• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন |

ক্ষমতার স্বাদ নিল ‘অরাজনৈতিক’ হেফাজত

Hepazotনিউজ ডেস্ক: কওমি মাদ্রাসা ভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। ইসলাম ও ঈমান-আকীদা নিয়ে কথা বলার ঘোষণা দিয়ে সীরাত মাহফিলের মাধ্যমে অনানুষ্ঠনিকভাবে নিজেদের যাত্রা শুরু করেছিল ২০১০ সালে।
তবে পুরো বিশ্ব মিডিয়ায় হেফাজত আলোচনায় আসে ২০১৩ সালের ৫ মে। রাজধানীর শাপলা চত্ত্বরের সমাবেশের মাধ্যমে পুরো বিশ্ব মিডিয়ায় শিরোনাম হয় এ সংগঠনটি। কিন্তু ১৩ দফা দাবি দিয়ে রাজনীতির মাঠে এলেও হেফাজত নিজেদের বরাবরাই অরাজনৈতিক সংগঠন দাবি করে তারা।
সংগঠনটি বারবার কৌশলে রাজনৈতিক বক্তব্য ও বিবৃতি দিয়ে ক্ষান্ত ছিল এতোদিন। তবে শেষ পর্যন্ত রাজনৈতিক ভোট যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়ে ক্ষমতার স্বাদ নিয়েই ছাড়লো সংগঠনটি। প্রথম ক্ষমতার স্বাদ গ্রহণ করা শুরু করলেন নিজেদের ঘর থেকেই।
চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনের প্রথম দফায় অনুষ্ঠিত গত ১৯ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে হাটহাজারী উপজেলা পরিষদে ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়ী হয়েছেন হেফাজত সমর্থিত প্রার্থী নাসির উদ্দিন মুনীর। তিনি বৈদ্যুতিক বাল্ব প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে ৫৪ হাজার ১৮ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের আকতার হোসেন (তালা) পেয়েছেন ১৮ হাজার ৬০১ ভোট। হেফাজতের প্রধান কার্যালয় এই হাটহাজারী উপজেলাতেই অবস্থিত।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে মুনীরকে জিতিয়ে আনতে তারা প্রথমে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিলেও ১৯ দলীয় জোটের সাথে ঐক্য করে ভাইস চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী নির্ধারণ করেন।
চুক্তি অনুযায়ী বিএনপির বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহবুবুল আলম চৌধুরীর পক্ষে কাজ করেছেন হেফাজত নেতাকর্মীরা আর বিএনপির কোন প্রার্থী দেয়া হয়নি ভাইস চেয়ারম্যান পদেও। ফলে দু’টিতেই জয়ী হয়েছেন তারা। এছাড়া সমঝোতার কারণে জয়ী হয়েছেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের প্রার্থীও।
বরাবর অরাজনৈতিক সংগঠন দাবি করলেও সংগঠনটির নেতাকর্মীরা প্রচার প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেন উপজেলা নির্বাচনে। অংশগ্রহণকারীরা হেফাজতের কেউ নয় দাবি করলেও রাতের আঁধারে নিজেদের প্রার্থীর পক্ষে জনসংযোগ করেছেন সংগঠনটির মহাসচিব মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী।
রাজনৈতিক ক্ষমতার প্রথম স্বাদ পেয়ে আত্মবিশ্বাসী ‘অরাজনৈতিক’ হেফাজতের টার্গেট এখন পটিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। এ উপজেলায়ও জয় নিশ্চিত করতে আটঘাট বেঁধে নেমেছেন সংগঠনটির নেতারা।
আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠেয় দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনে পটিয়া থেকে এবার সমর্থন দিয়েছে সংগঠনটির কোষাধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন রাব্বানিকে। তাকে জয়ী করতে মরিয়া হেফাজত এরই মধ্যে প্রচার শুরু করেছে পুরোদমে। রাব্বানির পক্ষে প্রচারে অংশ নিয়েছেন সংগঠনটির মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী। মিডিয়াকে এড়াতে তিনি গভীর রাতে চালাচ্ছেন নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা।
হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক আল্লামা আজিজুল হক ইসলামাবাদী সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আমাদের সমর্থন নিয়ে হাটহাজারী উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন নাসির উদ্দিন মুনীর। তার এ জয় আলেম-ওলামাদের জয়। সরকারের শত অপপ্রচার সত্ত্বেও জনগণ বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ী করেছে তাকে। এটি সরকারের জন্য বার্তা বহন করে।’
তবে হেফাজত ইসলামের আমীর আহমদ শফির প্রেস সচিব মাওলানা মুনির আহমেদ বলেন, ‘হেফাজত থেকে কাউকে আনুষ্ঠানিকভাবে কাউকে প্রার্থী করা হয়নি। তবে কর্মীরা ব্যক্তিগতভাবে হয়তো কাজ করেছেন। এছাড়া বিজয়ী প্রার্থীতো হেফাজত ইসলামের হাটহাজারী পৌরসভার দায়িত্বশীল। এছাড়া পটিয়াসহ কোথাও আনুষ্ঠানিকভাবে কাউকে সমর্থন করার কথা আমার জানা নেই।’
হেফাজতের সমর্থনের কথাটি স্বীকার করে বিজয়ী ভাইস চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মুনীর বলেন, ‘গতবার নির্বাচন করেও আমি জিততে পারিনি। এবার হেফাজতের সমর্থন ও ১৯ দলের সঙ্গে ঐক্যের কারণে জয়লাভ করতে পেরেছি।’
উৎসঃ   বাংলামেইল২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ