলেট জেলা বিএনপি নেতাদের কাছে।

সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুল গফ্ফার বাংলামেইলকে জানান, এমরান আহমদ চৌধুরীর বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে প্রার্থী বদল হয়নি। গোলাপগঞ্জে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জিলাল উদ্দিন এখনো বহাল আছেন।

কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হোসেন জীবন বাংলামেইলকে বলেন, নির্বাচনের পূর্ব মুহূর্তে বহিষ্কৃত ৩ জনের বাহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়েছে। হঠাৎ করে কেন তাদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হলো এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, এটা আমার জানা নেই।

উল্লেখ্য, দেশের ৯৭টি উপজেলায় বুধবার সকাল আটটায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়।

বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ