• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৮ অপরাহ্ন |

গাইবান্ধায় ফুল চাষ বেড়েছে

Agriগাইবান্ধা: গাইবান্ধায় মানুষের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইদানিং ফুলের ব্যবহার প্রবণতা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এমনকি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, সামাজিক অনুষ্ঠানে এবং অতিথি বরণে বহুলাংশে ফুলের ব্যবহার পরিলক্ষিত হচ্ছে। সংগত কারণেই তাই ফুলের ব্যবসা এখন জেলা উপজেলা সদরে যথেষ্ট জমজমাট। এজন্য বেড়েছে ফুলের চাহিদা। আর এই চাহিদা পুরণে ফুল চাষের দিকে ঝুঁকে পড়ছে কৃষকরা।
প্রত্যন্ত সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ছাপড়হাটী ইউনিয়নের পূর্ব ছাপড়হাটী গ্রামে এখন গাঁদা, রজনী গন্ধা, গোলাপ, ডিউলাস ফুল চাষ হচ্ছে। ওই গ্রামের কৃষক পরিবার রবীন্দ্রনাথের পুত্র লিটন বাবু ইতোমধ্যে তার বসতবাড়ি সংলগ্ন জমিতে ফুল চাষ করে সাফল্য অর্জন করেছেন। সরেজমিনে পরিদর্শনে জানা গেছে, লিটন বাবু লেখাপড়া শেষ করে যখন চাকরি পাচ্ছিলেন না, তখন তিনি ফুল চাষের দিকে ঝুঁকে পড়েনে। শুরুতেই তিনি তার বাড়ির উঠোনে টবের মধ্যে ফুল চাষ করে সেগুলো বিক্রি করতেন। পরবর্তীতে ফুলের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় তিনি বসতবাড়ি সংলগ্ন জমিতে ফুল চাষ শুরু করেন। এজন্য একটি নার্সারীও স্হাপন করেন।
লিটন জানালেন, এখন ২ বিঘা জমিতে ফুল চাষ করা হচ্ছে। প্রতি বছর ফুল থেকে প্রায় লক্ষাধিক টাকা আয় হচ্ছে। বর্তমানে তাঁর জমিতে রজনীগন্ধা, ডিউলাস, গাদা, গোলাপ, ডালিয়া, সূর্যমুখী, দোপাটি, নয়নতারা, চন্দ্র মলি¬কসহ বিভিন্ন জাতের ফুল চাষ করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি বিভিন্ন ঔষধী গাছের চারাও তিনি বিক্রি করছেন। এ থেকে ব্যয় বাদেও যে টাকা আয় হচ্ছে তা দিয়ে সে নিজের পরিবার পরিজনকেও লালন পালন করতে পারছেন। এই ফুল চাষ তার বেকারত্ব দুরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে তিনি উলে¬খ করেন। এছাড়া তার সাথে কাজ করে ৫ জন নিয়মিত শ্রমজীবি মানুষ তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহে সক্ষম হচ্ছেন।
সরকারীভাবে  প্রশিক্ষণসহ ফুল চাষে ক্ষুদ্র ঋণ সহায়তা পেলে তার মত অনেক কৃষক ফুল চাষের মাধ্যমে আত্মনির্ভর হতে পারেন। এমনকি তাতে এ দেশ থেকে উন্নত জাতের ফুল বিদেশেও রপ্তানী করা সম্ভব হতো। স্বদেশ২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ