• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১০:২১ অপরাহ্ন |

প্রতারকের হাতে জিম্মি শহীদ জব্বারের পরিবার

Jabbarনিউজ ডেস্ক: বায়ান্নর একুশে ফেব্রুয়ারির ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বারের পরিবার জিম্মি হয়ে পড়েছে এক প্রতারকের কাছে। এইচএম আসাদ নয়ন নামে এক প্রতিবেশি শহীদ পরিবারের ৪৪ শতাংশ জমিসহ সম্পত্তি ও স্মৃতি জাদুঘর জোর করে দখলে চেষ্টা করছেন।
প্রতারকের হাতে জিম্মিদশা থেকে মুক্তিসহ জমি উদ্ধারের জন্য স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে সহায়তা চেয়েছেন ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বারের একমাত্র ছেলে নূরুল ইসলাম বাদল।
শহীদ পরিবারের একমাত্র উত্তরাধিকারী সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, এইচ এম আসাদ নয়ন নামে ওই প্রতিবেশি শহীদ জব্বারের ছবির সঙ্গে নিজের ছবি লাগিয়ে করে ভিজিটিং কার্ড তৈরি করেছেন। এরপর নিজেকে শহীদ আব্দুল জব্বারের ছোট ভাই হিসেবে পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে স্বার্থ আদায় করছে।
বাদল আরো অভিযোগ করেন, প্রকৃতপক্ষে ওই আসাদ নয়ন শহীদ জব্বারের রক্তের কেউ নন। প্রতারণার অভিযোগে একাধিকবার তিনি থানা পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন। তিনি আমাদের অনুপস্থিতির সুযোগে বাবার রেখে যাওয়া সম্পত্তি, বাবার নামে নির্মিত গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘরসহ সব কিছু জোর করে দখলে নেয়ার চেষ্টা করছেন।
ভাষী শহীদ জব্বারের একমাত্র ছেলে আরো বালেন, ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি বাংলা ভাষাকে রাষ্ট ভাষা করার দাবিতে ঢাকায় ছাত্র-জনতার মিছিলে অংশ নেন আমার বাবা আব্দুল জব্বার। সেই মিছিলে গুলিবিদ্ধ হয়ে রাত ৮টায় মৃত্যুবরণ করেন। বাবার আকস্মিক মৃত্যুতে চরম বিপাকে পড়েন আমার মা আমেনা খাতুন। তখন আমার বয়স মাত্র ১ বছর ৩ মাস। চরম অভাব অনটনে পড়ে আমার বাবার মৃত্যুর ৮ মাস পর স্বামীর ভিটে-বাড়ি রেখেই মা আমাকে নিয়ে চলে আসেন হালুয়াঘাট আমার চাচা আব্দুল কাদিরের আশ্রয়ে।
অশ্রু সংবরণ করে শহীদ জব্বারের ছেলে বলেন, ভাষা আন্দোলনে বাবাকে হারিয়েছি। মা অনেক কষ্ট করে আমাকে লেখাপড়া করিয়েছেন। পরে এইচএসসিতে পড়াকালীন মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করি।
নুরুল ইসলাম বাদল জানান, ২০০৮ সালে আমার বাবার নামে গ্রামের বাড়িতে নির্মাণ করা হয় শহীদ আব্দুল জব্বার গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর। একই বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বার গ্রন্থাগার ও স্মৃতি যাদুঘরটি উদ্বোধন করেন তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা আনোয়ারুল ইকবাল। সেই সুযোগে জনৈক এইচএম আসাদ (নয়ন) আমার বাবার রেখে যাওয়া উপজেলার রাওনা ইউনিয়নের পাঁচুয়া মৌজার ৪৪ শতাংশ জমি দখল করে নেন।
প্রতারণার অভিযোগে একাধিকবার আটক হওয়া এইচএম আসাদ আমাদের অনুপস্থিতির সুযোগে শুধু বাবার রেখে যাওয়া সম্পত্তি, নির্মিত গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘরই দখলে নেয়ার চেষ্টা করছেন না স্কুলের শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার নামেও অসংখ্য মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
বাংলামেইল২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ