• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৩ পূর্বাহ্ন |

৯৫ ভাগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেত বিএনপি

Fokrulঢাকা: উপজেলা নির্বাচন ‘সুষ্ঠু’ হলে বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থীরা শতকরা ৯৫ ভাগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেত। বলেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে বিএনপি আয়োজিত ‘মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচন ফলাফল নিয়ে আত্মতৃপ্তির কোনো কারণ নেই। কারণ বিএনপির আন্দোলন-সংগ্রাম কোনো নির্বাচনের জয়লাভের জন্য নয়, দেশের স্বাধীন অস্তিত্ব রক্ষার জন্য।

আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান মির্জা আলমগীর। তিনি বলেন, ‘বিলম্ব হলে তা আপনাদের জন্য কাল হয়ে দাঁড়াবে।’ জনগণের চোখের ভাষা বুঝে তাদের চাওয়াকে প্রধান্য দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

মির্জা আলমগীর বলেন, বায়ান্নতে ভাষার জন্য দেশের মানুষ জীবন দিয়েছে, আজ গণতন্ত্র রক্ষার জন্য মানুষ জীবন দিচ্ছে। দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বিএনপির ৩০০ জন নেতা-কর্মী জীবন দিয়েছে, ৬১ জন গুম হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

তিনি বলেন, এর পরও স্বৈরাচারী সরকার দেশের ওপর জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসে আছে। সরকারের চেতনা ফেরাতে আর কত রক্ত প্রয়োজন?

দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব হুমকির সম্মুখীন মন্তব্য করে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় ডাবল স্ট্যান্ডার্ড নীতিতে বিশ্বাস করে। এজন্য কথায় এক রকম আর কাজে আরেক রকম চরিত্র দেখায়।

তিনি আরো বলেন, দেশে গণতন্ত্র নেই। একদলীয় ফ্যাসিস্ট সরকারের শাসন চলছে। তারা ভিন্নমতকে সহ্য করতে পারে না। তাদের হুকুমমতো সব কাজ করতে বাধ্য করে দেশকে এক দুঃশাসন, অসহ্য যন্ত্রণার মধ্যে জাতিকে ফেলেছে এ ‘অবৈধ’ সরকার।

ক্ষমতাসীনরা জাতির সঙ্গে তামাশা করছে মন্তব্য করে মির্জা আলমগীর বলেন, বর্তমান ‘প্রহসনে’র সংসদে জনগণের প্রতিনিধিত্ব নেই। তাই এ সরকারের বৈধতাও নেই।

বিএনপির আন্দোলন সফল হয়েছে মন্তব্য করে মির্জা আলমগীর বলেন, আন্দোলন একশ ভাগ সফল হয়েছে। এজন্য ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে শতকরা ৫ ভাগ ভোটও পায়নি। এর মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ড. আবদুল মঈন খান নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, আবদুল্লাহ আল নোমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাহবুবউল্লাহ প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ