• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১০ পূর্বাহ্ন |

আঠারোতেই সেরা রোমান্স ঔপন্যাসিক!

66417_1সাহিত্য ডেস্ক: বয়স মাত্র ১৮। এরই মধ্যে তিনটি বইয়ের চুক্তি করে ফেলেছে মেয়েটি। তার প্রথম প্রকাশিত উপন্যাস থেকে মুভি করার স্বত্ত্ব কিনে নিয়েছে ফিল্ম কোম্পানি। বিভিন্ন সন্মানজনক সাহিত্য পুরস্কারের জন্যও মনোনীত হতে শুরু করেছে। বেশ বিস্ময় সৃষ্টি করা এই আষ্টাদশী তরুণীর নাম বেথ রিকস। খবর: ডেইলি মেইল’র।
এই মেধাবী তরুণী তার শোবার ঘরে বসে বসে একটি রোমান্টিক উপন্যাস লিখে ফেলেন। এ-লেবেলের প্রস্তুতির ফাঁকে ফাঁকে এই বড় কাজটি করে সে। বৃটেনের সাউথ ওয়ালেসের নিউপোর্টের বাসিন্দা বেথ রিকসের ওই উপন্যাসটির নাম হচ্ছে ‘দ্য কিসিং বুথ’।
বইটির একটি অধ্যায় একটি ওয়েবসাইট ওয়াটপ্যাড ডটকম এ দেন। পাঠকদের আগ্রহ দেখে এই কিশোরী হতভম্ব হয়ে যান। ১৯ মিলিয়নেরও বেশিবার পড়া হয়েছিল ওই অধ্যায়টি।
তারপর তার কাছে তিনটি বইয়ের অফার নিয়ে আসে বিশ্বখ্যাত প্রকাশনা সংস্থা র্যা নডম হাউস। তার বইটি ফিল্মের জন্যও বাছাই করা হয়। রোমান্টিক নভেলিস্টস অ্যাসোসিয়েশন অ্যাওয়ার্ডের জন্যও বাছাই করা হয় বইটিকে।
বছরের সেরা রোমান্টিক উপন্যাস বিভাগের ছোট তালিকাতেও জায়গা করে নিয়েছে ‘দ্য কিসিং বুথ’। আগামী মাসে বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে। বিজয়ীকে ৫ হাজার পাউন্ড সম্মানী দেয়া হবে।
বেথ এক্সেটার ইউনিভার্সিটিতে পদার্থ বিদ্যায় পড়াশুনা করছে। পুরস্কারের জন্য মনোনীত হওয়ায় সে বিস্মিত। তার ভাষায়, ‘মনোনয়নের ব্যাপারটা আসলেই একটি অসাধারণ খবর।’
এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনার পাশাপাশি পরবর্তী বইয়ের কাজও করছেন এই বিস্ময় বালিকা। তার পরবর্তী বইয়ের নাম ‘আউট অব টিউন’।
এদিকে, বেথের মা-বাবাও জানতো না তাদের মেয়ে বাসায় বসে বসে এই চাঞ্চল্যকর কাজটি করেছে। তারা জানতো তাদের মেয়ে বই পড়তে পছন্দ করে। মা বাবা এই ভয়ানক বইপোকা মেয়েটিকে একটি ল্যাপটপ কিনে দিয়েছিল ১১ বছর বয়সে।
সারা দিন রুমে বসে ল্যাপটপে সময় কাটানো দেখে মনে করেছিল সে হয়তো ফেসবুকে চ্যাটিং করে সময় কাটাচ্ছে। কিন্তু বইটি প্রকাশ এবং সাড়া ফেলে দেয়ার পর তার মা-বাবাও অনেক বিস্মিত হয়েছেন।
১৮ বছর বয়সী লেখিকা বেথ রিকস বলেন, ‘যদি আমার মন খারাপ থাকতো কিংবা বাইরে যেতে ইচ্ছে করতো না আমি লিখতাম। এটা ছিল আমাকে প্রকাশ করার একটি উপায়।’
উৎসঃ   আরটিএনএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ