• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন |

বিএনপি আন্দোলনের নামে মানুষ হত্যা করেছে : প্রধানমন্ত্রী

hasinaনিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আন্দোলনে জনগণকে সম্পৃক্ত করে করতে হয়। আর বিএনপি নেত্রী আন্দোলনের নামে মানুষ হত্যা করেছেন। রোববার কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি আন্তর্জাতিক এ স্টেডিয়ামের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ’৭১ সালে পাকিস্তানি বাহিনী এ দেশে যেভাবে গণহত্যা চালিয়েছে, লুটপাট করেছে, নির্যাতন করেছে, বিএনপির নেত্রীর নির্দেশে আন্দোলনের নামে এখন একই কায়দায় হত্যা, নির্যাতন, লুটপাট চলছে।

তিনি বলেন, আন্দোলনে তাঁর (খালেদা জিয়া) হুকুমে পেট্রলবোমা মেরে, বাসে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা করা হয়েছে। এরা কি কোনো মানুষ? কোনো মুসলমান কি পারে একজন মুসলমানের গায়ে আগুন দিতে? তিনি বলেন, আমরা স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছি, তাই ক্ষমতায় এলে আমাদের একটা দায়িত্ব থাকে। সেই দায়িত্ববোধ থেকে আমরা দেশের উন্নয়ন করি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, কক্সবাজারের রামুতে বৌদ্ধমন্দির পুড়িয়েছে বিএনপি-জামায়াতের লোকজন। ইসলাম ধর্মে তো তা বলে না। কোরআন শরীফের শিক্ষা হলো, যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে। জামায়াতে ইসলামীর প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জামায়াতে ইসলাম কেবল নামে ইসলাম, কাজে তো কোনো ইসলামি কর্মকাণ্ড দেখি না। তারা কখনোই মানুষের সঙ্গে থাকে না।

তিনি বলেন, ২০১৩ সালের মে মাসে বায়তুল মোকাররমে তারা জায়নামাজে আগুন দিয়েছে। শত শত কোরআন শরিফ পুড়িয়েছে। কোরআন শরিফ যে পোড়ায়, সে কীভাবে ইসলাম নাম দিয়ে রাজনীতি করে।

আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সারা বাংলাদেশে ভূমিহীন, নিঃস্ব মানুষদের আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে, বয়স্ক-ভাতা, বিধবা-ভাতা দিচ্ছি।  প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি দিচ্ছি, মেধাবী শিক্ষার্থীরা যাতে ডিগ্রি পর্যন্ত পড়াশোনা চালিতে যেতে পারে তার জন্য বৃত্তি দেয়া শুরু হয়েছে। এসএসসি পর্যন্ত বিনামূল্যে বই দেয়া হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে মানুষের জীবনে শান্তি-নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। দেশে খাদ্য উৎপাদন বেড়ে যায়। খাদ্যঘাটতি দূর হয়ে খাদ্য উদ্বৃত্ত হয়। আমাদের শাসনামলে জনগণের মাথাপিছু আয় বেড়েছে। তিনি আরো বলেন, উপযুক্ত দাম না পেয়ে লবণচাষিরা কষ্টে আছেন তা আমরা জানি। তারা যাতে উপযুক্ত দাম পেতে পারেন সে ব্যবস্থা আমরা করব।

বিকেল সাড়ে ৩টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ কামাল স্টেডিয়ামের উদ্বোধন করেন। এসময় তিনি সদ্য অনুমোদন পাওয়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিও উদ্বোধন করেন। এর আগে আরো বক্তব্য রাখেন ক্রীড়া উপ-মন্ত্রী আরিফ খান জয়, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পবন এমপি, যুব ক্রীড়া মন্ত্রী বীরেন শিকদার, বেসরকারি বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন প্রমুখ।
জনসভা পরিচালনা করছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন আহমদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ