• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৪ পূর্বাহ্ন |

অসাম্প্রদায়িক চেতনায় দেশ গড়ার শপথ নেয়ার দিন আজ

Sohid minarঢাকা : অমর একুশে আজ। জাতীয় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসে গৌরবোজ্জ্বল এক দিন আজ। একুশে আমাদের অহঙ্কার। একুশে আমাদের মুক্তির সোপান। এই একুশই আমাদের শিখিয়েছে কিভাবে লড়াই করতে হয়। কিভাবে লড়াই করে বাঁচতে হয়, অধিকার আদায় করতে হয়। একুশের রক্তঝরা সংগ্রামের পথ বেয়েই এসেছে আমাদের প্রিয় স্বাধীনতা। বাঙালির যা কিছু মহৎ অর্জন তার গোড়ায় রয়েছে একুশের শাণিত চেতনা।

মায়ের ভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি শহীদের রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল ঢাকার রাজপথ। সেই থেকে একুশে আমাদের জাতীয় শহীদ দিবস। এবার পূর্ণ হলো একাধারে শোক ও গৌরবময় সংগ্রামের প্রতীক একুশের ৬১ বছর। এবারের একুশে তাই নতুন তাৎপর্য নিয়ে বাঙালির জাতীয় জীবনে সমাগত। আজ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে যথাযোগ্য মর্যাদায় অমর একুশে উদযাপন করতে গিয়ে একটি অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিশীল ও গণতান্ত্রিক সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার শপথ নেবে জাতি। আর এই লক্ষ্য অর্জনে একুশের চেতনাই হবে আমাদের প্রেরণার উৎস। মায়ের ভাষার অধিকার, মাতৃভাষাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদায় প্রতিষ্ঠার এই সংগ্রাম ছিল ঔপনিবেশিক প্রভুত্ব ও শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে বাঙালির প্রথম প্রতিরোধ জাতীয় চেতনার প্রথম উন্মেষ। আর সেই চেতনাই জাতিকে দিয়েছে আত্মপরিচয়; উদ্বুদ্ধ করেছে অন্যায়-নিপীড়ন ও ঔপনিবেশিক শোষণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ও সংগ্রামে সর্বস্ব পণ করতে। এ দিন বাঙালির আত্মচেতনার; অন্যায়ের বিরুদ্ধে, শোষণের বিরুদ্ধে তার ঐক্যবদ্ধ, ত্যাগদীপ্ত সংগ্রামের দিন। জাতি হিসেবে তার আত্মপ্রতিষ্ঠার, আত্মবিকাশের ও আত্মবিশ্লেষণের দিন।
১৯৪৭ সালে দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে ব্রিটিশ-ভারত দ্বিত হয়ে জন্ম নেয়দুটি রাষ্ট্র পাকিস্তান ও ভারত। সাম্প্রদায়িক রাজনীতি আর বিদায়ী ব্রিটিশের ঔপনিবেশিকতার চালে পাকিস্তানের অংশে পরিণত পূর্ববাংলা হয়ে যায় পূর্ব পাকিস্তান। ব্রিটিশের হাত থেকে স্বাধীনতা পেলেও মুক্তি পায়নি বাংলার মানুষ। নেমে আসে পাকিস্তানি শোষণ, বঞ্চনা ও দুঃশাসনের খড়গ।
পাকিস্তান সৃষ্টির কিছুদিনের মধ্যেই বাংলার ভাষা ও সংস্কৃতি ধ্বংসের লক্ষ্যে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে শুধুমাত্র উর্দুকে চাপিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র শুরু হয়। তখনই ফুঁসে ওঠে বাঙালি জাতি। বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে শুরু হয় আন্দোলন। ধাপে ধাপে এগিয়ে চলে সে আন্দোলন। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি এসে তা চূড়ান্ত রূপ নেয়।
সেদিন ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে ঢাকার রাজপথে মিছিল করে ছাত্র-জনতা। পুলিশ মিছিলে গুলি চালালে শহীদ হন সালাম, বরকত, রফিক, জব্বারসহ অনেকে। চিরকালের সংগ্রামশীল বাঙালির রক্তঝরা দৃপ্ত আন্দোলনে অবশেষে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী মাথা নত করতে বাধ্য হয়। বাংলাকে স্বীকৃতি দেয়া হয় পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে।
’৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের সংগ্রামের পথ ধরেই আসে ’৫৪ সালের নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের জয়, ’৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন, ’৬৬ সালের ৬ দফা, ’৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান, ’৭০ সালের ঐতিহাসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয় এবং রক্তঝরা একাত্তর। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে একাত্তরে বাঙালির মুক্তিযুদ্ধ একুশের সেই সংগ্রামেরই ধারাবাহিকতা।
একুশে তাই আমাদের সংগ্রামের প্রতীক। একুশে মানে আপোসহীন সংগ্রাম। একুশে মানে মাথা নত না করা। বাঙালির গৌরবের একুশ তাই আজ শুধু বাংলার গ-িতে সীমাবদ্ধ নেই। এর সৌরভ ছড়িয়ে গেছে বিশ্বময়। আমাদের ভাষা আন্দোলনের স্মৃতি জড়ানো ২১ ফেব্রুয়ারি আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসও। জাতিসংঘের শিক্ষা, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থার (ইউনেস্কো) ১৮৮টি সদস্য দেশ ২০০০ সাল থেকে বাঙালির ভাষা আন্দোলনের রক্তঝরা দিন ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

বছর ঘুরে আবারো এসেছে মহান একুশে ফেব্রুয়ারি। আমাদের জাতীয় জীবনে এবারের একুশ এসেছে ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তি আজ রাষ্ট্রক্ষমতায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বে মহাজোট সরকার এখন মহান একুশে ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে অঙ্গীকারবদ্ধ।
আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী স্বাধীনতাবিরোধী ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চলছে। এরই মধ্যে এক যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির দ- কার্যকর হয়েছে। আরো কয়েক শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীর দ-ও কার্যকরের প্রক্রিয়ায় রয়েছে। গোটা জাতি আজ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দেখার অপেক্ষায়।
এদিকে, এবার ৬১ বছর পূর্ণ হলো বাঙালির রাষ্ট্রভাষার সংগ্রাম ও ইতিহাসের পাতায় রক্তদানের শোকগাথা রচনার। এই ৬১ বছরে এতোটুকু ম্লান হয়নি মহান একুশের চেতনা ও স্মৃতি। বাঙালির জাতীয় জীবনে একুশের তাৎপর্যও সমভাবে সমুজ্জ্বল। কারণ একুশের রক্তমাখা সংগ্রামের ৬১ বছর পার হলেও এখনো চলছে এ দেশকে একুশের চেতনার বিপরীতে নিয়ে যাওয়ার ষড়যন্ত্র। এখনো চলছে মহান স্বাধীনতার অর্জনগুলোকে বিসর্জন দেয়ার হীন চক্রান্ত। সেই পাকিস্তানি উর্দুভাষীদের পদলেহি স্বাধীনতাবিরোধী ও উগ্রমৌলবাদী গোষ্ঠী এবং তাদের বর্ণচোরা দোসররা আজো সক্রিয় এ দেশে।
একাত্তরের চিহ্নিত ঘাতকচক্র অন্ধকারের শক্তির সঙ্গে আঁতাত করে আবারো নতুন করে তৎপর হয়ে উঠেছে আমাদের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে নস্যাৎ করে দিতে। তারা আমাদের ফিরিয়ে নিতে চায় বর্বর অন্ধকারের যুগে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কাজ নস্যাতের লক্ষ্যে পাঁয়তারা করছে দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির। চালাচ্ছে সন্ত্রাসের তা-ব। পুড়িয়ে মানুষ হত্যা, হিন্দুদের উপর বর্বর হামলা ও নারী ধর্ষণ, স্বাধীনতার পক্ষের রাজনৈতিক কর্মীদের হাতপায়ের রগ কাটা, এমনকি পুলিশ হত্যার মতো নৃশংসতা দেখাতেও পিছপা হচ্ছে না তারা। এই ক্রান্তিলগ্নে একুশের চেতনাই আমাদের মুক্তির মন্ত্র। একুশের চেতনাই আমাদের নতুন করে উদ্বুদ্ধ করবে সকল ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের জাল ছিন্ন করে প্রয়োজনে আবারো বুকের রক্ত দিয়ে মহান স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে রক্ষা এবং অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের।

একুশে ফেব্রুয়ারির এই দিনে নানা আনুষ্ঠানিকতায় ও যথাযোগ্য মর্যাদায় আমরা স্মরণ করছি মহান ভাষা আন্দোলনের অমর শহীদদের। শহীদদের সমাধিতে ও শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যমে গোটা জাতি নিবেদন করছে হৃদয়ের অকৃত্রিম শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। একই সঙ্গে দৃপ্ত শপথ নিচ্ছে একুশের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলার এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিশ্চিত, স্বাধীনতার শত্রু ও একুশের চেতনার বিরুদ্ধশক্তিকে এ দেশের মাটি থেকে চিরতরে নির্মূলের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ