• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৬ অপরাহ্ন |

নিজেই অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

Badarganj Photo-1.সারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ: অপরিস্কার অপরিচ্ছন্নতায় নিজেই অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। নোংরা দুর্গন্ধময় পরিবেশে রোগীর স্বাস্থ্য সেবা ব্যহত হচ্ছে। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে চিকিৎসা নিতে আসা শিশু ও প্রসূতি মহিলা রোগীরা এ ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। ফলে, স্বাভাবিকভাবে তাদের স্বাস্থ্যসেবা মারাত্বক ভাবে ব্যহত হচ্ছে। প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকার বাজেট থাকলেও কার্যকর কোন কিছুই হচ্ছে না।
রবিবার হাসপাতালে গিয়ে চোখে পড়ে বিভিন্ন জায়গায় ময়লা আবর্জনার স্তুপ। পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ডের টয়লেট, রোগীদের বিছানা, জানালা ও মেঝে ময়লায় ভরা। বেশির ভাগ স্থানে পানের পিকের ছোপ ছোপ দাগ। দেখে যেন মনে হয়, এটি একটি ময়লা আবর্জনার ভাগাড়। নিয়মিত তদারকি না থাকায় বেহালদশায় পড়ে আছে ৫০ শয্যার হাসপাতালটি।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক নেই। রোগী দেখছেন স্বাস্থ্য সহকারী। রোগীদের সেবাদানের জন্য দুটি ওয়ার্ড থাকলেও পচাঁ ময়লার আবর্জনার দূগর্ন্ধে অনেককেই নাক চেপে ধরে ভেতরে যেতে দেখা যায়। চোখে পড়ে রোগীদের বেডের নিচে, জানালায়, মেঝেতে ও টয়লেটে ময়লার স্তুপ। সরকারী ভাবে প্রতিদিন এসব ময়লা গরম পানি, ব্লিজিং পাউডার, ডিটারজেন্ট ফেনা ও স্যাভলন দিয়ে পরিস্কারের নিয়ম থাকলেও তা না করে নামমাত্র শুধু পানি দিয়ে সপ্তাহে একদিন পরিস্কার করা হয়। এছাড়াও হাসপাতালে নেই কোন ময়লা রাখার ঝুড়ি ও ডাস্টবিন। এতে রোগীদের ব্যবহৃত ঔষধপত্র, খাদ্য দ্রব্যের ময়লা সপ্তাহ ধরে পড়ে থাকায় পচাঁ দূর্গন্ধের সৃষ্টি হচ্ছে। দেয়ালে ও জানালার দিকে তাকালে যেন মনে হবে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভবনটি নির্মানের পর থেকে একবারো রং করা ও পরিস্কার করা হয়নি। পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ডে নেই পর্যাপ্ত লাইট ও ফ্যান। আবার যে কয়েকটি আছে তাও অকেজো। এতে গরমের সময় কঠিন কষ্ট পোহাতে হয় রোগীদের। আর রাতের বেলা বিদ্যুৎ চলে গেলে জেনারেটরের ব্যবস্থা না থাকায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভূতুড়ে অবস্থার সৃষ্টি হয়। রাতের বেলা ময়লা আবর্জনার স্তুপ থেকে বেরিয়ে আসে মশা-মাছি। জানালা ভাঙা থাকায় মশা-মাছি সহজে ঢুকে পড়ে ওয়ার্ডের ভেতর। মশা-মাছি তাড়ানোর জন্য রোগীরা ব্যবহার করছে বিষাক্ত কয়েল ও স্প্রে। এতে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে রোগীদের। বিশেষ করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসা শিশু ও প্রসূতি রোগীদের। এছাড়াও রোগীদের নাস্তায় দেয়া হচ্ছে নি¤œ মানের খাবার। নেই কোন সঠিক তদারকি। দেওয়া হচ্ছে না সরকারী ঔষধ ও স্যালাইন। দিন-রাতে খুব জোর একবার ডাক্টার রোগীদের দেখেন। তাও যদি শুক্রবার বা বিশেষ কোন দিন হয় তাহলে ডাক্তারের সাক্ষাত পাওয়া আকাশ চুম্বি ব্যাপার। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডাক্তাররা হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা না দিয়ে টাকার বিনিময়ে স্বাস্থ্য সেবা দিচ্ছেন বাইরের ক্লিনিকে। ডাক্তারদের না পাওয়ায় হাসপাতালে আসতে রোগীরা অনিহা প্রকাশ করছে । এ জন্য রোগীরা ভীড় জমাচ্ছে বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকে। আর মুখস্ত করছে কোন কোন ডাক্তার কবে কোথায় ও কখন বসেন। এ অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সেবার মান ধিরে ধিরে বিলুপ্ত হতে বসেছে।
চিকিৎসা নিতে আসা ছাবিনা বেগম (২০) বলেন, আমার দেড় বছরের শিশু নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ায় চিকিৎসা সেবার জন্য এসেছি। একেতো হাসপাতালটি অপরিস্কার তার ওপরে বেড না পাওয়ায় ময়লা ও দুর্গন্ধযুক্ত মেঝেতে বাধ্য হয়ে চিকিৎসা সেবা নিতে হচ্ছে।
উপজেলার আমরুল বাড়ি হাটখোলা পাড়া থেকে চিকিৎসা নিতে আসা ১৯নং বেডের রোগী মনজুদা খাতুন(২২) অভিযোগ করে বলেন, আমার শিশু বাচ্চা অসুস্থ্য হওয়ায় গত ৮দিন আগে হাসপাতালে ভর্তি করাই। আমার বাচ্চা ছোট হওয়ায় প্রস্রাব পায়খানা বিছানায় করলেও বার বার তাগাদা সত্বেও গত ৮দিনে একবারো বেডশিট(বিছানার চাদর) পরিবর্তন করে দেয়নি কেউ। এছাড়াও হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে সরকারী কোন ঔষধ ও স্যালাইন দেওয়া হয়নি। তিনি আরো বলেন, হাসপাতালে থাকা সরকারী ঔষধ প্রেসক্রিপশনে (চিকিৎসাপত্রে) না তুলে বাইরের ফার্মেসীর ঔষধ লেখা হচ্ছে। অভিযোগ আছে এজন্য তারা ঔষধ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে মোটা অংকের কমিশন পান। একই ধরনের কথা বললেন রাজারামপুর নাওপাড়া গ্রামের আম্বিয়া বেগম (২৪)।
এ বিষয়ে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন মাহমুদ বলেন, পরিস্কার পরিচ্ছন্নকারীরা অনেক সময় কাজে ফাঁকি দেয়। এ কারনে এমন অবস্থা হতে পারে। তবে হাসপাতালের সার্বিক বিষয়ে উন্নতি করার চেষ্টা অব্যাহত আছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ