• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন |

আবেগে শুধু মন নয়, বদলে যায় শরীরও

SEXলাইফস্টাইল ডেস্ক: আবেগ শুধু মনকেই নয়, শরীরকেও বদলে দিতে পারে। তাই, জীবনের নানান সময়ে বিশেষ আবেগের মুহূর্তে আমাদের যথেষ্ট সতর্ক থাকা উচিত। তা না হলে, আবেগের প্রভাবে আমাদের মন ও শরীর দুটোই ব্যাপক ক্ষতির শিকার হতে পারে। কোন সুখের আবেগময় ঘটনা যেমন মানুষকে সুস্থ করে তুলতে পারে আবার তেমনি রোগাক্রান্তও করে তুলতে পারে। তবে, কিছু বিশেষ আবেগের প্রভাব আমাদের শরীরে সবচেয়ে বেশি প্রকাশ্যে দেখা যায়।

ভালবাসি শোনার পর:
প্রিয়জনের কাছ থেকে ‘তোমাকে ভালোবাসি’ বাক্যটি শোনার পর আপনার অনুভূতি কেমন হয়? খুব সম্ভবত আপনি উত্তরটি দেওয়ার মতো ভাষা খুঁজে পাবেন না। কিন্তু উত্তরটি দেওয়া খুব কঠিন নয়। তাই প্রিয়জনের কাছ থেকে প্রিয় বাক্যটি শোনার পর আপনার মনের প্রফুল্লতা সৃষ্টির পাশাপাশি প্রভাব পড়তে আপনার শরীরে। ফলে,একদিকে আপনার কর্মশক্তি যেভাবে বেড়ে যেতে পারে আবার অন্যদিকে রক্তচাপও বেড়ে যেতে পারে।
মূলত,ভালবাসা নিয়ে কথা বললে আমাদের মধ্যে সুখানুভূতি জন্ম নেয়। এ সময় আমাদের শরীরে ডোপামিন হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়। যা মস্তিষ্কে সুখানুভূতি দান করে। একারণে আমাদের মস্তিষ্ক উৎফুল্ল হয়ে ওঠে।

আলিঙ্গনের পরে:
সহজভাবে বললে আলিঙ্গন অনুভূতিকে শান্ত করে, শান্তি আনয়ন করে, স্বস্তিবোধ বৃদ্ধি করে ও অনিশ্চয়তা দুর করে। আর দীর্ঘমেয়াদে আলিঙ্গন স্মৃতিধারণ ও ঘুমের উন্নয়ন ঘটায়।
কারণ আলিঙ্গনের সময় অক্সিটোসিন নামের হরমোনের নিঃসরণ ঘটে। এই হরমোনকে আলিঙ্গন হরমোনও বলা হয়। যা আবেগ ও প্রেমময় আলিঙ্গনের সময় নিঃসরিত হয়। এটা সন্তান জন্মদানের সময়ও প্রয়োজনীয়। যা সন্তান ও মায়ের মধ্যে দৃঢ় সম্পর্ক স্থাপনে সাহায্য করে। আমরা এমন সামাজিক জীব যাদের মধ্যে আলিঙ্গন, চুম্বন ও স্পর্শ সম্পর্কের গভীরতা ও সখ্যতাকে বাড়িয়ে তোলে।

হাসি:
হাসি শরীরের জন্য খুবই ভাল। হাসি অতিরিক্ত রক্তচাপ, নাড়ীর স্পন্দন ও চাপ কমিয়ে দেয় ও ব্যথার বিপরীতেও ভাল প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে।
নির্মল হাসি স্বাস্থ্য ভাল রাখার একটি বিশেষ উপায়। হাসিতে অনেক ধরণের রাসায়নিক মিশ্রিত থাকে। হাসিতে এনড্রোপিন, সেরোটোনিন ও ইনসুলিনের মত রাসায়নিক ও হরমোন থাকে, যা হতাশা ও অনিশ্চয়তা দুর করতে বিশেষ সাহায্য করে।

প্রিয় কাউকে হারিয়ে ফেলা:
এক কথায় বলতে গেলে ভালবাসা বা প্রিয়জনকে হারিয়ে ফেলা খুবই ভীতিকর। যার কারণে অনেকে হতাশা, অনিশ্চয়তা, উচ্চ রক্তচাপ, অতিরিক্ত নাড়ী স্পন্দনে ভোগেন। প্রিয়জনকে হারানর কারণে অনেকের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ধ্বংস হয়ে যায় ও অকালে বৃদ্ধ হয়ে যান।
স্বামী বা স্ত্রীর মৃত্যু অন্য সঙ্গীর দেহের উপর মারাত্মত চাপ তৈরি করে। গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে, স্বামী বা স্ত্রীর মৃত্যুর পরে ৩০ ভাগ সঙ্গী ছয় মাসের মধ্যে মারা যায়। কারণ সঙ্গীর মৃত্যুর কারণে শরীরে করটিসেল ও এডরিনালিন হরমোনের নিঃসরণ বেড়ে যায়, যা শরীরের ক্ষতি করে। এছাড়া সঙ্গীর মৃত্যু কোন ব্যক্তিকে অকাল বৃদ্ধও বানিয়ে দিতে পারে।

সম্পর্ক ভেঙ্গে যাওয়া:
সম্পর্ক ভেঙ্গে গেলে হৃদযন্ত্রের স্পন্দন কমে যায় ও এই সময়ে নানান শারীরীক যন্ত্রণা দেখা দেয়। এভাবে এক সপ্তাহ চলার পরে গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল আক্রান্ত, মাংসপেশি সংকোচন, এমনকি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার দুর্বল হয়ে পড়ে।
ভালবাসা অনেকটা মাদকাসক্তের মত। যখন কেও ভালবাসার সম্পর্কে আবদ্ধ থাকে তখন শরীরে ডোপামিন ও অক্সিটোসিনের মাত্রা বেড়ে যায়। আর যখন সম্পর্কের ছেদ ঘটে তখন এই হরমোনের নিঃসরনের মাত্রা মারাত্মক হারে কমে যায়। এছাড়া সময়ের সাথে সাথে সম্পর্ক ছেদের কারণে মানুষ নিজেকে গুটিয়ে নেয়। কোন অনুষ্টানে অংশ নেয় না। যে কারণে সুখের হরমোনের নিঃসরণ ঘটে না। যার ফলে শরীরে নানান রোগের আক্রমণ সহজ হয় ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে পড়ে।

ভালবাসা রচনা:
আপনি যত বেশি ঘনিষ্ট ও বিশ্বস্ত হবেন, ততই আপনার মধ্যে থাকা ভয় ও অনিশ্চয়তা দুর হবে। প্রতিদিনের কিছু ক্লাইমেক্স আপনার হতাশা, দীর্ঘমেয়াদী ব্যথা ও হ্নদযন্ত্রের রোগ ‍দুর করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে তুলবে।
যৌনতার মধ্যে অনেক আবেগ নিহিত থাকে যা শরীরের অনেক সমস্যার সমাধান করে দেয়। অন্যান্য প্রাণীরা কেবল জন্মদানের উদ্দেশ্যে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করে। কিন্তু মানুষের কাছে যৌনতা ভালবাসা প্রকাশের মাধ্যম। গবেষণায় দেখা গেছে, অগার্জম সঙ্গীদের মধ্যে স্নায়ুবিক স্তরের সমতা আনে, এই সময়ে সঙ্গীদের মস্তিষ্কে ডোপামিন, অক্সিটোসিন ও এন্ডোরপিনের নিঃসরণের মাত্রা বেড়ে যায়।যে কারণে সঙ্গীরা উভয়েই সুখী বোধ করে।

প্রিয় মানুষের সাথে ঝগড়া:
প্রিয় মানুষের সাথে ঝগড়ার সময় নাড়ির স্পন্দন ও শ্বাস-প্রশ্বাসের হার বেড়ে যায়। রক্ত চলাচলের নাড়ী অস্বাভাবিকভাবে প্রসারিত হয় ও শরীরে কাপুনি অনুভূত হয়। আপনি যদি প্রিয় মানুষের সাথে প্রতিনিয়ত ঝগড়া করেই যান তবে আপনার হ্নদযন্ত্রের রোগের আশঙ্কা অনেক বেড়ে যাবে।
ক্রমাগত ঝগড়া মস্তিষ্ককে উত্তপ্ত করে তোলে। যার ফলে অন্যের প্রতি সহানুভুতির স্নায়ুগুলো দূর্বল হয়ে পড়ে। আর এই দুর্বলতার কারণে শরীরে চাপের রাসায়নিক, করটিসেল, এডরিনালিনের নিঃসরণ বেড়ে যায়। এই হরমোনগুলো হ্নদযন্ত্রের উপর ক্রমাগত চাপ দিতে থাকে। আর যদি এভাবে চলতেই থাকে তাহলে এক সময় আপনি হ্নদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়বেন। যে কারণে দেখা যায়, শত্রুভাবাপন্ন মানুষরা উভয়েই অসুখী হয়ে থাকে।

নতুন কারো সাথে দেখা:
এমন কিছু ঘটলে আপনার মস্তিষ্ক প্রথমেই প্রফুল্ল ও উদ্যোমী হয়ে ওঠে। নতুন মানুষদের সাথে পরিচয়, সাক্ষাৎ ও নতুন পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নেওয়া মানুষের স্মৃতিশক্তিকে শক্তিশালী করে ও অনিদ্রাকে দুর করে। প্রতিবেশি বা কোন দোকানের হিসাবরক্ষক যাই হোক না কেন, সামাজিকতা আপনার একাতীত্ব, হতাশা ও বিচ্ছিন্নতা দুর করবে। আর এই সামাজিকতা যদি হয় কোন ভালবাসার সম্পর্ক তবে সেটা শরীরে জন্য আরো ভাল কিছু বয়ে আনবে। কারণ নতুন কারো সাথে সম্পর্ক অনেক সম্ভাবনার দ্বার ও অনিশ্চয়তাকে উন্মোচিত করে। আর যদি নতুন সাক্ষাৎ করা ব্যক্তিকে ভাল লেগে যায় তবে, আপনার মস্তিষ্কে ডোপামিনের নিঃসরণ বেড়ে যাবে। এমনকি নতুন মানুষের সাথে একটু হাসি বিনিময়ও সুখের উপাদান সৃষ্টি করতে পারে।
উৎসঃ   নতুনদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ